ঘোষনা:
শিরোনাম :
নীলফামারীতে অগ্নিকান্ডে ৫ পরিবারের ১২ টি ঘর পুড়ে ছাঁই। ফেনীতে বিএনপি ছাত্রলীগ ও পুলিশের ত্রিমুখী সংঘর্ষে আহত-২০ চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে এয়ারফোনে গান শুনে জীবন গেলো রেললাইনে  সরকার দেশের মানুষের পেটে লাথি মারছে,এবি পার্টির আহবায়ক সোলায়মান বঙ্গোপসাগরে লঘুচাপে, দেশের ৪ বন্দরে ৩ নম্বর সংকেত অনিরাপদ আশ্রয় শেখ কামাল জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ পুরস্কার পেয়েছেন নীলফামারীর মেয়ে দিয়া নীলফামারীতে চিকিৎসক ও কর্মকর্তা-কর্মচারীকে লাঞ্চনার প্রতিবাদে মানববন্ধন ও স্মারক লিপি প্রদান। নীলফামারীতে জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধিতে চড়ম ভোগান্তিতে সাধারণ মানুষ নীলফামারীর আর্চার দিয়া পাচ্ছেন,শেখ কামাল জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ পুরস্কার
পাবনার বেসরকারি ক্লিনিকে জোড়া লাগানো যমজ দুই ছেলে নবজাতকের জন্ম । অর্থ সংকটের কারনে ঢাকা নেওয়া হয়নি ।

পাবনার বেসরকারি ক্লিনিকে জোড়া লাগানো যমজ দুই ছেলে নবজাতকের জন্ম । অর্থ সংকটের কারনে ঢাকা নেওয়া হয়নি ।

পাবনা প্রতিনিধি,

পাবনার একটি বেসরকারি ক্লিনিকে জোড়া লাগানো যমজ দুই ছেলে নবজাতকের জন্ম হয়েছে। তাদের শরীর আলাদা হলেও পেটের দিকে জোড়া লাগানো আছে। নবজাতক দুইটির নাম রাখা হয়েছে রাজা ও বাদশা। রোববার রাতে দুই নবজাতক পাবনা জেনারেল হাসপাতালে জন্ম হয়েছে।

চিকিৎসকেরা বলেছেন, দুই নবজাতকের উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা নেওয়া প্রয়োজন। তবে অর্থ সংকটের জন্য আজ মঙ্গলবার পর্যন্ত সেটা সম্ভব হয়নি।

ক্লিনিক কর্তৃপক্ষ ও নবজাতকের পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, এই জোড়া লাগানো যমজের বাবা-মা জেলার সুজানগর উপজেলার কাদুয়া গ্রামের ফিরোজ শেখ (২৭) ও সনিয়া খাতুন (২১)। বাবা ফিরোজ শেখ দিনমজুর। সনিয়া খাতুন গৃহিণী। রোববার সন্ধ্যায় স্ত্রীর প্রসব ব্যথা শুরু হলে তাকে জেলা শহরের একটি বেসরকারি ক্লিনিকে ভর্তি করেন ফিরোজ। রাতে সেখানেই এই জোড়া লাগানো যমজ নবজাতকের জন্ম হয়। তবে জন্মের পর থেকেই নবজাতক দুইটির শারীরিক ত্রুটি থাকায় চিকিৎসকেরা উন্নত চিকিৎসার পরামর্শ দেন। তবে দরিদ্র বাবার পক্ষে সেটা সম্ভব হয়নি। কোনো উপায় না পেয়ে ফিরোজ নবজাতক দুটিকে পাবনা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করেন। নবজাতক দুটির মা ক্লিনিকেই আছেন।

পাবনা জেনারেল হাসপাতালের শিশুরোগ বিশেষজ্ঞ নীতিশ কুমার বলেন, প্রাথমিকভাবে দেখে নবজাতক দুটিকে সুস্থ মনে হয়েছে। তবে তাদের দ্রুত ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল অথবা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে নিয়ে কিছু পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা প্রয়োজন। এসব পরীক্ষার মাধ্যমে দেখতে হবে, শিশুদের হার্ট বা শরীরের অন্য অঙ্গগুলো পৃথক আছে কিনা। যদি সব ঠিকঠাক থাকে তাহলে অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে তাদের আলাদা করা যাবে।

বাবা ফিরোজ শেখ বলেন, চিকিৎসকেরা দুই দিন আগেই শিশুদের ঢাকায় নিয়ে যেতে বলেছেন। তবে টাকার অভাবে তিনি ঢাকায় যেতে পারছেন না। আত্মীয়স্বজনের কাছ থেকে ধার দেনা করে হাসপাতাল ও ক্লিনিকের খরচ চালিয়েছেন। এখন কী করবেন কিছু বুঝতে পারছেন না।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST