ঘোষনা:
শিরোনাম :
নীলফামারীতে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের ৭২ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন। খুলনায় স্বাস্থ্যবিধি না মানায় অর্থদণ্ড ও কারাদণ্ড প্রদান । জলঢাকায় হরিজন পল্লীতে তুরিন আফরোজ কিশোরগঞ্জে ভাতাভোগীদের টাকা হাতিয়েছে প্রতারক চক্রটি জলঢাকায় আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর বৃক্ষ রোপন ও চারাগাছ বিতরণ নীলফামারীতে মুজিববর্ষ ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে বৃক্ষরোপন করেছে আনসার ওভিডিপি। সৈয়দপুরে রেলের তদন্ত প্রতিবেদন,নিজেকে বাঁচাতে উপজেলা চেয়ারম্যানের সংবাদ সম্মেলন । পঞ্চগড়ের দেবীগঞ্জে করোনা আক্রান্ত মাদ্রাসা শিক্ষিকার মৃত্যু। বাংলাদেশ স্কাউটস এর স্ট্রাটেজিক প্ল্যান ও গ্রোথ মূল্যায়ন ওয়ার্কশপ বরিশালের গৌরনদী উপজেলায় নির্বাচনী সহিংসতায় নিহত ১, আহত ২
নীলফামারীর সৈয়দপুরে নির্মাণের পর পরই ভেঙ্গে পড়েছে ড্রেন ।

নীলফামারীর সৈয়দপুরে নির্মাণের পর পরই ভেঙ্গে পড়েছে ড্রেন ।

নীলফামারী  প্রতিনিধি ,
নীলফামারীর সৈয়দপুরে সরকারি বরাদ্দে নির্মাণের সপ্তাহখানেক যেতে না যেতেই ভেঙে পড়েছে ড্রেনের কিছু অংশ। উপজেলার তিন নম্বর বাঙ্গালীপুর ইউনিয়নের এক নম্বর ওয়ার্ডের পশ্চিম লক্ষণপুর এলাকায় ওই ড্রেন নির্মাণ করা হয়। এ ঘটনায় এলাকার মানুষের মধ্যে চরম ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। তাদের অভিযোগ অতি নি¤œমানের কাজের কারণে এমনটি ঘটেছে।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বার্ষিক উন্নয়ন প্রকল্পের (এডিপি) আওতায় গেল ২০১৮-২০১৯ইং অর্থবছরে সৈয়দপুর উপজেলার বাঙ্গালীপুর ইউনিয়নের পশ্চিম লক্ষণপুর এলাকায় পানি নিষ্কাশনের একটি ড্রেন নির্মাণে ২ লাখ টাকা বরাদ্দ প্রদান করা হয়। ১৯২ ফুট দীর্ঘ এ ড্রেনটি ইউনিয়ন পরিষদের প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটির (পিআইসি) অধীন ড্রেনটি নির্মাণ করা হয়। এর প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটির সভাপতি হচ্ছে সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ড সদস্য অজিত চন্দ্র রায়। গত জুনে শেষে ড্রেনটি নির্মাণ করা হয়। উল্লিখিত স্থানে আগেও একটি সরু ড্রেন ছিল। সেটি ভেঙ্গে একই স্থানে ড্রেনটি নির্মাণ করা হয়েছে। কিন্তু ড্রেন নির্মাণে পুরাতন ইট ব্যবহার করা হয়। এছাড়াও ড্রেন নির্মাণ কাজে পরিমাণ মতো সিমেন্ট ও বালুসহ অন্যান্য উপকরণ সামগ্রী ব্যবহার করা হয়নি। এতে ড্রেন নির্মাণের সপ্তাহখানেক যেতে না যেতে ড্রেনটি প্রায় ৩০ ফুট ভেঙ্গে হেলে পড়েছে। গত শনিবার সরেজমিনে এলাকায় গিয়ে দেখা যায় ড্রেনের পাঁচ ইঞ্চি গাঁথনির এক পাশের ওই অংশ ভেঙ্গে গেছে।
এ সময় এলাকার মো. আব্দুস্ সামাদ অভিযোগ করে বলেন আগের ড্রেনের ইটগুলো দিয়ে ড্রেনটি নির্মাণ করা হয়। এছাড়াও পুরাতন ইটগুলো ভালভাবে পরিস্কার করা হয়নি। ব্যবহার করা হয়নি নির্দিষ্ট পরিমাণে সিমেন্ট এবং বালুও। আমরা সে সময় ভালভাবে কাজ করার জন্য বলেছিলাম। কিন্তু সংশ্লিষ্টরা আমাদের কথায় কোন গুরুত্বপূর্ণ দেয়নি। মূলতঃ তড়িঘড়ি এবং সঠিক ভাবে কাজ না করার এমনটি হয়েছে।
অপর এলাকাবাসী সাজ্জাদ জানান, এমন ড্রেন নির্মাণ করলো যে নির্মাণের পর পরই তা ভেঙে পড়েছে। সরকারি কাজ এমন নি¤œমানের হয় তা আগে কখনো দেখিনি।
বাঙ্গালীপুর ইউনিয়নের এক নম্বর ওয়ার্ড সদস্য ও পিআইসির সভাপতি শ্রী অজিত চন্দ্র রায় নির্মিত ড্রেনের কিছু অংশ ভেঙে পড়ার সত্যতা নিশ্চিত করেন। তবে তিনি নি¤œমানের কাজ করার কথা অস্বীকার করে বলেন ড্রেন নির্মাণের দিন থেকে মুষল ধারায় বৃষ্টি শুরু হয়। আর ড্রেনের মুখ বন্ধ থাকায় ড্রেনে জমাকৃত পানির চাপে কিছুটা অংশ ভেঙ্গে যায়। তবে ভাঙা অংশ মেরামত করা হবে বলে জানান তিনি। একই ধরনের কথা বলেন সৈয়দপুর উপজেলার বাঙ্গালীপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান শ্রী প্রণোবেশ চন্দ্র বাগচী।
সৈয়দপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) এস. এম. গোলাম কিবরিয়া বলেন, বিষয়টি আমার জানা নেই। বিষয়টি খোঁজ খবর নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST