ঘোষনা:
নায়ক রাজ রাজ্জাকের দ্বিতীয় মৃত্যুবার্ষিকী আজ

নায়ক রাজ রাজ্জাকের দ্বিতীয় মৃত্যুবার্ষিকী আজ

 

বিনোদন ডেস্ক,

আজ নায়ক রাজ রাজ্জাকের দ্বিতীয় মৃত্যুবার্ষিকী। ২০১৭ সালের
এই দিনে অসংখ্য   ভক্তদর্শকদের কাঁদিয়ে চিরবিদায় নেন এ কিংবদন্তি
অভিনেতা। রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সন্ধ্যা ৬.১৩
মিনিটে মৃত্যুবরণ করেন।
চিত্রালীর সম্পাদক প্রয়াত আহমদ জামান চৌধুরী নায়ক রাজ্জাককে ‘নায়করাজ’
উপাধি দিয়েছিলেন। পূর্ববাংলা তথা বাংলাদেশের অভিনেতা হিসেবে রাজ্জাকের
সাফল্য ছিল ঈর্ষণীয়। তিনি বিভিন্ন চরিত্রে প্রতিনিয়ত সাবলীল অভিনয় করতে
পারতেন। শুধু রোমান্টিক নায়ক নয়, অ্যাকশন ও জীবনের গল্প পাওয়া যায় এমন
প্রায় সব বাঙালি চরিত্রের সঙ্গে হুবহু মিলিয়ে তাকে পাওয়া গেছে।
১৯৬৬ সালে মুক্তি পায় জহির রায়হান পরিচালিত চলচ্চিত্র ‘বেহুলা’। এ ছবিতে
অন্যতম কেন্দ্রীয় চরিত্রে ছিলেন রাজ্জাক। এ ছবি দিয়েই ঢাকাই চলচ্চিত্রে
দীর্ঘ অভিনয় জীবনের যাত্রা শুরু করেছিলেন তিনি। এরপর অসংখ্য হিট
চলচ্চিত্রে তাকে নায়ক হিসেবে  দেখা গিয়েছিল।
১৯৪২ সালের ২৩শে জানুয়ারি কলকাতায় তার জন্ম। ১৯৬৪ সালে কলকাতায়
হিন্দু-মুসলিম দাঙ্গার কারণে সপরিবারে ঢাকায় চলে আসেন তিনি। সে সময় তার
অভিনয় জীবনে সবচেয়ে বড় সুযোগটি দেন প্রখ্যাত চলচ্চিত্র পরিচালক জহির
রায়হান। ‘বেহুলা’ ছবির নায়কের চরিত্রে তিনি অভিনয় করান রাজ্জাককে। এরপর
আর পেছন ফিরে তাকাতে হয়নি এই মহানায়ককে। কয়েক দশকের অভিনয় জীবনে তিনি
‘জীবন থেকে নেয়া’, ‘অবুঝ মন’, ‘রংবাজ’, ‘আলোর মিছিল’, ‘অশিক্ষিত’,
‘অভিযান’, ‘মৌচোর’, ‘পাগলা রাজা’সহ প্রায় ৩০০টি বাংলা ও উর্দু চলচ্চিত্রে
অভিনয় করেছেন। এছাড়াও পরিচালনা করেছেন প্রায় ১৬টি চলচ্চিত্র। ‘বেহুলা’য়
লখিন্দরের ভূমিকায় অভিনয়ের সুযোগ পান তিনি। আর তার প্রথম নায়িকা ছিলেন
সুচন্দা। তিনি সুচন্দার পর শবনম, কবরী, ববিতা, শাবানাসহ তখনকার প্রায় সব
অভিনেত্রীকে নিয়ে একের পর এক ব্যবসাসফল চলচ্চিত্র উপহার দেন ঢালিউডকে।
এই কিংবদন্তির দ্বিতীয় মৃত্যুবার্ষিকীতে তাকে স্মরণ করছি গভীর শ্রদ্ধায়।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST