ঘোষনা:
শিরোনাম :
পঞ্চগড়ে পুকুরের পানিতে ডুবে এক শিশুর মৃত্যু। ডিমলায় তিস্তার চরে ভুট্টার বাম্পার ফলন। সাতক্ষীরায় করোনায় আক্রান্ত ও উপসর্গ নিয়ে মেডিকেল হাসপাতালে নারীসহ দুই জনের মৃত্যু। বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির উপজেলা শাখা গঠনের আলোচনা সভা । নীলফামারীতে চাঁদা দিতে না পারায়,ঘরে অগ্নিসংযোগ জোড়পূর্বক মাছ চুরি। সৈয়দপুরের তিন শিক্ষার্থীর ভর্তি অনিশ্চিত মেডিকেল কলেজে । করোনা আক্রান্ত জননেতা বীর মুক্তিযোদ্ধা জয়নাল আবেদীন অনেকটা সুস্থ্য বোধ করছেন। লকডাউনে ১০টা -০১ টা পর্যস্ত খোলা থাকবে ব্যাংক সেবা। চাঁদ দেখা গেছে, বুধবার থেকে পবিত্র রমজান শুরু। শঙ্কিত হওয়ার কোনো কারণ নেই, সরকার সবসময় পাশে থাকবে;প্রধানমন্ত্রী।
‘পুরুষ, তোমার মস্তিষ্কে পোশাক পরাও’।

‘পুরুষ, তোমার মস্তিষ্কে পোশাক পরাও’।

 

তানভীর অর্ণব ,রাবি প্রতিনিধি,
দেশব্যাপী ধর্ষণের প্রতিবাদে ‘ধর্ষণ বিরোধী পদযাত্রা’ করেছে রাজশাহীর বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা। আজ সোমবার বিকাল চারটায় রাজশাহী বিশ^বিদ্যালয়ের জোহা চত্বর থেকে পদযাত্রা শুরু হয়। পদযাত্রাটি রাজশাহী শহরের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে জিরো পয়েন্টে এসে এক সংক্ষিপ্ত সমাবেশে মিলিত হয়।

‘রাষ্ট্রও কি তবে ধর্ষক, তবে কেন এ নীরব দর্শক?’, ‘ধর্ষকদের সামাজিকভাবে বয়কট করুন’, ‘ধর্ষণ যদি পোশাকের দায়, তবে শিশুরা কেন ধর্ষিত হয়?’, ‘ধর্ষণের মামলাগুলোর বিচারকাজ দ্রুত নিষ্পত্তি করো’, ‘রাজা এখন নীরব থাকে, সায় দিয়ে যায় ধর্ষণে’, ‘আইন-আদালত কি ধর্ষকের দখলে?’ ‘পোশাক নয়, পুরুষ তোমার মস্তিস্ক পরিষ্কার করো’ ইত্যাদি স্লোগানের প্ল্যাকার্ড নিয়ে শিক্ষার্থীরা সমাবেশে অবস্থান নেয়।

বিশ^বিদ্যালয়ের ফারসি ভাষা ও সাহিত্য বিভাগের শিক্ষার্থী রনজু হাসানের সঞ্চালনায় সমাবেশে বক্তব্য রাখেন পপুলেশন সায়েন্স এন্ড হিউম্যান রিসোর্চ ডেভোলপমেন্ট বিভাগের শিক্ষার্থী আমানুল্লাহ খান, ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের শিক্ষার্থী মাহমুদ সাকি, চারুকলা অনুষদের শিক্ষার্থী শাকিলা খাতুন, ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের শিক্ষার্থী মোহাব্বত হোসেন মিলন, ম্যাটেরিয়াল সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের শিক্ষার্থী রিদম শাহরিয়ার, বাংলা বিভাগের শিক্ষার্থী ফরিদা পারভীন, বরেন্দ্র বিশ^বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী মাইনুল ইসলাম মিলন, রাজশাহী কলেজের শিক্ষার্থী জিন্নাত আরা এবং এ্যাডভোকেট মুরাদ মোর্শেদ।

বক্তারা বলেন, গত ছয় মাসে ধর্ষণের ঘটনা অতীতের সব রেকর্ড অতিক্রম করেছে। ধর্ষকের বিচার না হয়ে সরকারি পৃষ্ঠপোষকতায় তাদেরকে সমাজে প্রতিষ্ঠিত করা হচ্ছে। যে শিশু ধর্ষণ কি তা-ই জানে না তাকেও রাস্তায় প্ল্যাকার্ড নিয়ে প্রতিবাদ করতে হচ্ছে। প্রতিনিয়ত যে ধর্ষণের ঘটনা ঘটছে এটাই কি মুক্তিযুদ্ধের আদর্শ? স্বাধীনতার ৪৭ বছর পর আমরা কি এমন বাংলাদেশ দেখতে চেয়েছিলাম? বলা হয়, ধর্ষণের জন্য নারীদের পোশাক দায়ী। তাহলে ছয় মাসের শিশু কেন ধর্ষিত হয়? পুরুষের উচিত, তার মস্তিষ্কে আগে পোশাক পরানো। আমরা যদি পরবর্তী প্রজন্মের জন্য নিরাপদ পরিবেশ না রেখে যেতে পারি তবে সেটা হবে আমাদের চরম ব্যর্থতা। তাই এই সমাবেশ থেকে আমরা বলতে চাই, ধর্ষকদের বয়কট করুন এবং ছাত্র-জনতা মিলে এদের বিরুদ্ধে আন্দোলন গড়ে তুলুন।

সমাবেশে সংহতি জানিয়ে বিশ^বিদ্যালয়ের ফোকলোর বিভাগের অধ্যাপক আমিরুল ইসলাম কনক বলেন, খুবই দুঃখজনক যে আজ এমন একটি ন্যাক্কারজনক ঘটনার প্রতিবাদে আমরা এখানে দাঁড়িয়েছি। মসজিদ-মাদ্রাসায় পর্যন্ত শিশুরা আজ নিরাপদ নয়। তাহলে আমরা কোথায় গিয়ে দাঁড়াবো? বিচারহীনতার সংস্কৃতি এমন এক বাস্তবতায় দাঁড়িয়েছে যেখানে ধর্ষকরা সমাজে বুক ফুলিয়ে বেড়াচ্ছে। বিচার বিভাগকে শক্তিশালী করে সুশাসন নিশ্চিত করা গেলে ধর্ষণের ঘটনা রোধ করা সম্ভব। এসময় রাজশাহী বিশ^বিদ্যালয়, বরেন্দ্র বিশ^বিদ্যালয়, রাজশাহী কলেজসহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অর্ধ-শতাধিক শিক্ষার্থী উপস্থিত ছিলেন।#





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST