ঘোষনা:
শিরোনাম :
নারায়ণগঞ্জ আমলাপাড়ার প্রেসিডেন্ট রোড এলাকায় গ্যাস লাইন লিকেজ বিস্ফোরণে ২ নৈশ প্রহরী দগ্ধ। গোপালগঞ্জে করোনায় গৃহবধুর মৃত্যু । বিতর্কিত ‘শিশু’ বক্তা রফিকুল ইসলাম মাদানীর নামে আরও একটি মামলা । ঢাকা সিলেট মহাসড়কে ট্রাকের ধাক্কায় মটর সাইকের আরোহী পুলিশের এস আই নিহত। ডোমার উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তার বিদায়, বরণ সংবর্ধনা । রিসোর্টে নারীকে নিয়ে, মামুনুলের ব্যক্তিগত বিষয়, এ নিয়ে হেফাজতের বক্তব্য নেই। নীলফামারী সৈয়দপুরে বৈশাখ আর ঈদের কেনাকাটায় ব্যাস্ত মানুষ। রাষ্ট্রপতির শোক বার্তা দিয়েছেন একুশে পদকপ্রাপ্ত রবীন্দ্রসংগীত শিল্পীর মৃত্যুতে। সাতক্ষীরায় ঘাতক সাগর গ্রেপ্তার, ‘২০০ টাকার জন্য বন্ধুকে খুন ’ ঘাতকের স্বীকারোক্তি। সীতাকুণ্ডে পুকুর থেকে যুবকের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।স্ত্রীকে আটক।
বগুড়ায় যমুনার পানি কমলেও সোয়া লাখ মানুষ পানিবন্দী ।

বগুড়ায় যমুনার পানি কমলেও সোয়া লাখ মানুষ পানিবন্দী ।

ফাইল ছবি ।

বগুড়া প্রতিবেদক,

বগুড়ায় যমুনা  নদীর পানি কমলেও সোয়া লাখ এখনো মানুষ পানিবন্দী।  বগুড়ায় যমুনা নদীর পানি কমতে শুরু করেছে। আজ শুক্রবার সকাল ছয়টা থেকে নয়টা পর্যন্ত তিন ঘণ্টায় সারিয়াকান্দির মথুরাপাড়া পয়েন্টে যমুনা নদীর পানি আড়াই সেন্টিমিটার কমেছে। বগুড়ায় এখনো প্রায় সোয়া লাখ মানুষ পানিবন্দী।

মথুরাপাড়া পয়েন্টে যমুনার পানির বিপৎসীমা ধরা হয় ১৬ দশমিক ৭০ সেন্টিমিটার। আজ সকাল ছয়টায় পানিপ্রবাহ ছিল ১৭ দশমিক ৯৮.৫ সেন্টিমিটার; অর্থাৎ, বিপৎসীমার ১২৮ দশমিক ৫ সেন্টিমিটার ওপরে। সকাল নয়টায় পানি কমে ১৭ দশমিক ৯৬ সেন্টিমিটারে নেমেছে।

এখনো জেলার সারিয়াকান্দি, সোনাতলা ও ধুনট উপজেলার ১৯টি ইউনিয়নের ১২৯টি গ্রামের ১ লাখ ২৫ হাজার মানুষ পানিবন্দী। বন্যায় ৩১ হাজার ৫৮৫টি পরিবার ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। নদীগর্ভে বিলীন হয়েছে ১৪৫ বসতবাড়ি। আংশিক ক্ষতি হয়েছে ৬ শতাধিক ঘরবাড়ির। বাঁধে আশ্রয় নিয়েছে কয়েক হাজার মানুষ। ৭৯টি বিদ্যালয়ের শ্রেণিকক্ষ জলমগ্ন হওয়ায় পাঠদান বন্ধ রয়েছে প্রায় ২৫ হাজার শিক্ষার্থীর।

বন্যায় প্রায় ৯ হেক্টর জমির ফসল তলিয়ে গেছে। ভেসে গেছে কৃষকের জাগ দেওয়া কয়েক হাজার একর জমির পাট।

সবচেয়ে দুর্ভোগে পড়েছে যমুনা নদীর দুর্গম চরাঞ্চলের মানুষ। যমুনার ঢলে ভেসে গেছে সারিয়াকান্দি উপজেলার চালুয়াবাড়ি ইউনিয়নের চরদলিকা, চরভাঙ্গুরগাছা, সুজনেরপাড়া, আউচারপাড়া গ্রামের কয়েক শ বসতঘর। এসব চরে বসবাসকারী মানুষ আশ্রয়হীন হয়ে পড়েছে। দুর্গত এলাকায় দেখা দিয়েছে খাদ্য ও বিশুদ্ধ পানির সংকট। বেশ কিছু এলাকায় এখনো সরকারি-বেসরকারি ত্রাণ সহায়তা পৌঁছায়নি।

জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা আজাহার আলী বলেন, গতকাল বৃহস্পতিবার পর্যন্ত দুর্গতদের জন্য ২ হাজার প্যাকেট শুকনো খাবার এবং ৩৩৭ মেট্রিক টন চাল বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। আরও ৫০০ মেট্রিক টন চাল, ১০ হাজার প্যাকেট শুকনো খাবার এবং ১০ লাখ টাকা চাহিদা পাঠানো হয়েছে।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST