ঘোষনা:
শিরোনাম :
শঙ্কামুক্ত নন অভিনেত্রী শারমিন আওয়ামী লীগ শাসনামলে দেশের ব্যাপক উন্নয়ন বিবেচনায় নিতে দেশবাসীর প্রতি আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর নীলফামারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের ক্লাস প্রমোশন না দেয়ার প্রতিবাদে মানববন্ধন নীলফামারীতে সড়ক দূর্ঘটনায় আহত ৮ জন নীলফামারীতে পুলিশ সার্ভিস এসোসিয়েশনের শীতবস্ত্র বিতরণ কিশোরগঞ্জে বিদায়ী মাঘে শীতের হানা কিশোরগঞ্জে অপহরণের দায়ে পেশ ইমাম আটক-ছাত্রী উদ্ধার বিপদে পুলিশকে পাশে পেয়ে মানুষ যেন স্বস্তি বোধ করে তা নিশ্চিত করতে হবে : প্রধানমন্ত্রী উন্নয়নের বদলে শেখ হাসিনাকে ভোট উপহার দিন: চাঁপাইনবাবগঞ্জে নানক বিএনপির বক্তব্যে মনে হয় আওয়ামী লীগকে রাজপথে দেখে তারা ভীত : তথ্যমন্ত্রী
তরিকুলের উপর হামলার এক বছরেও মেলেনি সুষ্ঠু বিচার ।

তরিকুলের উপর হামলার এক বছরেও মেলেনি সুষ্ঠু বিচার ।

ফাইল ছবি ।

তানভীর ইসলাম ,রাবি প্রতিনিধি ,

আজ কলঙ্কিত ২রা জুলাই। ২০১৮ সালের এই দিনে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের শান্তিপূর্ণ কর্মসূচীতে হামলা চালায় ছাত্রলীগ। এতে গুরুতর আহত হন বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ, রাবি শাখার যুগ্ম আহ্বায়ক তরিকুল ইসলাম। ন্যাক্কারজনক এই ঘটনার বর্ষপূর্তিতে প্রেস বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে দোষীদের উপযুক্ত শাস্তি নিশ্চিতের দাবি জানিয়েছে সংগঠনটি।
সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ, রাবি শাখার আহ্বায়ক মাসুদ মোন্নাফ স্বাক্ষরিত প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ২০১৮ সালের ২রা জুলাই ক্যাম্পাসে প্রোগ্রামের ঘোষণা দিলে রাবি ছাত্রলীগের সভাপতি গোলাম কিবরিয়া ও সাধারণ সম্পাদক ফয়সাল আহমেদ রুনুর নেতৃত্বে ছাত্রলীগ কর্মীরা আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা করে। এতে ২০ জনেরও বেশি শিক্ষার্থী আহত হন। হাতুড়ি, লাঠি, পাইপ দিয়ে পিটিয়ে গুরুতর আহত করা হয় তরিকুলকে। পা দিয়ে লাথি মেরে থেতলে দেয়া হয় তার মাথা। সেদিনের লোমহর্ষক হামলার চিত্র দেশি-বিদেশি গণমাধ্যম গুরুত্বের সাথে সম্প্রচার করে। ভিডিও ফুটেজে হামলাকারীদের শনাক্ত করা সম্ভব হয়।
তৎক্ষণাৎ তরিকুলকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হলেও সন্ত্রাসীদের চাপের মুখে চিকিৎসা না করেই তরিকুলকে বের করে দেয়া হয়। পরের দিন শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের মুখে তরিকুলের চিকিৎসার ব্যয়ভার বহন, হামলাকারীদের শাস্তিসহ নিরাপদ ক্যাম্পাসের প্রতিশ্রুতি দেন প্রক্টর মহোদয়। কিন্তু শিক্ষকবৃন্দ, বিভিন্ন ছাত্র সংগঠনের লিখিত অভিযোগের পরও বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন দুর্বৃত্তদের ব্যাপারে নীরব ভূমিকা পালন করে।
হামলাকারী সন্ত্রাসীদের দ্রুত শাস্তির আওতায় নিয়ে আসার বিষয়টি উল্লেখ করে বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, ঘটনার একবছর পার হলেও  সন্ত্রাসীরা এখনও ক্যাম্পাসে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে। এতে প্রশাসনের একচোখা নীতিসহ স্পষ্ট দূর্বলতা, শিক্ষার্থীদের প্রতি অনীহা ও রাজনৈতিক লেজুড়বৃত্তির দিকটি স্পষ্ট। তরিকুলের উপর সশস্ত্র হাতুড়ি হামলায় জড়িতদের সর্বোচ্চ দৃষ্টান্তমূলক শাস্তিসহ কোন শিক্ষার্থীর যেন তরিকুলের মত অবস্থা না হয়, লেজুড়বৃত্তিক ধারা যেন শিক্ষার্থীদের জীবন নিয়ে রাজনীতি করার মাধ্যমে প্রকাশিত না হয় সে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য প্রশাসনের কাছে জোর দাবি জানাই।
এদিকে তরিকুল ইসলামের উপর অতর্কিত সন্ত্রাসী হামলার সুষ্ঠু তদন্ত ও ন্যায়বিচারের দাবিতে সন্ধ্যায় বিশ্ববিদ্যালয়ের মূল ফটকের সামনে মোমবাতি প্রজ্জ্বলন কর্মসূচি পালন করেছে সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ, রাবি শাখা।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST