ঘোষনা:
শিরোনাম :
কিশোরগঞ্জে পবিত্র ঈদ-উল ফিতরের আগে সরকারী আর্থিক সহায়তা না পাওয়ার শংকায়  সুবিধাভোগীরা। নীলফামারীর কিশোরগঞ্জে ইফতার কিনতে যাওয়া হলনা শরিফুদ্দিনের । ডোমারে শিক্ষার্থীদের জন্য অভিভাবকদের মাঝে খাবার বিতরণ। যশোরের বেনাপোল কাস্টমস হাউস দেশের প্রথম ডিজিটাল কাস্টমস হাউসে উন্নীত। স্বেচ্ছাসেবক লীগের ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সদস্যদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী প্রদান। করোনা কালীন পরিস্থিতি ও পবিত্র মাহে রমজান উপলক্ষে দুই শতাধিক অসহায় পরিবারের মাঝে ত্রাণ বিতরণ। কিশোরগঞ্জে সিটিজেন চার্টার না থাকায় মৎস্য চাষীরা সেবা বঞ্চি। নীলফামারীতে প্রধানমন্ত্রীর শুভেচ্ছা ইফতার উপহার পেলেন অসহায় ও দরিদ্র মানুষ। নীলফামারীতে ভুল চিকিৎসায় পঙ্গু জাহিদুল, পরিবার বাঁচাতে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা। চট্টগ্রামে করোনায় আরো ৫ জনের মৃত্যু ।
সৈয়দপুরে রেলের জায়গা দখলে আই ডাব্লুর বাণিজ্য ।

সৈয়দপুরে রেলের জায়গা দখলে আই ডাব্লুর বাণিজ্য ।

সৈয়দপুর (নীলফামারী) প্রতিনিধি ,
সৈয়দপুরে রেলের জমি দখলে আই ডাব্লু তৌহিদুল ইসলাম এর মদদে দখলবাজরা গড়ে তুলছে অবকাঠামো। বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ করেও কোন ব্যবস্থা নেয়নি কর্তৃপক্ষ।
সূত্র মতে, সৈযদপুর শহর রেলের শহর হিসেবে গড়ে উঠলেও বর্তমানে এর গরুত্ব অপরিসীম। তৎকালীন বৃট্রিশ সরকার ১৮৭০ সালে ১১০ একর জমির উপর সৈয়দপুরে ট্রেনের বগি তৈরির কারখানা স্থাপন করেন। কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের থাকার জন্য বাসস্থান তৈরি করে, অফিসার্স কলোনী, গোলাহাট, আতিয়ার কলোনী, মুন্সিপাড়া, গার্ডপাড়া, বাঁশবাড়ী, মিস্ত্রিপাড়াসহ কারখানা গেট সংলগ্ন বাংলো ও কোয়াটার নির্মাণ করেন। প্রথম দিকে আবাসস্থল গুলোতে রেলের কর্মকর্তা ও কর্মচারী বাস করতেন। কিছু অসাদু রেলের কর্মকর্তা ও কর্মচারী আবাসস্থলের সামনে ফাকা জায়গাগুলো অর্থের বিনিময়ে পজিশন বিক্রি করেন। এমনকি কোয়াটারগুলোও বিক্রি করে দেন। এসব তদারকির জন্য রেলের একজন কর্মকর্তা থাকার পরও পজিসন হস্তান্তর চলছে নির্বিঘেœ। বর্তমানে সৈয়দপুরে রেলের ফাঁকা জমি খালি নেই। আই ডাব্লুকে ম্যানেজ করেই বহুতল ভবনসহ দোকানঘর নির্মাণ অব্যহত রয়েছে। বর্তমানে রেলের কোয়াটার ও ফাঁকা জায়গাগুলো তারই মদদে দখল হচ্ছে। তাকে উপরি দিলেই নিবিঘেœ রেলের জমি দখলে নেয়া যায়। কিছুদিন আগে রেল ভূসম্পত্তি বিভাগ থেকে লাইসেন্স প্রদান করা হচ্ছে বলে একাধিকবার মাইকিং করা হয়। এরই সুযোগ নিয়ে আই ডাব্লু তৌহিদুল ইসলাম দখল বাজদের মদদ দিয়ে রেলের ফাঁকা জমিগুলো দখল দিয়ে নিজের পকেট ভরছেন। সরকারি বিধি মোতাবেক একজন সরকারি কর্মকর্তা বা কর্মচারী এক স্থানে তিন বছরের বেশি থাকতে পারে না। কিন্তু আই ডাব্লু তৌহিদ দীর্ঘদিন যাবত সৈয়দপুর রেলওয়ে আছেন। তিনি সরকারী নিয়মকে বৃদ্ধাংগুলি দেখিয়ে একই অফিসে দীর্ঘদিন কর্মরত আছেন। অদৃশ্য শক্তির যোরে অফিসে বহাল তবিয়তে আছেন। এ ব্যাপারে আই ডাব্লু তৌহিদ কোন কথা বলতে রাজি হননি ।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST