ঘোষনা:
শিরোনাম :
ডোমারে সন্ত্রাসী হামলার স্বীকার প্রতিবন্ধী পরিবার, মামলা তুলে নেওয়ার হুমকী প্রদান নীলফামারীতে জাতীয় দক্ষতামান বেসিক ট্রেড কোর্সকে কারিগরি শিক্ষাবোর্ডে চলমান রাখার দাবীতে মানববন্ধন। নীলফামারীতে দূর্গা পুজা মন্ডপ পরিদর্শন করেছেন রংপুর বিভাগীয় কমিশনার। ব্রাক্ষ্মণবাড়িয়ার নবীনগে দেশের অন্যতম মূর্তি তৈরী ও বিকিকিনি নীলফামারী সার্কেল অফিস এবং পুলিশ সুপার কার্যালয় পরিদর্শন নীলফামারী কমিটির পক্ষে পুরস্কার গ্রহণ করেন জেলা প্রশাসক খাগড়াছড়িতে ৬ষ্ঠ শ্রেনীর ছাত্রী ধর্ষনের অভিযোগে ২ যুবক আটক নীলফামারীতে পুলিশ সুপারের সাথে হিন্দু ধর্মালম্বীদের মতবিনিময় নীলফামারীতে সামাজিক-সম্প্রীতি সমাবেশ হয়েছে। ডিমলায় কৃষক সমাবেশ ও আলোচনা সভা
ডিমলায় অনুমতি না নিয়েই চেয়ারম্যান কর্তৃক হাটের গাছ কর্তনের চেষ্টা ।ইউ এন ও,র নির্দেশে গাছ কাটা বন্ধ।

ডিমলায় অনুমতি না নিয়েই চেয়ারম্যান কর্তৃক হাটের গাছ কর্তনের চেষ্টা ।ইউ এন ও,র নির্দেশে গাছ কাটা বন্ধ।

নীলফামারী প্রতিনিধি,
নীলফামারীর ডিমলায় দিন দুপুরে হাটের গাছ কর্তন করার সময় এলাকাবাসীা বাধার মুখে ডাল নিয়ে পালিয়েছেন গ্রাম পুলিশ,ইউপি সদস্যসহ চেয়ারম্যানের লোকজন।

উপজেলার গয়াবাড়ী ইউনিয়নের সুটিবাড়ী হাট বাজারের একটি ইউক্যালিপটাস গাছ ওই ইউনিয়নের ইউপি চেয়ারম্যান সামসুল হক প্রশাসনের অনুমতি না নিলেও তার কথা মত আনুমানিক ৫০হাজার টাকা মুল্যের ওই গাছটি কাটার সময় এলাকাবাসীর তোপের মুখে পড়েন উক্ত ইউপির ৪নং ওয়ার্ড ইউপি সদস্য সাফিউল ইসলাম সাবুল, গ্রাম পুলিশ মশিয়ার রহমান ও আব্দুর জব্বারসহ চেয়ারম্যানের লোকজন।
সরেজমিনে জানা যায়,উপজেলার গয়াবাড়ী ইউনিয়নের গয়াবাড়ী গ্রামের নুরল হকের পুত্র সফিকুল ইসলাম সরকারী গাছটির পাশে সুটিবাড়ী বাজারে ঔষধের দোকান করে আসছিল। ইউপি চেয়ারম্যান সামসুল হক ও ইউপি সদস্য সাফিউল ইসলাম সাবুলের সাথে গোপনে মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে চুক্তিবদ্ধ হয়ে গাছটি ঝুকিপুর্ন মর্মে কর্তন করার আবেদন করেন চেয়ারম্যানের কাছে। সেই সুযোগকে কাজে লাগিয়ে ইউপি চেয়ারম্যান সামসুল হক গাছটি ঝুকিপূর্ন দেখিয়ে প্রশাসনের অনুমতি না নিয়ে বৃহস্পতিবার(২২শে আগস্ট) গ্রাম পুলিশ ও উক্ত ইউপি সদস্যের উপস্থিতিতে কর্তন করার নির্দেশ প্রদান করে সটকে পড়েন।এক পর্যায়ে গাছটির বড়-ছোট সব ডালপালা কর্তন শেষে গাছটি কর্তন করতে গেলে প্রশাসনের হস্তক্ষেপে তা বন্ধ করতে বাধ্য হয়।
গ্রাম পুলিশ মশিয়ার রহমান বলেন, ইউপি চেয়ারম্যান সামসুল হকের নির্দেশ গাছটি কাটা হচ্ছিল। কিন্তু ইউএনও স্যার গাছটি কাটতে নিষেধ করায় তা বন্ধ করে দেয়া হয়। গয়াবাড়ী ইউপি চেয়ারম্যান সামসুল হক বলেন,উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার মৌখিক নির্দেশে গাছটি কর্তন করা হচ্ছিল।তিনিই আবার গাছ কাটার সময় মোবাইল ফোনে বন্ধ করার নির্দেশ প্রদান করায় গাছ কর্তন বন্ধ করা হয়েছে।তাছাড়া চেয়ারম্যান হিসেবে এই হাট ও হাটের গাছের মালিক আমি।পুর্বেও কয়েকটি গাছ কেটে গুদামে রাখা হয়েছে যা নিলামে বিক্রি করা হবে।এর আগেও হাটের ঝুকিপুর্ণ গাছ কাটার অনুমতি এনে দেবার কথা বলে উপজেলা ভুমি অফিসের সার্ফেয়ার রাব্বুল আল আমিন তারেক আমার কাছে ঘুষ বাবদ টাকা নিয়েও অনুমতি এনে দিতে না পেরে টাকা আত্মসাত করেছেন তাই আমি এবার ওসব ঝামেলায় যাইনি।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাজমুন নাহার বলেন, ইউপি চেয়ারম্যানকে গাছ কর্তনের নির্দেশ প্রদান করা হয়নি। এ বিষয়ে ইউনিয়ন ভুমি কর্মকর্তাকে বিনা অনুমতিতে গাছ কর্তনের অভিযোগ দেয়ার জন্য বলা হয়েছে। উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভুমি) নুর-ই আলম সিদ্দিকী বলেন, বিনা অনুমতিতে সরকারী গাছ কর্তনের অভিযোগে মামলা দায়ের করা হবে।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST