ঘোষনা:
শিরোনাম :
নীলফামারীতে বোরো ধান ও চাল সংগ্রহের শুভ উদ্বোধন করেছে জেলা প্রশাসক নীলফামারীতে অসহায় ভিডিপি সদস্য ও সদস্যাদের মাঝে ঈদ উপহার সামগ্রী বিতরণ চট্টগ্রামে মিতু হত্যায় সাবেক এসপিকে জিঙ্গাসাবাদ শেষে গ্রেফতার করেছে পিবিআই। ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে দুই মাইক্রোবাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত-১, আহত-৩। খেটে খাওয়া এবং কর্মহীন মানুষের কল্যানে সহায়তা করে যাচ্ছে সরকার রেলপথ মন্ত্রী । নীলফামারীর ডোমারে মাইক্রোবাস ও মটরসাইকেলের সংঘর্ষে,নিহত ১। নীলফামারীতে সমাজের প্রবীণ ও অসচ্ছল প্রবীণ ব্যাক্তিদের মাঝে ঈদ উপহার নীলফামারীতে ঈদ-উল-ফিতরের নামাজ সকাল সাড়ে সাতটায় কেন্দ্রীয় বড় মসজিদে নীলফামারীতে বোরো ধানের বাম্পার ফলন,কৃষকের মুখে হাসির ঝলক। আগামীকাল চাঁদ দেখা গেলে বৃহস্পতিবার ঈদ
গাইবান্ধার রামচন্দ্রপুর পল্লী স্বাস্থ্য কেন্দ্র নানা সমস্যায় , চিকিৎসা সুবিধা থেকে বঞ্চিত সাধারন মানুষ। 

গাইবান্ধার রামচন্দ্রপুর পল্লী স্বাস্থ্য কেন্দ্র নানা সমস্যায় , চিকিৎসা সুবিধা থেকে বঞ্চিত সাধারন মানুষ। 

কামরুল হাসান ,গাইবান্ধা  ,

জনবল সংকট ও চিকিৎসক না থাকায় গাইবান্ধা সদর উপজেলার বালুয়া বাজার সংলগ্ন রামচন্দ্রপুর পল্লী স্বাস্থ্য কেন্দ্রটি নানা সমস্যা কবলিত হয়ে পড়েছে। ফলে ওই স্বাস্থ্য কেন্দ্র সংশ্লিষ্ট এলাকার দরিদ্র অসহায় মানুষ চিকিৎসা সুবিধা থেকে বঞ্চিত হয়ে দুর্ভোগ পোহাচ্ছে। প্রয়োজনীয় সংরক্ষণ ও যত্নের অভাবে স্বাস্থ্য কেন্দ্রের বিশাল অবকাঠামো ও আবাসিক ভবনগুলোর বেহাল অবস্থা।


জানা গেছে, রামন্দ্রপুর ইউনিয়নের পার্বর্তীপুর মৌজায় ৬ একর জমির উপর পল্লীর অসহায় মানুষদের চিকিৎসাদানের লক্ষ্যে  পাকিস্তান আমলে একটি প্রকল্পের আওতায় ১০ বেডের এই হাসপাতালটি স্থাপন করা হয়। সে সময় ওই হাসপাতালে দু’জন চিকিৎসকসহ বিভিন্ন পদে ২৩ জন কর্মকর্তা-কর্মচারী নিয়োগদান করা হয়। স্বাধীনতার পর থেকে এ হাসপাতালটিতে স্বাস্থ্য বিভাগের নজর কমতে থাকে। ফলে ক্রমান্বয়ে হাসপাতালটি থেকে রোগীরা চিকিৎসা সুবিধা থেকে বঞ্চিত হতে শুরু করে। ঢিমে তালে চলতে থাকে এর কার্যক্রম। ২০০৯-২০১০ অর্থ বছর পর্যন্ত হাসপাতালে যথারীতি বেড চালু থাকলেও চিকিৎসকের অভাবে এরপর অভ্যন্তরীণ বিভাগ বন্ধ করে দেয়া হয়। ফলে রোগী ভর্তি বন্ধ হয়ে যায়। বেডগুলো এখন শূন্য অবস্থায় পড়ে রয়েছে। উল্লেখ্য, ইতোপূর্বে পলাশবাড়ি ও গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার একাংশসহ সদর উপজেলার হাজার হাজার মানুষ ওই হাসপাতালটিতে জরুরী চিকিৎসার ব্যাপারে নির্ভরশীল ছিল। এখন তারা চিকিৎসা সুবিধা থেকে বঞ্চিত। ১০ বেডের এই হাসপাতালটিতে এখন কোন রোগী ভর্তি হয় না। এখানে এখন শুধু বহিঃ র্বিভাগে চিকিৎসা দেয়া হলেও অপ্রয়োজনীয় অনেক স্টাফ এখনও রয়েছে বহাল তবিয়তে।
সরেজমিনে পরিদর্শনে জানা যায়, এই পল্লী স্বাস্থ্য কেন্দ্রটিতে দু’জন মেডিকেল অফিসারসহ পদ রয়েছে ১৯টি। কিন্তু ২ জন মেডিকেল অফিসারের পদই দীর্ঘদিন ধরে শূন্য রয়েছে। বর্তমানে একজন উপ-সহকারি কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার এবং একজন ফার্মাসিস্ট এই স্বাস্থ্য কেন্দ্রটির বহিঃর্বিভাগে আগত রোগীদের চিকিৎসা প্রদান ও প্রয়োজনীয় প্রেসক্রিপশনসহ ওষুধ দিচ্ছেন। তদুপরি এ দু’জন কর্মকর্তাও নিয়মিত স্বাস্থ্য কেন্দ্রে উপস্থি’ত থাকেন না। পরিদর্শনকালে দেখা গেছে, তাদের অনুপস্থি’তিতে ওয়ার্ড বয় ও অফিস সহায়ক চিকিৎসা প্রদানের দায়িত্ব পালন করে থাকেন।
জানা গেছে, এই স্বাস্থ্য কেন্দ্রে বাকি ১৭টি পদের মধ্যে গাইবান্ধা সদর হাসপাতালে ডেপুটেশনে দেয়া হয়েছে ১২ জনকে। শুধুমাত্র ৫ জন মাত্র এই স্বাস্থ্য কেন্দ্রে কর্মরত রয়েছেন। তারা হলেন উপ-সহকারি কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার আমিনুল ইসলাম, একজন ফার্মাসিস্ট মাহবুবর রহমান, অফিস সহায়ক আফরিন নাহার, ওয়ার্ডবয় সাজেদা খাতুন এবং সুইপার ময়না। বাকি ১২ জনের মধ্যে চারজন সিনিয়র স্টাফ নার্স ও দুই সহকারি নার্স ডেপুটেশনে কর্মরত রয়েছেন গাইবান্ধা সদর আধুনিক হাসপাতালে। তারা হচ্ছেন সহিদা খাতুন, সুরাইয়া বেগম ও শাহিনা সুলতানা এবং সহকারি নার্স আনোয়ারা বেগম ও আব্দুস সামাদ। তবে নাজমা বেগম জানিয়েছেন তিনি এখনও রামচন্দ্রপুর স্বাস্থ্য কেন্দ্রেই কর্মরত অবস্থায় মিডওয়াইফ ট্রেনিংয়ে ইন্দোনেশিয়ায় আছেন।  এছাড়া অপর ছয়জন ল্যাব টেকনিশিয়ান ফাতেমাতুজ জহুরা, অফিস সহায়ক কোহিনুর বেগম ও একরামুল হক, ওয়ার্ডবয় এরশাদ হোসেন, কুক হুসনে আরা ও সুইপার শ্রীমতি মালাকেও গাইবান্ধা সদর আধুনিক হাসপাতালে ডেপুটেশনে দেয়া হয়েছে।
বিশাল আয়তন জুড়ে প্রতিষ্ঠিত রামচন্দ্রপুরের স্বাস্থ্য কেন্দ্রটিতে আশেপাশের পল্লী এলাকার দরিদ্র মানুষদের মধ্যে এখনও প্রতিদিন গড়ে  ২০০  থেকে ৩০০ জন রোগী বহিঃর্বিভাগে চিকিৎসা সেবা নিতে আসেন। চিকিৎসকসহ, প্রয়োজনীয় জনবল সংকট থাকায় এই স্বাস্থ্য কেন্দ্রে আগত রোগীরা চিকিৎসা পাচ্ছেন না এবং প্রয়োজনীয় ওষুধপত্র তাদেরকে দেয়া হচ্ছে না।
তদুপরি এই হাসপাতালটিতে এখন জরাজীর্ণ অবস্থা বিরাজ করছে। হাসপাতালের মাঠে চড়ছে গরু, ছাগল ও ভেড়া। পার্শ্ববর্তী লোকজন মাঠে ধান, খড় এবং গবরের ঘুটে শুকাচ্ছে। ফলে বর্তমানে এই চিকিৎসা কেন্দ্রটির একেবারেই বেহাল অবস্থা। অপরদিকে হাসপাতালের স্টাফ কোয়ার্টারসহ অন্যান্য অবকাঠামো অযত্ন অবহেলায় পড়ে থাকায় সেগুলোর এখন জরাজীর্ণ দশা। অনেক মূল্যবান জিনিসপত্র চুরি হয়ে যাচ্ছে। তাছাড়া প্রায় জন শূন্য অবস্থার কারণে রাতে স্বাস্থ্য কেন্দ্রটিতে সমাজ বিরোধী লোকজনের আড্ডাখানায় পরিণত হয়। অসামাজিক কার্যকলাপের অভিযোগও রয়েছে প্রচুর।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST