ঘোষনা:
শিরোনাম :
নারায়ণগঞ্জ আমলাপাড়ার প্রেসিডেন্ট রোড এলাকায় গ্যাস লাইন লিকেজ বিস্ফোরণে ২ নৈশ প্রহরী দগ্ধ। গোপালগঞ্জে করোনায় গৃহবধুর মৃত্যু । বিতর্কিত ‘শিশু’ বক্তা রফিকুল ইসলাম মাদানীর নামে আরও একটি মামলা । ঢাকা সিলেট মহাসড়কে ট্রাকের ধাক্কায় মটর সাইকের আরোহী পুলিশের এস আই নিহত। ডোমার উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তার বিদায়, বরণ সংবর্ধনা । রিসোর্টে নারীকে নিয়ে, মামুনুলের ব্যক্তিগত বিষয়, এ নিয়ে হেফাজতের বক্তব্য নেই। নীলফামারী সৈয়দপুরে বৈশাখ আর ঈদের কেনাকাটায় ব্যাস্ত মানুষ। রাষ্ট্রপতির শোক বার্তা দিয়েছেন একুশে পদকপ্রাপ্ত রবীন্দ্রসংগীত শিল্পীর মৃত্যুতে। সাতক্ষীরায় ঘাতক সাগর গ্রেপ্তার, ‘২০০ টাকার জন্য বন্ধুকে খুন ’ ঘাতকের স্বীকারোক্তি। সীতাকুণ্ডে পুকুর থেকে যুবকের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।স্ত্রীকে আটক।
জলঢাকায় বীর মুক্তিযোদ্ধার পূর্ববালাগ্রাম ওকড়াবাড়ী স্বতন্ত্র এবতেদায়ী মাদ্রাসা ঘরের টিনসেট ছিদ্র হওয়ায় বৃষ্টিতে ক্লাসের বিঘ্নিত ।

জলঢাকায় বীর মুক্তিযোদ্ধার পূর্ববালাগ্রাম ওকড়াবাড়ী স্বতন্ত্র এবতেদায়ী মাদ্রাসা ঘরের টিনসেট ছিদ্র হওয়ায় বৃষ্টিতে ক্লাসের বিঘ্নিত ।

জলঢাকা,নীলফামারী প্রতিনিধি,
নীলফামারীর জলঢাকায় বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল হোসেনের প্রতিষ্ঠিত পূর্ব-বালাগ্রাম ওকড়াবাড়ী স্বতন্ত্র এবতেদায়ী মাদ্রাসা ঘরের টিনসেট ছিদ্র হওয়ায় বর্ষকালে ক্লাসের বিঘ্ন ঘটছে। টানা ভারী বর্ষনের ফলে মাদ্রাসার ভেতর ও মাঠ জলাবদ্ধতায় দুশ্চিন্তায় শিক্ষকসহ অভিভাবকরা।
জানা যায়,মাদ্রাসাটি ১৯৯৯ সালে থেকে সরকারি নিয়মে কার্যক্রম চালিয়ে আসছে। মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ডেপুটি কমান্ড বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল হোসেন। তিনি এ বছরে মারা গেছেন। বর্তমানে একজন প্রধান শিক্ষকসহ মোট ৪জন শিক্ষক কর্মরত আছে।সরকারি আওতাভুক্ত না হওয়ায় এখন পর্যন্ত বিনা বেতনে পাঠদান দিয়ে যাচ্ছে শিক্ষকরা।মাদ্রাসার শিক্ষার্থীর সংখ্যা ১৮০ জন। প্রতিবছর এ মাদ্রাসা থেকে সমাপনী পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে শিক্ষার্থীরা সাফল্যের সাথে কৃতকার্য হয়।এবারে সমাপনী পরীক্ষায় ১৫ জন ছাত্র/ছাত্রী অংশগ্রহন করবে।
১৫ জুলাই (সোমবার) সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়,মাদ্রাসা ঘরের টিনসেট নেটের মত অবস্থা। ঘরের ভেতর পানি ও সরঞ্জামগুলো প্রায় অকেজো। জলাবদ্ধতায় মাদ্রাসা মাঠ চলাচলে অ-উপযোগি। এ অবস্থায় ক্লাস পরিচালনা করছে শিক্ষকরা।
এসময় ছাত্র ছাত্রীরা জানায়,একটু বৃষ্টি হলেই আমরা ক্লাস করতে পারি না। পানি আর কাদায় পা দিয়ে ক্লাসে আসতে হয়।
এ বিষয়ে প্রধান শিক্ষক হালিমুর রহমান ও সহকারী শিক্ষক মোসলেম উদ্দীন বলেন,আমরা দীর্ঘদিন থেকে সরকারি নিয়মে মাদ্রাসাটি পরিচালনা করে আসছি। সরকারি বিস্কুট ও উপবৃত্তি পেয়েছি। আমাদের মাদ্রাসাটি সরকারি তালিকায়ও আছে। কিন্তু অবকাঠামো সমস্যাজনিত কারনে পাঠদান দিতে প্রতিনিয়ত আমাদের কঠিন সমস্যায় পড়তে হচ্ছে। বর্তমানে মাদ্রাসা ঘরটি মেরামত করা খুবেই জরুরি।এবং মাদ্রাসা ভবনের খুবেই প্রয়োজন।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST