ঘোষনা:
শিরোনাম :
নীলফামারী চৌরঙ্গীতে আগুন, দোকান ভস্মীভূত নীলফামারী উত্তরণ নার্সিং এন্ড মিডওয়াইফারি ইনস্টিটিউটের আন্তর্জাতিক নার্সেস দিবস পালিত সাতক্ষীরায় ২০ মেট্রিক টন অপরিপক্ক আম জব্দের পর তা বিনষ্ট নীলফামারী সদর উপজলোর মনোনয়ন যাচাই শেষ, এক চেয়ারম্যান প্রার্থির মনোনয়ন অবৈধ নীলফামারীতে মহান মে দিবস পালিত নীলফামারীতে গচ্ছিত জামানত ও পি.এফ এর টাকা উদ্ধারের দাবীতে প্রোণ অফিস ঘেরাও। নীলফামারীতে সাংবাদিকের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবীতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ। নীলফামারী জলঢাকার পৌরসভায় নোভা বিজয়ী নীলফামারীর জলঢাকা উপ-নির্বাচনে বিএনপি প্রার্থির পক্ষে প্রচারণা, এমপির বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন। নীলফামারীতে সাংবাদিক নির্যাতনের ঘটনাকে ভিন্নখাতে প্রবাহিত করতে সাংবািদকের নামে থানায় মিথ্যা চাঁদাবাজি মামলা
গাইবান্ধায় বন্যা পরিস্থিতির আরও অবনতি, লাখো মানুষ পানিবন্দি ।

গাইবান্ধায় বন্যা পরিস্থিতির আরও অবনতি, লাখো মানুষ পানিবন্দি ।

কামরুল হাসান,গাইবান্ধা প্রতিনিধি ,

গাইবান্ধার সবগুলো নদ-নদীর পানি বিপদসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। ভারী বৃষ্টি ও পাহাড়ি ঢলে গাইবান্ধার নদ-নদীগুলোতে পানি বাড়ছেই। ফলে জেলার বন্যা পরিস্থিতি আরও অবনতি হয়েছে।

ইতোমধ্যে গাইবান্ধার বন্যা কবলিত চার উপজেলার ৩০০টি গ্রামের প্রায় ৪ লাখ মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। বন্যার পানিতে প্রতিদিনই নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হচ্ছে। বন্যা আতংকে দিন কাটাচ্ছে গাইবান্ধা শহরের মানুষ।

এদিকে সোমবার (১৫ জুলাই) রাত থেকে গাইবান্ধা শহরের বেশ কিছু এলাকায় বন্যার পানি ঢুকতে শুরু করেছে। শহরের পূর্বপাড়া, কুঠিপাড়া, জুম্মাপাড়া, সবুজপাড়া, মুন্সিপাড়া, বানিয়ারজান, ডেভিড কোম্পানি পাড়া, ব্রীজরোড কালিবাড়ী পাড়ায় বন্যা দেখা দিয়েছে।

এছাড়া গাইবান্ধা-বালাসীঘাট রাস্তার পূর্বপাড়া, গাইবান্ধা-লক্ষ্মীপুর রাস্তার ফারাজী পাড়া এলাকায় রাস্তার উপর দিয়ে পানি প্রবাহিত হচ্ছে। এতে করে চরম দুর্ভোগে পড়েছে শহরবাসী।অপরদিকে গাইবান্ধা শহর রক্ষা বাঁধের কয়েকটি পয়েন্ট ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ায় ভাঙন আতঙ্কে রয়েছে গাইবান্ধা শহরবাসী। এছাড়া বাঁধটির ডেভিট কোম্পানী পাড়া এলাকায় যেকোনো মূহুর্তে পানি উপচে পড়ারও আশঙ্কা করছেন তার।

গাইবান্ধা পৌর মেয়র ও শহর আওয়ামী লীগের সভাপতি এ্যাডভোকেট শাহ্ মাসুদ জাহাঙ্গীর কবীর মিলন বলেন, পৌর এলাকার পানিবন্দি মানুষদের জন্য ১০টি আশ্রয় কেন্দ্র খুলে দেওয়া হয়েছে। এসব আশ্রয় কেন্দ্রের প্রায় তিন হাজার মানুষের খাবারের ব্যবস্থা, পানি বিশুদ্ধকরণ ট্যাবলেট, খাবার স্যালাইনসহ প্রয়োজনীয় ওষুধ দেওয়া হচ্ছে।

গাইবান্ধার সিভিল সার্জন এবিএম আবু হানিফ বলেন, বন্যা কবলিত এলাকায় জরুরি স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে ১০৯ টি মেডিকেল টিম কাজ করছে।এরমধ্যে বন্যা কবলিত ৪ উপজেলায় কাজ করছে ৬১ টিম। প্রত্যেকটি টিমে তিন থেকে পাচঁজন করে রয়েছে। এছাড়া পানি বিশুদ্ধকরণ ট্যাবলেট, স্যালাইনসহ অন্যান্য ওষুধপত্র পর্যাপ্ত রয়েছে।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর গাইবান্ধার উপ-পরিচালক এসএম ফেরদৌস বলেন, গাইবান্ধা সদর, সুন্দরগঞ্জ, সাঘাটা ও ফুলছড়ি উপজেলায় বন্যা দেখা দিয়েছে। এই চার উপজেলায় রোপা আউশ ৯৭৭ হেক্টর, পাট ২৪৩৯ হেক্টর, রোপা আমন বীজতলা ৪৬১ হেক্টর, বিভিন্ন ধরনের সবজি ২৪৭ হেক্টর, পান ৩ হেক্টর এবং তিল ২৫ হেক্টরসহ মোট ৪১৫২ হেক্টর জমি পানিতে নিমজ্জিত হয়েছে

তিনি আশা প্রকাশ করেন, আগামী সাতদিনের মধ্যে যদি বন্যার পানি কমে, তাহলে হয়তো পাট কাটতে পারবে কৃষকরা।

গাইবান্ধা জেলা মৎস্য কর্মকর্তা আব্দুল দাইয়ান জানান, জেলার চার উপজেলার বন্যা কবলিত এলাকার ১ হাজার ৯৫৫টি পুকুরের ৪৯৯ দশমিক ৮৫ মেঃ টন মাছ ভেসে গেছে। ভেসে যাওয়া মাছের মূল্য ধরা হয়েছে ৬৮৫ দশমিক ৯২ লাখ টাকা। এছাড়া ২৪ দশমিক ২০ লাখ টাকার ১৯ দশমিক ৯৮ লাখ মাছের পোনা ভেসে গেছে।

মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) বেলা ১২টা পর্যন্ত অবকাঠামোসহ বন্যায় মোট ক্ষয়-ক্ষতির পরিমাণ দাড়িয়েছে ৭৩৪ দশমিক ৮০ লাখ টাকা।

পাউবো’র নির্বাহী প্রকৌশলী মো. মোখলেছুর রহমান বলেন, ‘গাইবান্ধার ফুলছড়ি পয়েন্টে ব্রহ্মপুত্র নদের পানি ১৩৯ সেন্টিমিটার, শহরের ঘাঘট নদীর পানি ৯৪ সেন্টিমিটার বিপদসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। ঝুঁকিপূর্ণ স্থানগুলোতে জিও ব্যাগ ফেলে ভাঙন রোধের চেষ্টা চলছে’।

গাইবান্ধার ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক মোছা. রোখছানা বেগম বলেন, ‘শনিবার থেকে বন্যা কবলিত এলাকাগুলোতে ত্রাণ সহায়তা দেয়া শুরু হয়েছে। বানভাসী মানুষদের জন্য এ পর্যন্ত ৪০০ মে: টন চাল, নগদ ৬ লাখ ৫০ হাজার টাকা ও দুই হাজার শুকনা খাবারের প্যাকেট বিতরণ কার্যক্রম চলমান আছে’।

তিনি আরও বলেন, ‘নতুন করে আরও এক হাজার মে: টন চাল, দশ লাখ টাকা এবং পাঁচ হাজার শুকনা খাবারের প্যাকেট বরাদ্ধ চেয়ে সংশ্লিষ্ট দফতরে পত্র পাঠানো হয়েছে। বানভাসীদের জন্য ১২৪ টি আশ্রয় কেন্দ্র খুলে দেয়া হয়েছে’।

উল্লেখ্য, অতিরিক্ত পানির চাপে সোমবার (১৫ জুলাই ) সকালে গাইবান্ধা সদর উপজেলার খোলাহাটি ইউনিয়নের ফকিরপাড়া এলাকায় ঘাঘট বামতীর রক্ষা  বাঁধের প্রায় দেড়শ ফুট ও গোদারহাট এলাকায় সোনাইল বাঁধের প্রায় ১০০ ফুট ধসে যায়। ফলে ওই দুটি এলাকার অন্তত ৫০টি গ্রামের মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়ে। এছাড়া রবিবার (১৪ জুলাই) দিবাগত রাত দুইটার দিকে ফুলছড়ি উপজেলার গজারিয়া ইউনিয়নের কাতলামারি গ্রামে ব্রহ্মপুত্র নদের বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ ধসে পানিতে ভেসে গেছে অন্তত ৩০টি বাড়ি। নতুন করে প্লাবিত হয়েছে ৩০টি গ্রাম।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST