ঘোষনা:
শিরোনাম :
সীতাকুণ্ডে পুকুর থেকে যুবকের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।স্ত্রীকে আটক। চট্টগ্রামে করোনায় প্রাণ গেল এক চিকিৎসকের। কক্সবাজার সৈকতে আরও একটি মৃত তিমি ভেসে এসেছে । সাতক্ষীরায় করোনা মোকাবেলায় জেলা আওয়ামীলীগের উদ্যোগে মাস্ক বিতরণ। সাতক্ষীরায় দিনে ঘরে ঢুকে বন্ধুকে জবাই করে হত্যা ।হত্যাকারী পলাতক। খুলনা পিসিআর ল্যাবে ৬১ জন করোনা পজেটিভ শনাক্ত। নীলফামারীতে বাংলাদেশ সাম্যবাদী দলের মাস্ক বিতরণ কার্যক্রমের উদ্বোধন। কিশোরগঞ্জে বালুবোঝাই ট্রাক্টরের ধাক্কায় ইজিবাইকের ৫ যাত্রী আহত। নীলফামারীতে বুড়িখোড়া নদীর কোল ঘেঁষে সৌন্দর্য্যে মন্ডিত আলোকিত আলোর বাজার। দিনাজপুরে ‍‍‍‍‍” মানুষ মানুষের জন্য ” সংগঠনের উদ্দ্যোগে মাস্ক বিতরণ
জলঢাকায় ভিজিএফ চালের মামলায় তদন্তের ধীরগতির অভিযোগ ।

জলঢাকায় ভিজিএফ চালের মামলায় তদন্তের ধীরগতির অভিযোগ ।

ফাইল ছবি ।
জলঢাকা (নীলফামারী) প্রতিনিধি ,
নীলফামারীর জলঢাকায় ৬৩ মেঃ টন(২১১০বস্তা)ভিজিএফের চাল আটকের মামলার ২০ দিন পার হলেও তদন্তের দৃশ্যমান কোন অগ্রগতি নেই বলে অভিযোগ উঠেছে। এখন পর্যন্ত নামীয় দুই আসামীসহ ডিও সিন্ডিকেটের মুলহোতারা গ্রেফতার না হওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছে সংশ্লিষ্ট সুবিধাভোগী জনগণ। অভিযোগ উঠেছে, মামলা তদন্তের ধীরগতি ও মুল হোতাদের আড়াল করতে একটি প্রভাবশালী মহল উঠে পরে লেগেছে। ঘটনাটি ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করার চেষ্টা চালাচ্ছে তারা। বিভিন্ন ইউনিয়নের হতদরিদ্র সুবিধাভোগীর সাথে কথা হলে তারা জানান, দ্রুত বিচার নিস্পত্তি করে আটককৃত ভিজিএফ চাল বিতরণ করা হোক। এ ঘটনায় সরকারের ত্রাণ ও পূর্ণবাসন অধিদপ্তরের পরিচালক (ভিজিএফ) গিয়াস উদ্দিন এর নেতৃত্বে একটি তদন্ত টিম তদন্ত পরিচালনা করেন। এখন পর্যন্ত তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশ হয়নি বলে জানা গেছে। ভিজিএফ এর চাল আটকের চাঞ্চল্যকর এ ঘটনায় আসামী গ্রেফতার ও ডিও সিন্ডিকেটের মুল হোতাদের আইনের আওতায় না আনায় জনমনে দেখা দিয়েছে নানান প্রশ্নের? উপজেলার হতদরিদ্র মানুষের দাবী যারা আমাদের প্রাপ্য চাল যারা চুরি করে বিক্রি করেছে তদন্ত করে তাদের বিরুদ্ধে দ্রুত আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হউক। নাম প্রকাশ না করারশর্তে একাধিক চাল ব্যবসায়ী জানান, যে সব জনপ্রতিনিধি ও ডিও ব্যবসায়ী ভিজিএফ এর এই অবৈধ চালের কেনা-বেচা করেন। তাদের বিরুদ্ধে তদন্ত করে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহনের দাবী জানান তারা। অভিযুক্ত সিরাজুল ইসলাম (পাকা) ও আমজাদ হোসেন মোবাইল ফোনে সাংবাদিকদের কাছে বলেন, আমাদের ভাড়া করা গোডাউনে যে চাল পাওয়া গেছে, সেই চালের মালিক আমরা নই। আমাদের গোডাইমে কয়েকজন ব্যবসায়ী চালগুলো রেখেছেন মাত্র। আমাদের অন্যায় ভাবে মামলায় জড়ানো হয়েছে। আমরা ডিও ব্যবসা করি না। আসামী গ্রেফতার ও মামলার তদন্তে ধীরগতির বিষয়ে জানতে চাইলে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা জলঢাকা থানার ওসি (তদন্ত) ফজলুর রহমান বলেন, তদন্ত ও আসামী গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। মামলার অগ্রগতি বিষয়ে জানতে চাইলে বাদী উপজেলা ত্রাণ ও পূর্নবাসন কর্মকর্তা ময়নুল হক থানায় যোগাযোগ করেন বলে জানান। ঘটনার তদন্ত প্রসঙ্গে জেলা খাদ্য কর্মকর্তা কাজী সাইফুদ্দিন বলেন, ভিজিএফ পরিচালক এখন পযর্ন্ত কোন তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেননি তবে আটককৃত চাল আমরা নথিপত্র যাচাই করে দেখেছি যে, এগুলো সরকারী খাদ্য গুদাম থেকে সরবরাহ করা হয়নি। উল্লেখ্য, গত ৯ আগষ্ট গোপন সংবাদের ভিত্তিতে পৌর শহরের পুরাতন গরুহাটি এলাকায় দুইটি চালের গোডাউনে অভিযান চালিয়ে পবিত্র ঈদ-উল আযহায় গরিব দুঃস্থদের মাঝে বিনামূল্যে বিতরনের জন্য (ভিজিএফ) ৬৩ মেঃটন চাল আটক করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার সুজাউদ্দৌলা। পরে ওই গোডাউন দুটিতে সিলগালা করেন উপজেলা প্রশাসন। এ ঘটনায় পরদিন ২ চাল ব্যবসায়ীর নাম উল্লেখ করে থানায় একটি মামলা দায়ের করেন উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা ময়নুল হক। মামলা নং-১২,তারিখঃ ১০.০৮.১৯ইং।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST