ঘোষনা:
শিরোনাম :
হিট স্ট্রোকের আগে কি কি,উপসর্গ হতে পারে সাতক্ষীরায় প্রেমিকার বাড়ীতে নির্মম নির্যাতনের শিকার টেক্সটাইলস ইঞ্জিনিয়ার রংপুরে ক্যামেরায় কথা বলছে, গ্রামীন জনপদের ফরিদপুরে বাস পিক-আপ মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ১২, আশঙ্কাজনক ৩ পহেলা বৈশাখে বর্ণিল উৎসবে মেতেছে নীলফামারী সাতক্ষীরায় ভিডিও কলে রেখে ঘরে গলায় ফাঁস দিয়ে বিউটিশিয়ানের আত্মহত্যা নীলফামারীতে ঘোড়ার প্রতি পাকে,পরিবারে জীবনের গল্পটা কস্টের নীলফামারীতে কর্মসংস্থান কর্মসূচি প্রকল্পের কাজের উদ্বোধন ঈদে বাড়ি ফেরা হলো না, শিশু সন্তান সহ পরিবারের  ঈদে ৫ দিন বন্ধের পরে, সাতক্ষীরা স্থলবন্দরে আমদানী-রপ্তানী শুরু, কর্মচাঞ্চল্য
নীলফামারীতে ১০০ টাকায় পুলিশের চাকরি পেল ১২৯ জন।

নীলফামারীতে ১০০ টাকায় পুলিশের চাকরি পেল ১২৯ জন।

নীলফামারী প্রতিনিধি ,
নীলফামারী জেলা পুলিশের কড়া নজর দাড়ির মধ্য দিয়ে ঘুষ ও সুপারিশ মুক্ত ১২৯ জনকে ১০০ টাকায় চাকরি দিল নীলফামারী জেলা পুলিশ। আজ মঙ্গলবার (৯ জুলাই) নীলফামারী পুলিশ সুপারের সম্মেলন কক্ষে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময়ের সময় এ কথা বলেন পুলিশ সুপার আশরাফ হোসেন পিপিএম। তিনি জানান নীলফামারীতে মোট ১২৯ জনকে চাকরি প্রদান করা হয়। এদের মধ্যে কৃষকের সন্তান মুক্তিযোদ্ধা কোটায় পুরুষ ৮ জন ও সাধারন ৩৮ জন ও নারী ৩ জন, প্রার্থী নিজে টিউশনি/ইপিজেড/অন্যভাবে আয়ের উপর চালিত ৩ জন, এতিম কোটায় ১ জন, আনসার সদস্য ১ জন, বাবা মৃত পুরুষ ৩ জন ও নারী ৩ জন, বাবা সরকারি চাকরি করে এমন পুরুষ ৪ জন ও নারী ৩, বাবা মসজিদের ইমাম/রাজমিস্ত্রি/ লাইট মেকার/ পানের দোকানি এমন পুরুষ ৩ জন ও নারী ৪ জন, বিভিন্ন ব্যাবসা/পল্লি চিকিৎসক পুরুষ ৮ জন, বসতবাড়ি ছাড়া কোনো সম্পদ নাই এমন মুক্তযোদ্ধা কোটায় পুরুষ ১২ জন ও সাধারন ৪ জন, বাবা দিন মজুর/ কুলি বা অন্যের বাড়ীতে কাজ করে এমন মুক্তিযোদ্ধা কোটায় পুরুষ ১ জন ও সাধারন ৫ জন, বাবা ভ্যান বা অটো চালক এমন মুক্তিযোদ্ধা কোটায় ২ জন ও সাধারন ১ জন এবং পুরিশের চাকরি করে/ পিআরএল গমন করেছে এমন পুলিশের সন্তান পুরুষ ৮ জন ও নারী ২ জন। পুলিশের চাকরী প্রাপ্ত সুমন বলেন, “আমি টিউশনি করে চলি। আমরা তিন ভাই দুই বোন। এভাবে যে ১০০ টাকায় চাকরিটা পাবো কল্পনাই করিনি। কতই না শোনা যেত টাকা ছাড়া চাকরির হয় না। কিন্তু আমি গর্ব করে বলতে পারি আমি চাকরির জন্য একটি টাকাও কোথাও খরচ করি নি । আমি ১০০ টাকায় চাকরি পেয়েছি।” পুলিশের চাকরী প্রাপ্ত মাসুদা বলেন,“ বাবার কাছ থেকে টাকা নিয়ে ট্রেজারি চালান ফরম সংগ্রহ করে সোনালী ব্যাংকের মাধ্যমে সরকারি খাতে ১’শ টাকা জমা করি। এরপর ২২জুন শারীরিক পরীক্ষার দিনে পুলিশ লাইন্সে গিয়ে দাড়িয়ে প্রথম স্তরে সফলতা পাই। এরপর লিখিত পরীক্ষা এবং সাক্ষাৎকার শেষে আমি চাকরির জন্য নির্বাচিত হই।” মতবিনিময় সভায় পুলিশ সুপার আশরাফ হোসেন পিপিএম বলেন, “ ১০০ টাকায় আমরা চাকরি দিয়েছি। এজন্য কেউ যেন দালালের খপ্পরে পড়তে না হয় সেজন্য বিভিন্ন নাটকের আয়োজন করেছি, মাইকের মাধ্যমে জেলার মানুষকে সচেতন করেছি, বিভিন্ন সোশাল মিডিয়াতে প্রচার চালিয়েছি, সচেতনতা এড়াতে হ্যান্ডবিল প্রচার করেছি। আমরা স্বচ্ছভাবে ঘুষ ব্যতিত নিয়োগ দিয়েছি। তিনি আরো বলেন, “ একজন প্রার্থী সব বিষয়ে ফিট ছিল তাকে নির্বাচিত করা হয়েছিল। কিন্তু পরে সে মধ্যে নেশাগ্রস্ত চিহ্নিত হওয়ায় আর চাকরি পায় নি।”





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST