ঘোষনা:
শিরোনাম :
পঞ্চগড়ে পুকুরের পানিতে ডুবে এক শিশুর মৃত্যু। ডিমলায় তিস্তার চরে ভুট্টার বাম্পার ফলন। সাতক্ষীরায় করোনায় আক্রান্ত ও উপসর্গ নিয়ে মেডিকেল হাসপাতালে নারীসহ দুই জনের মৃত্যু। বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির উপজেলা শাখা গঠনের আলোচনা সভা । নীলফামারীতে চাঁদা দিতে না পারায়,ঘরে অগ্নিসংযোগ জোড়পূর্বক মাছ চুরি। সৈয়দপুরের তিন শিক্ষার্থীর ভর্তি অনিশ্চিত মেডিকেল কলেজে । করোনা আক্রান্ত জননেতা বীর মুক্তিযোদ্ধা জয়নাল আবেদীন অনেকটা সুস্থ্য বোধ করছেন। লকডাউনে ১০টা -০১ টা পর্যস্ত খোলা থাকবে ব্যাংক সেবা। চাঁদ দেখা গেছে, বুধবার থেকে পবিত্র রমজান শুরু। শঙ্কিত হওয়ার কোনো কারণ নেই, সরকার সবসময় পাশে থাকবে;প্রধানমন্ত্রী।
গোবিন্দগঞ্জে হাফেজিয়া মাদ্রাসা ও বসতবাড়ি সংলগ্ন জমিতে অবৈধ “ছ” মিল উচ্ছেদ করতে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা।

গোবিন্দগঞ্জে হাফেজিয়া মাদ্রাসা ও বসতবাড়ি সংলগ্ন জমিতে অবৈধ “ছ” মিল উচ্ছেদ করতে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা।

গাইবান্ধা প্রতিনিধি,

গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জে কুঞ্জনাকাই গ্রামে কুঞ্জনাকাই হাফেজিয়া মাদ্রাসা ও বসতবাড়ি সংলগ্ন জমিতে অবৈধ “ছ” মিল উচ্ছেদ করতে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন ভুক্তভোগী প্রতিবেশীসহ সুশীল সমাজের ব্যক্তিবর্গরা।
ভুক্তভোগী পরিবারের অভিযোগ, হাফেজিয়া মাদ্রাসা ও বাসা-বাড়ির সাথে অবৈধ ছ’ মিল স্থাপনের কারনে এর বিকট শব্দে শিশুসহ পরিবারে সকলেই শব্দদুষনের আক্রান্ত হচ্ছে।এতে শিশুদের সুস্থ্য স্বাভাবিক বেড়ে ওঠা চরম হুমকীর মুখে পড়েছে । এ বিষয়ে ভুক্তভোগী প্রতিবেশির পক্ষে ইউনিনের সাবেক ইউ,পি সদস্য আমিরুল ইসলাম সরকার বাদশা মেম্বরের পুত্র মোঃ রেজাউল করিম সরকার বলেন,”আমার বাসা সংলগ্ন উত্তর পাশে’র জমিতে কুঞ্জনাকাই গ্রামের মৃত আব্দুল গনি প্রধানের পুত্র জয়নাল হক প্রধান ও আয়নাল হক প্রধান উভয় মিলে রামপুরা গ্রামের তৃতীয় ব্যক্তি মোঃ মমতাজ মিয়ার যোগসাজসে অবৈধভাবে একটি ছ’মিল স্থাপন করেছে। উক্তস্থানে ছ’মিল স্থাপন করায় শব্দ-দূষন, গুড়ো-ধূলোয় জনজীবন বসবাসের অযোগ্য হয়ে পড়েছে। শুধু তাই নয় এই ছ’মিলের কারনে আশপাশ গ্রামে ও রাস্তার অল্পবয়সী গাছ কর্তন করে পরিবেশের মারত্মক বিপর্যয় ঘটাচ্ছে। গত ৮ আগস্ট উপজেলা নির্বাহী অফিসে উপ্সথিত হয়ে এই ছ’মিল উচ্ছেদে তদন্ত সাপেক্ষ প্রশানের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেন’।
আজ ১ ই সেপ্টেম্বর রবিবার সকালে সরেজমিনে গিয়ে কুঞ্জনাকাই হাফেজিয়া মাদ্রাসা সংলগ্ন বসতবাড়ির সাথে একটি ছ’মিল চালু থাকতে দেখা যায়। এই মিলের বিকট শব্দ মাদ্রাসায় পড়ুয়া ছাত্রদের প্রতি পড়াশুনায় ব্যাপক নেতিবাচক প্রভাব ফেলছে।
এলাকাবাসীর অভিযোগ ছ’মিলের বিকট শব্দে ছেলেমেয়েরা সময়মতো পড়াশুনা করতে পারছে না। দিনরাত মিল চালু থাকায় রাতে ঠিকমত ঘুমাতেও পারছেন না তারা ।
সুশীল সমাজের দাবী,অবিলম্বে এই অবৈধ ছ’মিল উচ্ছেদ করে কোমলপ্রাণ শিশুদের পড়াশোনা,সুস্থ্য স্বাভাবিক বেড়ে ওঠা নিশ্চিত করাসহ পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় প্রশাসন গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করবে।
এদিকে এবিষয়ে ছ’মিলের মালিক পক্ষের সাথে কথা বললে তারা বলেন ‘এখানে আমরা ব্যবসা করি।আমাদের ব্যবসার প্রতি ক্ষীপ্ত হয়ে এলাকার কিছু লোক আমার বিরুদ্ধাচরণ করছে।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST