ঘোষনা:
ঢাকার উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশন মশা মারতে যে ওষুধ ব্যবহার করছে তা অকার্যকর।

ঢাকার উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশন মশা মারতে যে ওষুধ ব্যবহার করছে তা অকার্যকর।

ছবি: সংগৃহীত

ঢাকা  প্রতিবেদক ,
ঢাকার উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশন মশা মারতে যে ওষুধ ব্যবহার করছে তা অকার্যকর। আন্তর্জাতিক উদরাময় গবেষণা কেন্দ্র, বাংলাদেশের (আইসিডিডিআর,বি) গবেষণায় সেটি প্রমাণিত। এ কারণে রাজধানীসহ দেশের ছয়টি বিভাগে ডেঙ্গু মহামারি আকার ধারণে পথে। আর নতুন ওষুধ আনতে সময় লাগবে কমপক্ষে চার মাস।
এ পর্যন্ত ডেঙ্গুতে প্রায় ১০ হাজার মানুষ আক্রান্ত হলেও মশার ওষুধ পরিবর্তনে কার্যকরী নিচ্ছে না নগর কর্তৃপক্ষ। বরং, সেই অকার্যকর ওষুধেই মশা মারার ব্যর্থ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে তারা।
ওষুধ কেনার সঙ্গে জড়িত সরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোর কর্মকর্তারা বলছেন, এখনও কোনো প্রতিষ্ঠানের কাছেই প্রস্তাবিত কোনো ওষুধের নাম জানায়নি সংশি¬ষ্টরা। এ সপ্তাহেও যদি কোনো ওষুধের নাম এবং স্যাম্পল আসে, সেগুলো পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে ওষুধ কিনতে কমপক্ষে চার মাস সময় লাগতে পারে। আর ততোদিনে ফুরিয়ে যাবে ডেঙ্গুর মৌসুম। এ রোগে আক্রান্ত হয়ে ভুগতে হবে অসংখ্য মানুষকে।
তবে স্বাস্থ্য সংশ্লি¬ষ্টরা বলছেন, তারা গত ১৫ জুলাই ঢাকার উত্তর সিটি করপোরেশনের উদ্যোগে ডেঙ্গু বিষয়ে একটি সভা করেছেন। সেই সভায় স্বাস্থ্যসেবা সংক্রান্ত একজন কার্যকর ‘মেলাথিউন’ ওষুধের নাম প্রস্তাব করেন। এ ওষুধটি মশা মারার জন্য সিটি করপোরেশন আগে ব্যবহার করেছে বলেও জানান তারা। তাই এটি আমদানি করতে বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও দপ্তর থেকে অনুমোদনের জন্য ফাইল চালাচালি করে সময়ক্ষেপণ করতে হবে না। তবে এ বিষয়ে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র মোহাম্মদ সাঈদ খোকন বলেন, কেনা ওষুধগুলো মানসম্মত নয় বলে যে অভিযোগ করা হচ্ছে সেটা সঠিক নয়। আমরা এই ওষুধ ব্যবহার করে দেখেছি মশা মরছে। নতুন ওষুধ কেনার কোনো সিদ্ধান্ত হয়েছে কিনা জানতে চাইলে সাঈদ খোকন বলেন, রাজধানীর মশার যেহেতু প্রতিরোধ ক্ষমতা বেড়েছে, সে কারণে কোন ওষুধ ব্যবহার করলে ভাল হবে, সেটা টেকনিক্যাল কমিটিকে যাচাই-বাছাই করে দেখতে বলা হয়েছে। এছাড়া এ ব্যাপারে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়েরও সহায়তা চাওয়া হয়েছে। আশাকরি দ্রুততম সময়ে আমরা নতুন ওষুধ কেনার সিদ্ধান্ত নিতে পারবো।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST