ঘোষনা:
শিরোনাম :
শঙ্কামুক্ত নন অভিনেত্রী শারমিন আওয়ামী লীগ শাসনামলে দেশের ব্যাপক উন্নয়ন বিবেচনায় নিতে দেশবাসীর প্রতি আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর নীলফামারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের ক্লাস প্রমোশন না দেয়ার প্রতিবাদে মানববন্ধন নীলফামারীতে সড়ক দূর্ঘটনায় আহত ৮ জন নীলফামারীতে পুলিশ সার্ভিস এসোসিয়েশনের শীতবস্ত্র বিতরণ কিশোরগঞ্জে বিদায়ী মাঘে শীতের হানা কিশোরগঞ্জে অপহরণের দায়ে পেশ ইমাম আটক-ছাত্রী উদ্ধার বিপদে পুলিশকে পাশে পেয়ে মানুষ যেন স্বস্তি বোধ করে তা নিশ্চিত করতে হবে : প্রধানমন্ত্রী উন্নয়নের বদলে শেখ হাসিনাকে ভোট উপহার দিন: চাঁপাইনবাবগঞ্জে নানক বিএনপির বক্তব্যে মনে হয় আওয়ামী লীগকে রাজপথে দেখে তারা ভীত : তথ্যমন্ত্রী
১৫ আগষ্ট জাতীয় শোক দিবসে জলঢাকায় আ. লীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষ , পুলিশসহ আহত ৭।

১৫ আগষ্ট জাতীয় শোক দিবসে জলঢাকায় আ. লীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষ , পুলিশসহ আহত ৭।

জলঢাকা (নীলফামারী) প্রতিনিধি ,
নীলফামারীর জলঢাকায় জাতীয় শোক দিবসের কর্মসূচীকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগের দুইপক্ষের মধ্যে সংঘর্ষে পাঁচ পুলিশ সদস্যসহ সাতজন আহত হয়েছেন। বৃহস্পতিবার দুপুর ও বিকালে দু’দফায় জলঢাকা পৌরশহরে বঙ্গবন্ধু চত্ত্বর এলাকায় ঘটনাটি ঘটে। এ ঘটনায় পুলিশ ১৩ রাউন্ড টিয়ার শেল ও ১৫ রাউন্ড রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

সংঘর্ষে আহতরা হলেন, জলঢাকা থানার উপ-পরিদর্শক মামুন-অর রশীদ, কনস্টেবল মেহেদী হাসান, নাসির, রুবেল, সাইফুল, শিক্ষক শাহিনুর রহমান ও পথচারী দুলাল হোসেন। তাদেরকে জলঢাকা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হলে অবস্থার অবনতি হওয়ায় উপ-পরিদর্শক মামুন-অর রশীদকে রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে স্থানন্তর করা হয়েছে। সূত্রমতে, শোক দিবস উপলক্ষে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আনছার আলী মিন্টু ও সাধারণ সম্পাদক সহীদ হোসেন রুবেলের নেতৃত্বে উপজেলা শহরের জিরোপয়েন্ট মোড়ে কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়। অপরদিকে পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি আশরাফ হোসেন ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি আব্দুল মান্নানের নেতৃত্বে বঙ্গবন্ধু চত্ত্বর এলাকায় পৃথক কর্মসূচী ঘোষণা করা হয়। বৃহস্পতিবার বঙ্গবন্ধু চত্ত্বরে কর্মসূচি চলাকালে দুইপক্ষের মধ্যে দুই দফায় সংঘর্ষ বাধে। প্রত্যক্ষদশীরা জানায়, বেলা সাড়ে এগারোটার দিকে শহরের বঙ্গবন্ধু চত্বর এলাকায় মান্নান-আশরাফ সমর্থিত নেতাকর্মীরা শোক দিবসের আলোচনায় অংশ নেয়। এসময় উপজেলা আ’লীগ সভাপতি আনছার আলী মিন্টু ও সাধারণ সম্পাদক সহীদ হোসেন রুবেলের নেতৃত্বে একটি শোক র‌্যালী বের হয়ে বঙ্গবন্ধু চত্ত্বর গিয়ে তাদের সভায় বাধা দিলে দুপক্ষের মাঝে উত্তেজনা বিরাজ করে। যা একপর্যায়ে সংঘর্ষে রূপ নেয়। এতে উভয় পক্ষের নেতাকর্মীদের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। পরে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। দুপুর একটার দিকে মিন্টু-রুবেল সমর্থকরা শহরের জিরো পয়েন্ট এলাকায় আলোচনা অনুষ্ঠান শেষ করে বঙ্গবন্ধু চত্ত্বর এলাকায় পৃথক সভাস্থলে গেলে উভয় পক্ষের মধ্যে দ্বিতীয় দফায় সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এসময় জলঢাকা থানার উপ-পরিদর্শক মামুন-অর রশীদসহ পাঁচ পুলিশ সদস্য আহত হয়। অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. রুহুল আমিন বলেন, জলঢাকা উপজেলা শহরের শোক দিবসের কর্মসূচি পালন করাকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগের দুটি গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। পরিস্থিতি মোকাবেলায় ১৩ রাউন্ড টিয়ার সেল ও ১৫ রাউন্ড রাবার ব্যুলেট নিক্ষেপ করা হয়। এসময় পুলিশের একজন উপ পরিদর্শকসহ ৫ পুলিশ সদস্য আহত হয়। আহতদের মধ্যে উপ পরিদর্শক মামুন-আর রশীদকে উন্নত চিকিৎসার জন্য রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হয়েছে। অপর ৪ পুলিশ সদস্যকে জলঢাকা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। এ বিষয়ে পুলিশের পক্ষে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে বলেও জানান তিনি।

দুই গ্রুপের পাল্টাপাল্টি অভিযোগ ,
শোক দিবসের কর্মসূচিতে সংঘর্ষের ঘটনায় বিবাদমান ওই দুই গ্রুপের মধ্যে অভিযোগ পাল্টাপাল্টি। উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আনছার আলি মিন্টু গ্রুপের নেতাকর্মীদের অভিযোগ সাবেক এমপি অধ্যাপক গোলাম মোস্তফা সমর্থিত মান্নান-আশরাফ গ্রুপের নেতাকর্মী তাদের কর্মসূচি চলাকালে হামলা হালায়। অপরদিকে মান্নান-আশরাফ গ্রুপের নেতাকর্মীদের অভিযোগ, তাদের শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিতে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আনছার আলী মিন্টুর নেতৃত্বে হামলা চালিয়ে কর্মসূচি পন্ডু করে দেয়। তারা লাটিসহ বিভিন্ন ধারালো অস্ত্র হাতে নিয়ে ওই হামলা চালায়। এ বিষয়ে উপজেলা কৃষক লীগের সদস্য জলঢাকা পৌরসভার সাবেক মেয়র ইলিয়াস হোসেন বাবলু বলেন,‘সাবেক সংসদ সদস্য অধ্যাপক গোলাম মোস্তফাসহ আমি পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি আশরাফ হোসেনের নেতৃত্বে অনুষ্ঠিত কর্মসূচির অতিথি ছিলাম। বঙ্গবন্ধু ম্যুরালে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে আমাদের শোকসভা চলছিল। সেখানে সর্বস্থরের মানুষ উপস্থিত ছিলেন। এসময় উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আনছার আলী মিন্টুর নেতৃত্বে লাটিসহ ধারালো বিভিন্ন অস্ত্র হাতে আমাদের ওপর হামলা চালায়।’ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি আব্দুল মান্নান ওই হামলার জন্য উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আনছার আলী মিন্টুকে দায়ি করে বলেন,‘তারা পূর্ব পরিকল্পিতভাবে ওই হামলা চালায়। তাদের হামলায় অন্তত ১০ জন নেতাকর্মী আহত হয়েছেন।’ এ বিষয়ে কথা বললে, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আনছার আলী বলেন, “পুর্ব ঘোষিত কর্মসুচির অংশ হিসেবে আমরা দলীয় কার্যালয়ে পতাকা উত্তোলন করে ডালিয়া সড়কে একটি শোক র‌্যালী বের করি। র‌্যালীটি বঙ্গবন্ধু চত্তরে আসা মাত্র সাবেক সাংসদ গোলাম মোস্তফার নেতৃত্বে চার থেকে পাঁচ শত জামায়াত শিবিরের নেতাকর্মী আমাদের শোক র‌্যালীতে হামলা চালায়। এতে আমিসহ ২০ থেকে ২৫জন নেতাকর্মী আহত হয়েছে”। এ বিষয়ে সাবেক সাংসদ গোলাম মোস্তফা বলেন, তারা পুর্ব পরিকল্পিতভাবে লাঠি সোঠা ও ধারালো অস্ত্র নিয়ে আমাদের সভায় হামলা করেছেন। যা জলঢাকার হাজার হাজার মানুষ প্রত্যক্ষ করেছেন। #





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST