ঘোষনা:
শিরোনাম :
পঞ্চগড়ে পুকুরের পানিতে ডুবে এক শিশুর মৃত্যু। ডিমলায় তিস্তার চরে ভুট্টার বাম্পার ফলন। সাতক্ষীরায় করোনায় আক্রান্ত ও উপসর্গ নিয়ে মেডিকেল হাসপাতালে নারীসহ দুই জনের মৃত্যু। বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির উপজেলা শাখা গঠনের আলোচনা সভা । নীলফামারীতে চাঁদা দিতে না পারায়,ঘরে অগ্নিসংযোগ জোড়পূর্বক মাছ চুরি। সৈয়দপুরের তিন শিক্ষার্থীর ভর্তি অনিশ্চিত মেডিকেল কলেজে । করোনা আক্রান্ত জননেতা বীর মুক্তিযোদ্ধা জয়নাল আবেদীন অনেকটা সুস্থ্য বোধ করছেন। লকডাউনে ১০টা -০১ টা পর্যস্ত খোলা থাকবে ব্যাংক সেবা। চাঁদ দেখা গেছে, বুধবার থেকে পবিত্র রমজান শুরু। শঙ্কিত হওয়ার কোনো কারণ নেই, সরকার সবসময় পাশে থাকবে;প্রধানমন্ত্রী।
আগে টাকা দিলে,আগে পোল। না দিলে অপেক্ষা—- ।নীলফামারী পল্লী বিদুৎতায়ন বোর্ডের লাইন নির্মাণে টাকা নেওয়ার অভিযোগ।

আগে টাকা দিলে,আগে পোল। না দিলে অপেক্ষা—- ।নীলফামারী পল্লী বিদুৎতায়ন বোর্ডের লাইন নির্মাণে টাকা নেওয়ার অভিযোগ।

নূর সিদ্দিকী, বিশেষ প্রতিবেদক ॥
ঘরে ঘরে বিদুৎ পৌনছে দেওয়ার লক্ষে প্রধানমন্ত্রীর ঘোষনা বাস্তবায়নে নীলফামারী জেলায় পল্লী বিদুৎতের কিশোরগঞ্জ ও সদর উপজেলাকে শতভাগ বিদুৎ ঘোষনার পর এবার জলঢাকা,ডোমার,ডিমলা উপজেলায় প্রত্যান্ত অঞ্চলে প্রান্তিক জনগোষ্টির মাঝে শতভাগ বিদুৎ পৌছে দেওয়ার লক্ষ্যে পল্লী বিদুৎতায়ন বোর্ডের অধিনে গ্রাম,পাড়া,মহল্লায় তিনটি প্রকল্পের মাধ্যমে লাইন নির্মাণের কাজ চলছে দ্রুত গতিতে।লাইন নির্মান শেষ হওয়ার পরে,বিদুৎ সংযোগ দিতে দিনরাত নিরলস কাজ করছে পল্লী বিদুৎ সমিতি। ৪৫০ টাকায় বিদুৎ সংযোগ,এমন মাইকিং এলাকায় হটাৎ হটাৎ শুনতে পায় গ্রাহকরা।


জলঢাকা,ডোমার,ডিমলা উপজেলায় পল্লী বিদুৎতায়ন বোর্ডের নীলফামারী জেলার নির্বাহী প্রকৌশলী নাফিউল ইসলামের তত্বাবধানে ডি,এন,ই,(১.৫)পনের লক্ষ গ্রাহক সংযোগ প্রকল্প,ইউ,আর,আই,ডি,এ প্রকল্পের লাইন নির্মাণ এগিয়ে চলছে বিদুৎ গতিতে।তেমনি বিদুৎ গতিতে গ্রাহকদের কাছ থেকে প্রতিটি গ্রাহকের বাড়ী থেকে পনের থেকে বিশ হাজার টাকাসহ তিন উপজেলায় ৩ কোটি টাকা তুলছে দালালরা,উর্ধতন কর্তাদের টাকা দিলে আগে পোল পুতে লাইন নির্মান হবে এই চুক্তিতে দালালরা গ্রাহকের কাছে টাকা নিয়ে থাকে,এমন অভিযোগ গ্রাহকদের।গ্রাহকরা বলছে,দালাল ছাড়াও পল্লী বিদুৎতায়ন বোর্ডের লাইন নির্মাণের নিয়োগকৃত ঠিকাদাররা পোল নিয়ে যাওয়া,তারসহ বিভিন্ন মালামাল সরবরাহে গ্রাহকের কাছ থেকে দফায় দফায় বিভিন্নভাবে টাকা নিয়েছেন বলে অসংখ্য গ্রাহক অভিযোগ করেন।এখানে শেষ নয়,মালামাল এলাকায় নিয়ে যাওয়ার পর গ্রাহকদের টাকায় ঠিকাদারদের লোকজনের জামাই আদরে রাখতে হয়।নইলে পোল না পুতে চলে যাওয়ার হুমকি দেয় তারা।এসব বিষয় গ্রাহকসহ বেশ কিছু এলাকার মান্যগণ্য ব্যাক্তি নির্বাহী প্রকৌশলীকে একাধীকবার বলার পরেও তিনি কোন পদক্ষেপ গ্রহণ করেননি বরং উল্টো কাজ হয়েছে।যে দালাল যত বেশী বেশী টাকা গ্রাহকের কাছে নিয়ে অদৃশ্য শক্তিকে দিয়েছে,তার লাইন তত দ্রুত নির্মাণ হয়ে বিদুৎ সংযোগ পেয়েছে।ঠাকুর ঘরে কে রে আমি কলা খাইনা। তবে এলকায় এত টাকা আর এত নতুন নতুন দালাল সৃষ্টির উদেশ্য কি? ডিএনই প্রকল্পের ১৫১ লডের মাথায় ৪টি পোল বিশেষভাবে ঠিকাদারকে দিয়ে লাইন নির্মাণ হয়েছে।গ্রাহকরা বলছে দীর্ঘদিন ওই লডের লোক জনের সাথে ছিলাম কিন্তু কোন কাজ হয় নাই।(প্রয়োজনে নাম প্রকাশ)গ্রাহক বলেন,চাপানির জামির উদ্দিনের ছেলে জাহাঙ্গীরকে ধরে চার পোলে ৩০ হাজার টাকা দিয়েছি ৭টি বাড়ী।পোল এসেছে লাইন নির্মাণ হয়েছে এখন মিটার দিয়ে বিদুৎ সংযোগ বাকি। উর্ধতন কর্তৃপক্ষের অনুমোদন ছাড়া কিভাবে ডিএনই প্রকল্পের ১৫১ লডের মাথায় একই প্রকল্পে কোন স্বার্থে বিশেষ ব্যাবস্থায় লাইন নির্মাণ করা হয়েছে।
পল্লী বিদুতের লাইন নির্মাণে গ্রাহকের ভোগান্তির কথা নিয়ে আরও থাকছে আগামীতে ।
চলবে—-





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST