ঘোষনা:
শিরোনাম :
রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের করোনা ওয়ার্ডে মৃত্যু ৩ চট্টগ্রামে করোনা আক্রান্ত ৯৮৯ জন,সংক্রমণের হার ৩৯ দশমিক ৯৫ বিজিবি ঠাকুরগাঁও সেক্টর আন্তঃ ব্যাটালিয়ন ভলিবল প্রতিযোগিতা-২০২২ এর উদ্বোধন নীলফামারীতে গ্রামের বিভিন্ন রাস্তাঘাট উন্নয়নে মাটি কাটার কাজ করছে,১৩ হাজার ৫৫১ জন শ্রমিক নীলফামারীতে অতি দরিদ্র কর্মসংস্থান কর্মসূচীর শ্রমিক নিয়োগে গণমাধ্যমে প্রকাশের প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন করোনার কারণে সারাদেশে নদী ও খাল-নালায় অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ বন্ধ,পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী চট্টগ্রামে একদিনে করোনায় হাজার পেরিয়ে শনাক্ত নীলফামারীর সৈয়দপুরে কিশোরীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার ডিমলায় গাড়ী চালক শ্রমিকদের মাস্ক পড়তে সচেতনতামুলক মতবিনিময় নীলফামারীতে ট্রাকের চাকায় পিষ্টে,নারী পোশাক কর্মীর মৃত্যু
যেসব জায়গায় আমাদের লিকেজ আছে ,সেটা বন্ধ করতে সবার সহযোগিতা চাই ,রেলওয়ের নতুন মহাপরিচালক মো. শামছুজ্জামান ।

যেসব জায়গায় আমাদের লিকেজ আছে ,সেটা বন্ধ করতে সবার সহযোগিতা চাই ,রেলওয়ের নতুন মহাপরিচালক মো. শামছুজ্জামান ।

রেলওয়ের নতুন মহাপরিচালক মো. শামছুজ্জামান, ছবি: গ্রাম পোষ্ট

ঢাকা:
রেলে সরকারের উন্নয়নের সুফল জনগণের কাছে পৌঁছে দিতে চান নতুন মহাপরিচালক (ডিজি) মো. শামসুজ্জামান। তিনি বলেন, রেলে অনেকগুলো মেগা প্রকল্প আছে। কিছু প্রকল্প ইতোমধ্যে বাস্তবায়িত হয়েছে, কিছু প্রকল্প চলমান আছে। আমার উদ্দেশ্য, সেসব প্রকল্প সুন্দরভাবে শেষ করা। সে সঙ্গে রোলিং স্টকের অনেকগুলো প্রকল্প চলমান আছে। আমার দায়িত্ব হচ্ছে, এ উন্নয়নের সুফল জনগণের কাছে ভালোভাবে পৌঁছে দেওয়া। বৃহস্পতিবার (৪ জুলাই) বাংলাদেশ রেলওয়ের মহাপরিচালকের দায়িত্বগ্রহণ শেষে গ্রাম পোষ্টকে একথা বলেন তিনি।

রেলের এত উন্নয়ন সত্ত্বেও সেবার মান বাড়ছে না কেন? এ প্রশ্নের জবাবে মো. শামসুজ্জামান বলেন, রেলের সেবার মান বাড়েনি, সেটা সত্য। যেসব জায়গায় আমাদের লিকেজ আছে, সেটা টিকিট হতে পারে, রক্ষণাবেক্ষণ, কালোবাজারি বা চুরিও হতে পারে। সেটা বন্ধ করতে সবার সহযোগিতা চাই।

তিনি বলেন, লিকেজগুলো বন্ধ করে ঠিকমতো যদি রেল পরিচালনা করতে পারি, তাহলে জনগণ পরিপূর্ণ সেবা পাবে।

রেলের নতুন ডিজি বলেন, আমাদের নিরাপত্তা বাহিনী ঠিকমতো কাজ করে না, সুইপার যারা আছে, তারাও কাজ করে না, ফাঁকি দেয়, সেখানেও লিকেজ আছে। সেগুলো বন্ধ করতে হবে।

তিনি বলেন, আমি প্রায় সাড়ে ৩৪ বছর রেলওয়েতে চাকরি করেছি। অনেকেই আছে বিদেশে গেছে, বিভিন্ন প্রকল্পে কাজ করেছে, কিন্তু কাজে আমার কোনো ফাঁক নেই। চলমান প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে এতো বছর পার করেছি। আমি জানি, কোথায় কোথায় হাত দিতে হবে। যেসব জায়গায় হাত দেওয়া দরকার, সব জায়গাতেই হাত দেবো।

মো. শামসুজ্জামান বলেন, রেলওয়ে একটি ইন্ডাস্ট্রির মতো, সারাদিন-রাত চলে। এটা চালানোর জন্য আমাদের সবসময় পরিকল্পনা নিতে হয়। সর্বোত্তমভাবে চালাতে গেলে আমাদের ভালো পরিকল্পনা নিতে হবে। সে পরিকল্পনার জায়গায় আমাদের অনেক জায়গায় সমন্বয় করতে হয়। রেলওয়ের এখনো অনেক সমস্যা আছে। সেসব সমস্যা থেকে উত্তোরণ করতে হবে।

তিনি বলেন, একটি সমাজ রুপান্তর প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে যায়। বাংলাদেশও এ প্রক্রিয়ার মধ্যে আছে। আমি মনে করি, এ রুপান্তর প্রক্রিয়ায় আমাদের অনেক জায়গায় জবাবদিহিতা আনতে হবে। যদি এটা করতে পারি, জবাবদিহিতা ও উন্নয়নের সংমিশ্রণ ঘটাতে পারি, তাহলে জনগণের সেবা নিশ্চিত হবে। আমাদের উন্নয়ন অনেক হয়েছে, অবকাঠামোগত ও রোলিং, সেটা অপারেট করে জনগণের কাছে পৌঁছাতে হবে।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST