ঘোষনা:
শিরোনাম :
শঙ্কামুক্ত নন অভিনেত্রী শারমিন আওয়ামী লীগ শাসনামলে দেশের ব্যাপক উন্নয়ন বিবেচনায় নিতে দেশবাসীর প্রতি আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর নীলফামারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের ক্লাস প্রমোশন না দেয়ার প্রতিবাদে মানববন্ধন নীলফামারীতে সড়ক দূর্ঘটনায় আহত ৮ জন নীলফামারীতে পুলিশ সার্ভিস এসোসিয়েশনের শীতবস্ত্র বিতরণ কিশোরগঞ্জে বিদায়ী মাঘে শীতের হানা কিশোরগঞ্জে অপহরণের দায়ে পেশ ইমাম আটক-ছাত্রী উদ্ধার বিপদে পুলিশকে পাশে পেয়ে মানুষ যেন স্বস্তি বোধ করে তা নিশ্চিত করতে হবে : প্রধানমন্ত্রী উন্নয়নের বদলে শেখ হাসিনাকে ভোট উপহার দিন: চাঁপাইনবাবগঞ্জে নানক বিএনপির বক্তব্যে মনে হয় আওয়ামী লীগকে রাজপথে দেখে তারা ভীত : তথ্যমন্ত্রী
গাইবান্ধার চার উপজেলায় ১১৩টি গ্রাম বন্যা কবলিত, ৪৪ হাজার মানুষ পানিবন্দী

গাইবান্ধার চার উপজেলায় ১১৩টি গ্রাম বন্যা কবলিত, ৪৪ হাজার মানুষ পানিবন্দী

গাইবান্ধার চার উপজেলায় ১১৩টি গ্রাম বন্যা কবলিত, ৪৪ হাজার মানুষ পানিবন্দী
কামরুল হাসান,গাইবান্ধা প্রতিনিধি ,

গাইবান্ধা জেলায় তিস্তা, ব্রহ্মপুত্র, যমুনা, ঘাঘট ও করতোয়া নদীর পানি অব্যাহত থাকায় জেলার সুন্দরগঞ্জ, ফুলছড়ি, সাঘাটা ও সদর উপজেলার ১১৩টি গ্রামের নতুন নতুন এলাকা বন্যা কবলিত হয়ে পড়েছে। এতে জেলার সার্বিক বন্যা পরিস্থিতির আরও অবনতি হয়েছে। ফলে ওইসব এলাকার বিভিন্ন ফসলী জমি ও রাস্তা-ঘাট তলিয়ে গেছে এবং বন্যা কবলিত এলাকার যোগাযোগ ব্যবস্থা বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে।

এদিকে ব্রহ্মপুত্র নদীর পানির তোড়ে সদর উপজেলার গিদারী ইউনিয়নের বাগুড়িয়া এলাকায় রবিবার (১৪ জুলাই) সকালে বাঁধের ৫০ মিটার অংশ ধ্বসে গেছে। ফলে আকস্মিক বন্যায় প্রায় ৭ শতাধিক বাড়িঘর ও ওইসব এলাকার ফসল পানিতে তলিয়ে গেছে। এছাড়া সুন্দরগঞ্জ উপজেলার কাপাসিয়া ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ড ও ভাটি বোচাগাড়ি ইউনিয়নের পোড়ারচর এলাকার প্রায় ৪শ’ পরিবার আকস্মিকভাবে পানিবন্দী হয়ে পড়েছে। এদের মধ্যে বোচাগাড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বন্যা কবলিত এলাকার ৩৫টি পরিবার আশ্রয় নিয়েছে।

জেলা প্রশাসন সুত্রে জানা গেছে, জেলার চার উপজেলার প্রায় ৪৪ হাজার মানুষ পানিবন্দী হয়ে পড়েছে এবং পানিবন্দী নিরাশ্রয় মানুষের জন্য ৬৩টি আশ্রয় কেন্দ্র খোলা হয়েছে। বন্যা দুর্গত এলাকার মানুষের জন্য জরুরী পরিস্থিতি মোকাবেলায় বন্যা কবলিত ওইসব এলাকায় ২৪০ মে. টন চাল, নগদ ২ লাখ টাকা, ২ হাজার শুকনা খাবারের প্যাকেট বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। এদিকে সুন্দরগঞ্জ উপজেলায় কাপাসিয়া ইউনিয়নে বন্যাদুর্গত ১শ’ পরিবারের মধ্যে শুকনা খাবার ও বেলকা ইউনিয়নে ১শ’ পরিবারকে ২০ কেজি করে চাল বিতরণ করা হয়েছে। অপরদিকে সদর উপজেলার কামারজানি ইউনিয়নে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ৩শ’ ৩০টি পরিবারের মধ্যে ২০ কেজি চাল এবং ৩০ পরিবারকে শুকনো খাবার দেয়া হয়েছে। শুকনো খাবারের মধ্যে ছিল মিনিকেট চাল, সোয়াবিন তেল, মসুর ডাল, লুডুস, চিনি ও লবণ ইত্যাদি।

পানি উন্নয়ন বোর্ড সুত্রে জানা গেছে, রবিবার দুপুর পর্যন্ত ব্রহ্মপুত্র নদের পানি বিপদসীমার ৭৮ সে.মি., তিস্তার ২২ সে.মি এবং ঘাঘট নদীর পানি ৫৪ সে.মি. উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছিল। তবে করতোয়া নদীর পানি এখনও বিপদসীমার সামান্য নিচে রয়েছে।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST