ঘোষনা:
শিরোনাম :
ডিমলায় সরকারী সেবা জনগনের দোরগোড়ায় দিতে চান ইউএনও উম্মে সালমা নীলফামারীতে পবিত্র ঈদুল আযহায় জেলা পুলিশের উৎসব সাতক্ষীরার শ্যামনগরে আত্মসমর্পনকারী বনদস্যুর মাঝে ঈদ উপহার সাতক্ষীরার দুটি উপজেলায় ভূমিহীন ও গৃহহীনদের চাবী ও দলিল দিয়ে ভূমিহীন ও গৃহহীন মুক্ত ঘোষণা নীলফামারীতে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার ও জমির মালিকানা বহালে সংবাদ সম্মেলন মিথ্যা প্রলোভনে পাহাড়ের নারীদের পাচার করছে একটি সংবদ্ধ চক্র সাতক্ষীরায় ভাঙান মাছ চাষ পদ্ধতি ও ব্যবস্থাপনা বিষয়ক কর্মশালা গ্রামীণব্যাংকের সেবার মান বাড়ানোর প্রতিশ্রুতি, নীলফামারীতে কোরবানির জন্য প্রস্তুত ২ লাখ ৭৬ হাজার ২০১টি পশু নীলফামারীতে প্রযুক্তিগত দক্ষতা বৃদ্ধিতে নারীদের ছয় মাস ব্যাপি প্রশিক্ষণের উদ্বোধন
মিথ্যা প্রলোভনে পাহাড়ের নারীদের পাচার করছে একটি সংবদ্ধ চক্র

মিথ্যা প্রলোভনে পাহাড়ের নারীদের পাচার করছে একটি সংবদ্ধ চক্র

খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি,

মিথ্যা প্রলোভনে পাহাড়ের নারীদের পাচার করছে একটি সংবদ্ধ চক্র। খাগড়াছড়ি জেলা পুলিশের বিশেষ অভিযানে ঢাকা থেকে চীনা নাগরিকসহ দুই পাচারকারী চক্রের সদস্য আটক করা হয়েছে। ঢাকার উত্তরা থেকে উদ্বার হয়েছে ৫ পাহাড়ি কিশোরী-তরুনীকে। চক্রের অপর সদস্যদের গ্রেফতারের অভিযান চালাচ্ছে পুলিশ।

দীর্ঘদিন ধরে পার্বত্য চট্টগ্রাম থেকে নানা প্রলোভনে চীনে পাচারের উদ্দেশ্যে কিশোরী-তরুণী সংগ্রহ করছিলেন চক্রের মূল সদস্য হেলি চাকমা। অভিযুক্তরা সংঘবদ্ধভাবে প্রতারণার মাধ্যমে পরিবারের অগোচরে পাহাড়ের বিভিন্ন এলাকা থেকে ভিকটিমদের চীনে নেওয়ার নাম করে ঢাকায় নিয়ে নিজ ভাড়া বাসায় আটকে রাখে। পরে সুযোগ বুঝে পাচার করে দেয়। খাগড়াছড়ির পানছড়ির দুই কিশোরী নিখোঁজের খবরের পরিপ্রেক্ষিতে পুলিশ অনুসন্ধানে নামে। পরে ঢাকার উত্তরার একটি অভিজাত ফ্ল্যাট পাঁচ ভুক্তভোগীকে উদ্ধার করে পুলিশ। তখন চীনা নাগরিক জিও সুই হুইকে গ্রেপ্তার করা হয়। চিনা নাগরিক জিও সুই হুই ও সুমি চাকমা ওরফে হেলি চাকমা স্বামী-স্ত্রী পরিচয় দিয়ে উত্তরার ফ্ল্যাটটিতে ভাড়া থাকতেন।
আদালতে ভূক্তভোগিদের একজন জানায়,সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে হেলি চাকমার সঙ্গে তার যোগাযোগ হয়। চীনে উচ্চ বেতনের চাকরির সুযোগ করে দেওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে তাকে ঢাকায় যেতে বলেন হেলি।ঢাকায় যাওয়ার জন্য ওই ভুক্তভোগীকে পাঁচ হাজার টাকাও পাঠানো হয়। ঢাকায় যাওয়ার পর তার ফোন কেড়ে নিয়ে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেওয়া হয়। ওই ভুক্তভোগী কৌশলে বড় বোনকে বিষয়টি জানালে পুলিশের সহায়তায় তাদের উদ্ধার করা হয়।

খাগড়াছড়ির পুলিশ সুপার মুক্তা ধর জানান, ভিকটিমের পরিবারের অভিযোগের প্রেক্ষিতে প্রযুক্তি ব্যবহার করে ঢাকার উত্তরার একটি বাসায় অভিযোগে চীনা নাগরিক জিও সু হুই আটক ও পাচারের শিকার ৫ কিশোরী-তরুনীকে উদ্বার করা হয়। তাদের মধ্যে দুইজন খাগড়াছড়ি জেলার পানছড়ি ও অপর তিনজন রাঙামাটি জেলার বাসিন্দা।  রবিবার(০৯ জুন/২৪) রাতে ঢাকার উত্তরার ১২ নং সেক্টর থেকে একটি ভাড়া বাসা থেকে অভিযান চালিয়ে পাচার চক্রের মূল হোতা সুমি চাকমা ওরফে হেলিকেও গ্রেপ্তার করেছে খাগড়াছড়ি জেলা পুলিশ।
অপর দিকে রবিবার সন্ধ্যায় খাগড়াছড়ির অতিরিক্ত চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটের আদালতে উদ্ধার পাঁচ ভুক্তভোগীর ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি নেওয়া হয়েছে। গ্রেফতার জিসাও সুহুইয়ের জবানবন্দি নেওয়া শেষে তাকে খাগড়াছড়ি কারাগারে পাঠানো হয়েছে। ভুক্তভোগী দুজনকে পরিবারের জিম্মায় দেওয়া হয়েছে। বাকি তিনজনের বাড়ি রাঙ্গামাটি হওয়ায় তাদের জেলা গোয়েন্দা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।একাধীক এলাকাবাসী দাবী জানায়,
মানবপাচার চক্রের নজর এখন পাহাড়ে। নানা প্রলোভন দেখিয়ে তাদের সমতলে নিয়ে পাচার করছে বিভিন্ন দেশে।এদের মুল হোতাদের  ধরে আইনের আওতায় আনার জোর দাবী।

 





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST