ঘোষনা:
শিরোনাম :
নীলফামারীতে পুলিশ সুপারের সাথে হিন্দু ধর্মালম্বীদের মতবিনিময় নীলফামারীতে সামাজিক-সম্প্রীতি সমাবেশ হয়েছে। ডিমলায় কৃষক সমাবেশ ও আলোচনা সভা নীলফামারীতে ডিজি কেয়ার ডায়াগনস্টিক সেন্টারে ভুল রিপোর্ট প্রদান, সিভিল সার্জনের কাছে লিখিত অভিযোগ। সাফের ইতিহাসে নতুন ইতিহাস গড়লেন সাবিনা কৃষ্ণারা ডিমলায় সড়ক দূঘর্টনায় ভিক্ষুকের মৃত্যু নীলফামারীতে চিরকুট লিখে আত্মহত্যা-স্বামী-সহ ৪ জনের নামে মামলা,স্বামী গ্রেফতার নীলফামারী সৈয়দপুরে পরিবারের অত্যাচারে সুইসাইড নোট লিখে গৃহবধূর আত্নহত্যা নীলফামারীতে বহুল প্রচারিত যুগের আলো পত্রিকার ৩০ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী। ডিমলায় সাংবাদিককে পেটালেন শিক্ষক স্বদেশ
পঞ্চগড়ে গোপনে জোত মনিরাম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৩০ টি গাছ কেটে বিক্রির অভিযোগ

পঞ্চগড়ে গোপনে জোত মনিরাম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৩০ টি গাছ কেটে বিক্রির অভিযোগ

পঞ্চগড় প্রতিনিধি ,
পঞ্চগড়ে বোদা উপজেলার ময়দানদিঘী ইউনিয়নের জোত মনিরাম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে ৩০ টি গাছ সরকারি বিধি না মেনে গোপনে বিক্রি করে দেয়ার অভিযোগ উঠেছে। ওই গাছগুলো কিনে নিয়েছেন তমিজ উদ্দিন নামের স্থানীয় এক কাঠ ব্যবসায়ী। রোববার ওই কাঠ ব্যবসায়ীর লোকজন বিদ্যালয়ের কিনে নেয়া গাছ কেটে নিয়ে যেতে শুরু করেছেন। বিনা কারণে বিদ্যালয়ের প্রায় ৪ লাখ টাকা মূল্যের বড় বড় ৩০ টি গাছ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়াই অল্প দামে বিক্রি করায় স্থানীয়দের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।
জানা যায়, সম্প্রতি জোত মনিরাম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোবারক আলী ও ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি কৃষ্ণ চন্দ্র রায় গোপনে বিদ্যালয়ের মাঠের চারপাশের সুশোভিত বড় বড় ইউক্যালিপটাস, কাঁঠাল ও বট গাছ বিক্রয় করার পরিকল্পনা করেন। জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস ও উপজেলা প্রশাসনের কোন অনুমতি না নিয়েই গোপনে তারা কেবল মাত্র ময়দানদিঘী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুল জব্বারকে অবহিত করেই বড় বড় আকৃতির ৩০ টি গাছ স্থানীয় কাঠ ব্যবসায়ী তমিজ উদ্দিনের কাছে বিক্রি করে দেন। প্রায় ৪ লাখ টাকা মূল্যের ওই গাছগুলো মাত্র ৮০ হাজার টাকায় বিক্রি করেছেন বলে দাবি করেন বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। কাঠ ব্যবসায়ীর লোকজন বিদ্যালয়ের কিনে নেয়া গাছ কাটতে আসলে বিষয়টি স্থানীয়দের নজরে আসে। বিদ্যালয় ভবন ও মাঠের চারপাশে ছায়া দেয়া গাছগুলো বিনা কারণে বিক্রি করে দেয়ায় বিস্মিত তারা।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ওই বিদ্যালয়ের এক অভিভাবক বলেন, গাছগুলো বিদ্যালয়ের চারপাশে ছায়া দিতো। প্রতিটি গাছের বয়স ১৪/১৫ বছর। বড় বড় গাছগুলো বিনা কারণে গোপনে বিক্রি করে টাকা আত্মসাতের পরিকল্পনা করছিল প্রধান শিক্ষক ও ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি। এতোগুলো গাছ বিক্রি হলো অথচ আমরা কেও জানলাম না।
ওই বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি কৃষ্ণ চন্দ্র রায় বলেন, বিদ্যালয় মাঠের চারপাশের গাছগুলোর কারণে পাশের জমির ফসলের ক্ষতি হচ্ছে। তাই তাদের আপত্তির কারণে গাছগুলো কাটার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।
জোত মনিরাম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোবারক আলী বলেন, ময়দানদিঘী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান অনুমতি নিয়ে আমরা গাছগুলো ৮০ হাজার টাকায় বিক্রি করে দিয়েছি।
ময়দানদিঘী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুল জব্বার বলেন, ওই বিদ্যালয়ের গাছগুলো তারা কাটবে বলে আমাকে জানিয়েছে। আমি বলেছি নিয়ম মেনে গাছগুলো যেন কাটা হয়।
জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা এ এম শাহজাহান সিদ্দিক বলেন, এ ঘটনায় বোদা উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মাসুদ হাসানকে তদন্ত করে সোমবারের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে। তদন্ত প্রতিবেদনের আলোকে সংশ্লিষ্ট বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
বোদা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সৈয়দ মাহমুদ হাসান বলেন, সরকারি বিধি না মেনে ওই প্রাথমিক বিদ্যালয়ের গাছ কাটার কথা শুনেছি। আমরা গাছগুলো জব্দ করার জন্য উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তাকে নির্দেশ দিয়েছি। গাছগুলো জব্দ করার পর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST