ঘোষনা:
শিরোনাম :
নারায়ণগঞ্জ আমলাপাড়ার প্রেসিডেন্ট রোড এলাকায় গ্যাস লাইন লিকেজ বিস্ফোরণে ২ নৈশ প্রহরী দগ্ধ। গোপালগঞ্জে করোনায় গৃহবধুর মৃত্যু । বিতর্কিত ‘শিশু’ বক্তা রফিকুল ইসলাম মাদানীর নামে আরও একটি মামলা । ঢাকা সিলেট মহাসড়কে ট্রাকের ধাক্কায় মটর সাইকের আরোহী পুলিশের এস আই নিহত। ডোমার উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তার বিদায়, বরণ সংবর্ধনা । রিসোর্টে নারীকে নিয়ে, মামুনুলের ব্যক্তিগত বিষয়, এ নিয়ে হেফাজতের বক্তব্য নেই। নীলফামারী সৈয়দপুরে বৈশাখ আর ঈদের কেনাকাটায় ব্যাস্ত মানুষ। রাষ্ট্রপতির শোক বার্তা দিয়েছেন একুশে পদকপ্রাপ্ত রবীন্দ্রসংগীত শিল্পীর মৃত্যুতে। সাতক্ষীরায় ঘাতক সাগর গ্রেপ্তার, ‘২০০ টাকার জন্য বন্ধুকে খুন ’ ঘাতকের স্বীকারোক্তি। সীতাকুণ্ডে পুকুর থেকে যুবকের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।স্ত্রীকে আটক।
গোবিন্দগঞ্জে নার্সারীতে উৎপাদিত চারা বিক্রিকরে লাখপতি দুই ভাই |

গোবিন্দগঞ্জে নার্সারীতে উৎপাদিত চারা বিক্রিকরে লাখপতি দুই ভাই |

কামরুল হাসান, গাইবান্ধা প্রতিনিধিি ,
নার্সারি করে লাখপতি হয়েছেন গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ পৌরসভার কালিকাডোবা গ্রামের সফল কৃষক জাবেদ আলী আকন্দ ও সরফরাজ আলী আকন্দ। তাদের নার্সারিতে রয়েছে প্রায় ১ লাখ ২০ হাজার ফুল, ফলজ, ভেষজ, বনজসহ বিভিন্ন প্রজাতির গাছের চারা। বর্তমানে নার্সারি থেকে তাদের প্রতি চারা রোপণ মৌসুমে আয় হচ্ছে প্রায় ১৫ লাখ টাকার মতো। জাবেদ সরফরাজ দুই সহোদর ভাইয়ের এ নার্সারি দেখে গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার কয়েকটি গ্রামে শতাধিক নার্সারি গড়ে উঠেছে।
গোবিন্দগঞ্জ শহর থেকে দেড় কিলোমিটার পশ্চিমে পৌর শহরের ৩ নং ওয়ার্ড কালিকাডোবা গ্রামে গোবিন্দগঞ্জ হতে কুঠিবাড়ী হয়ে আরজিখলসী সড়কের পাশে কৃষি কাজের পাশাপাশি ১৯৯২ সালে ১০ হাজার টাকা মূলধন নিয়ে পৈতৃক ১৫ শতক জমির ওপর বিভিন্ন প্রজাতির গাছের চারা উৎপাদন ও বিক্রি শুরু করেন তারা। পর্যায়ক্রমে বর্তমানে তিনি আট একর জমিতে গড়ে তুলেছেন নার্সারি। জাবেদ-সরফরাজ দুই ভাইয়ের ছেলে ও মেয়ের নামে নাম দিয়েছেন নয়ন-সাথী নার্সারি’ যার রেজি নং-০৯। এর আগে জাবেদ স্থানীয় কৃষি অফিসের সহযোগিতায় ‘নার্সারি ব্যবস্থাপনার’ ওপর শর্ট কোর্স নিয়েছেন। ওই প্রশিক্ষণকে কাজে লাগিয়ে বেকারত্ব ঘুচাতে তিনি গাছের চারা উৎপাদন ও বিক্রি শুরু করেন।
এ নার্সারিতে আম, জাম, কাঁঠাল, বরই, পেয়ারা, লেবু,জাম্বুরা,মাল্টা, জলপাই, লিচু, মরিচ, বেগুন, বিভিন্ন জাতের ফুল ও ঔষধি গাছ পাথরকুঁচি, হরিতকি, তুলশী চারা উৎপাদন শুরু করেন। তার নার্সারিতে বর্তমানে প্রায় ২০ হাজার ৪৬৩ টি ফলজ জাতের কলম চারা, প্রায় ৭০ হাজার ৮৮০টি কাঠের গাছের চারা,প্রায় ২০ হাজার ৫০৮টি সবজির চারা, সৌন্দর্য্য বর্ধনকারী গাছের প্রায় ৭ হাজার ৩৩০টি চারা ও বিভিন্ন কলম তৈরির জন্য প্রায় ৭০টি মাতৃগাছের চারা রয়েছে। এবার চারা রোপণ মৌসুমে  দৈনিক ৩০ থেকে ৪০ হাজার টাকা মূল্যের গাছের চারা বিক্রি করছেন।
এসব চারা কিনতে  ঢাকা, কুমিল্লা, ফরিদপুর, খুলনা, পাবনা, রাজশাহী, নাটোর, নওগা, দিনাজপুর, লালমনিরহাট, সিলেট, সহ দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে চারা ব্যাবসায়ীরা আসে।সরফরাজ জানান চারার জাত ও মান আমরা গ্যারান্টিসহ বিক্রি করি এবং সেটা চারা ব্যাবসায়ীরাও গ্যারান্টিসহ খুচরা বিক্রি করে।আমাদের কথা কাজে মিল থাকায় দেশের যেকোনো প্রান্ত কোনো পাইকার একবার চারা নিয়ে গেলে পুনরায় চারা নিতে আসে প্রতি বছর চারার চাহিদা বৃদ্ধি পাচ্ছে।রাজশাহীর বিখ্যাত আম বাগানগুলো আমাদের চারা নিয়ে গিয়েই সৃষ্টি হয়েছে।
প্রতি চারা রোপণ মৌসুমে  প্রায় তারা ২০ লাখ টাকা মূল্যের গাছে চারা বিক্রি করেন। নার্সারির আয় দিয়ে জাবেদের এক ছেলে বিশ্ববিদ্যালয়ে ও সরফরাজের ছেলে-মেয়ে পড়ালেখার খরচের যোগানসহ সংসারের যাবতীয় ব্যয়ভার বহন করছেন এবং ক্রমে ক্রমে নার্সারীর পরিধি বড় করছেন।তাদের স্কুল, কলেজ পড়ুয়া সন্তানরাও নার্সারী কাজে সহায়তা করেন।এ বিষয়ে নার্সারী ব্যাবসায়ীর সন্তান নয়ন বলেন আমি লেখা পড়ার পাশাপাশি সুযোগ পেলেই  নার্সারী কাজে সহায়তা করি বাবার কাজ সহায়তা করতে পেলে খুব আনন্দ পাই।
জাবেদ আলী আকন্দ বলেন, নার্সারি ব্যবসা করে লাভবান হওয়াই বড় কথা নয়। তিনি নার্সারি ব্যবসায় মানুষকে উদ্বুদ্ধ করা এবং বৃক্ষের প্রতি প্রেম থেকে  এটা শুরু করেছেন।
তিনি তার সহযোগী হিসেবে একজন শ্রমিক নিয়ে এ ব্যবসা শুরু করেন। বর্তমানে তার নার্সারিতে ৮-১০ জন শ্রমিক নিয়মিত কাজ করেন।
সরফরাজ বলেন, স্থানীয় কৃষি কর্মকর্তা ছাহেরা বেগম   নার্সারির পরিধি ও আয়তন বাড়ানোর জন্য আমাকে বিভিন্নভাবে নানা পরামর্শ দিয়ে সহায়তা করে যাচ্ছেন। বর্তমানে নার্সারির তিন ছয় একর জায়গায় প্রায় ২০ লাখ টাকা মূল্যের গাছের চারা রয়েছে।
তিনি তার নার্সারিকে দেশের মডেল হিসেবে গড়ে তুলতে চান। এজন্য দিন-রাত খেটে যাচ্ছেন তিনি। তিনি আশা করেন সরকারি আর্থিক সহয়োগিতা পেলে নার্সারির আয়তন বৃদ্ধিসহ স্থানীয়ভাবে আরো বেশি লোকের কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করতে পারবেন।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST