ঘোষনা:
শিরোনাম :
নীলফামারীতে চালু হলো মাইকোর্ট অ্যাপ-ঘরে বসেই জানা যাবে মামলার সর্বশেষ তথ্য। নীলফামারীতে র‌্যাবের অভিযানে বিদেশি পিস্তল সহ অস্ত্র ব্যাবসায়ী আটক। নীলফামারীতে সন্ত্রাসীদের তান্ডবে বাড়ি ছাড়া ২১ পরিবারের সংবাদ সম্মেলন নীলফামারী থেকে রংপুরে আন্তঃজেলা গরু চোর চক্রের ৩ সদস্য গ্রেপ্তার নীলফামারীতে নেকবক্ত উচ্চ বিদ্যালয়ে জিপিএ-৫ নীলফামারীতে পুলিশ সুপার গোলাম সবুরের সহযোগিতায় কলেজে ভর্তির সুযোগ পেলেন সোয়াদ নীলফামারীতে রের্কডীয় রাস্তায় দোকান নির্মাণ, চলাচলের চরম ভোগান্তিতে ৬টি পরিবার নীলফামারীতে সুধীজনের সাথে মানবাধিকার কমিশনের মতবিনিময় পঞ্চগড়ে এমপি রানার মন্দির দখল,ব্যাবস্থা নিতে হাইকোর্টের নির্দেশ নীলফামারীতে অনলাইন জুয়ার বিদেশী জাল চেক,ল্যাপটপ ও টাকা উদ্ধার
সাতক্ষীরায় কিশোর  শাহীনের ওপর হামলাকারী তিনজনকে গ্রেপ্তারসহ ভ্যানটিও উদ্ধার করেছে পুলিশ।

সাতক্ষীরায় কিশোর  শাহীনের ওপর হামলাকারী তিনজনকে গ্রেপ্তারসহ ভ্যানটিও উদ্ধার করেছে পুলিশ।

সাতক্ষীরা প্রতিবেদক,

সাতক্ষীরায় কিশোর  শাহীনের ওপর হামলা চালিয়ে  ভ্যান ছিনতাইয়ের ঘটনায় তিনজনকে গ্রেপ্তারসহ শাহীনের ভ্যানটিও উদ্ধার করেছে পুলিশ। আজ সোমবার সন্ধ্যায় সাতক্ষীরার পুলিশ সুপার সাজ্জাদুর রহমান প্রেস ব্রিফিং করে এ কথা জানান।গুরুতর আহত শাহীন ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। তার অবস্থা আগের চেয়ে কিছুটা ভালো বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকেরা। পুলিশ সুপার জানান, শাহীন ওপর হামলার ঘটনায় গ্রেপ্তার করা হয়েছে যশোরের কেশবপুর উপজেলার বাজিতপুর গ্রামের নাইমুল ইসলাম (২৪), সাতক্ষীরার কলারোয়া উপজেলার আলাইপুর গ্রামের আরশাদ পাড় ওরফে নুনু মিস্ত্রি (৬৫) ও সাতক্ষীরা সদর উপজেলার গোবিন্দকাটি গ্রামের বাকের আলীকে (৪৫)।

পুলিশ সুপার সাজ্জাদুর রহমান জানান, বৃহস্পতিবার নাইমুলসহ অজ্ঞাত আরও তিনজন গোপন সভা করেন। এরপর নাইমুলের মুঠোফোন দিয়ে ভ্যানচালক শাহিনকে ফোন করে বলে, ‘আগামীকাল শুক্রবার কলারোয়ায় একটা ভাড়া আছে, তুই সকালে কেশবপুর বাজারে চলে আসিস।’ এ সময় তাঁরা শাহীনকে সাড়ে ৩০০ টাকা ভাড়াও দেবেন বলে জানান। সকালে তাঁরা একসঙ্গে শাহীনের ভ্যানযোগে কেশবপুর হাসপাতালের সামনে দিয়ে সরসকাটি চৌগাছা হয়ে ধানদিয়া হামজামতলা মোড়ে ফাঁকা জায়গায় পৌঁছে ভ্যান থামাতে বলেন। এরপর তাঁরা ভ্যানটি তাঁদের দিয়ে শাহীনকে বাড়ি ফিরে যেতে বলেন। এ সম্পর্কে কাউকে কিছু বললে শাহীনকে মেরে ফেলার হুমকি দেয়। শাহীন ভ্যান দিতে রাজি না হলে তাঁরা শাহীনের মাথায় আঘাত করে তাকে পাটখেতে ফেলে দেন। পরে তাঁরা চারজন ভ্যানটি নিয়ে ঝাউডাঙ্গার উদ্দেশে রওনা দেন। ঝাউডাঙ্গা বাজারে এসে তাঁরা প্রথমে বাকের আলীর কাছে চারটি ব্যাটারি ৬ হাজার ২৩৬ টাকায় বিক্রি করেন। এরপর তাঁরা কলারোয়া উপজেলার মির্জাপুর মোড়ে গিয়ে আরশাদ পাড়ের কাছে ভ্যানটি ৭ হাজার ৫০০ টাকায় বিক্রি করেন। পরে তাঁরা সবাই টাকা ভাগাভাগি করে কেশবপুর চলে যান।

পুলিশ সুপার আরও জানান, এ ঘটনার পর গত দুই দিনে যশোর পুলিশের সহযোগিতায় সাতক্ষীরার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ইলতুৎ মিশের নেতৃত্বে পুলিশের একটি দল প্রথমে কেশবপুর উপজেলার বাজিতপুর গ্রামের ঘটনার প্রধান সন্দেহভাজন নাইমুল ইসলামের বাড়ি থেকে তাঁকে আটক করে। এরপর তাঁর স্বীকারোক্তি মোতাবেক ভ্যানসহ তাঁর সহযোগী কলারোয়ার আলাইপুর থেকে আরশাদ ও গোবিন্দকাটি থেকে বাকের আলীকে গ্রেপ্তার করা হয়।

প্রেস ব্রিফিংয়ে আরও উপস্থিত ছিলেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (পদোন্নতিপ্রাপ্ত পুলিশ সুপার) ইলতুৎ মিশ, বিশেষ শাখার পরিদর্শক মিজানুর রহমান, পাটকেলঘাটা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রেজাউল ইসলাম প্রমুখ।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST