ঘোষনা:
শিরোনাম :
নীলফামারী চৌরঙ্গীতে আগুন, দোকান ভস্মীভূত নীলফামারী উত্তরণ নার্সিং এন্ড মিডওয়াইফারি ইনস্টিটিউটের আন্তর্জাতিক নার্সেস দিবস পালিত সাতক্ষীরায় ২০ মেট্রিক টন অপরিপক্ক আম জব্দের পর তা বিনষ্ট নীলফামারী সদর উপজলোর মনোনয়ন যাচাই শেষ, এক চেয়ারম্যান প্রার্থির মনোনয়ন অবৈধ নীলফামারীতে মহান মে দিবস পালিত নীলফামারীতে গচ্ছিত জামানত ও পি.এফ এর টাকা উদ্ধারের দাবীতে প্রোণ অফিস ঘেরাও। নীলফামারীতে সাংবাদিকের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবীতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ। নীলফামারী জলঢাকার পৌরসভায় নোভা বিজয়ী নীলফামারীর জলঢাকা উপ-নির্বাচনে বিএনপি প্রার্থির পক্ষে প্রচারণা, এমপির বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন। নীলফামারীতে সাংবাদিক নির্যাতনের ঘটনাকে ভিন্নখাতে প্রবাহিত করতে সাংবািদকের নামে থানায় মিথ্যা চাঁদাবাজি মামলা
জলঢাকায় বীর মুক্তিযোদ্ধার পূর্ববালাগ্রাম ওকড়াবাড়ী স্বতন্ত্র এবতেদায়ী মাদ্রাসা ঘরের টিনসেট ছিদ্র হওয়ায় বৃষ্টিতে ক্লাসের বিঘ্নিত ।

জলঢাকায় বীর মুক্তিযোদ্ধার পূর্ববালাগ্রাম ওকড়াবাড়ী স্বতন্ত্র এবতেদায়ী মাদ্রাসা ঘরের টিনসেট ছিদ্র হওয়ায় বৃষ্টিতে ক্লাসের বিঘ্নিত ।

জলঢাকা,নীলফামারী প্রতিনিধি,
নীলফামারীর জলঢাকায় বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল হোসেনের প্রতিষ্ঠিত পূর্ব-বালাগ্রাম ওকড়াবাড়ী স্বতন্ত্র এবতেদায়ী মাদ্রাসা ঘরের টিনসেট ছিদ্র হওয়ায় বর্ষকালে ক্লাসের বিঘ্ন ঘটছে। টানা ভারী বর্ষনের ফলে মাদ্রাসার ভেতর ও মাঠ জলাবদ্ধতায় দুশ্চিন্তায় শিক্ষকসহ অভিভাবকরা।
জানা যায়,মাদ্রাসাটি ১৯৯৯ সালে থেকে সরকারি নিয়মে কার্যক্রম চালিয়ে আসছে। মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ডেপুটি কমান্ড বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল হোসেন। তিনি এ বছরে মারা গেছেন। বর্তমানে একজন প্রধান শিক্ষকসহ মোট ৪জন শিক্ষক কর্মরত আছে।সরকারি আওতাভুক্ত না হওয়ায় এখন পর্যন্ত বিনা বেতনে পাঠদান দিয়ে যাচ্ছে শিক্ষকরা।মাদ্রাসার শিক্ষার্থীর সংখ্যা ১৮০ জন। প্রতিবছর এ মাদ্রাসা থেকে সমাপনী পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে শিক্ষার্থীরা সাফল্যের সাথে কৃতকার্য হয়।এবারে সমাপনী পরীক্ষায় ১৫ জন ছাত্র/ছাত্রী অংশগ্রহন করবে।
১৫ জুলাই (সোমবার) সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়,মাদ্রাসা ঘরের টিনসেট নেটের মত অবস্থা। ঘরের ভেতর পানি ও সরঞ্জামগুলো প্রায় অকেজো। জলাবদ্ধতায় মাদ্রাসা মাঠ চলাচলে অ-উপযোগি। এ অবস্থায় ক্লাস পরিচালনা করছে শিক্ষকরা।
এসময় ছাত্র ছাত্রীরা জানায়,একটু বৃষ্টি হলেই আমরা ক্লাস করতে পারি না। পানি আর কাদায় পা দিয়ে ক্লাসে আসতে হয়।
এ বিষয়ে প্রধান শিক্ষক হালিমুর রহমান ও সহকারী শিক্ষক মোসলেম উদ্দীন বলেন,আমরা দীর্ঘদিন থেকে সরকারি নিয়মে মাদ্রাসাটি পরিচালনা করে আসছি। সরকারি বিস্কুট ও উপবৃত্তি পেয়েছি। আমাদের মাদ্রাসাটি সরকারি তালিকায়ও আছে। কিন্তু অবকাঠামো সমস্যাজনিত কারনে পাঠদান দিতে প্রতিনিয়ত আমাদের কঠিন সমস্যায় পড়তে হচ্ছে। বর্তমানে মাদ্রাসা ঘরটি মেরামত করা খুবেই জরুরি।এবং মাদ্রাসা ভবনের খুবেই প্রয়োজন।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST