ঘোষনা:
টাকার অভাবে মৃত্যুর দিনক্ষণ গুনছে ক্যান্সার আক্রান্ত সবুজ মিয়া। ক্যান্সার আক্রান্ত সবুজকে বাঁচাতে সাহায্যে কামনা করছে ইউপি চেয়ারম্যান জুয়েল চৌধুরী ।

টাকার অভাবে মৃত্যুর দিনক্ষণ গুনছে ক্যান্সার আক্রান্ত সবুজ মিয়া। ক্যান্সার আক্রান্ত সবুজকে বাঁচাতে সাহায্যে কামনা করছে ইউপি চেয়ারম্যান জুয়েল চৌধুরী ।

রতন কুমার রায়, স্টাফ রিপোর্টার,
প্রকৃতির চিরাচরিত প্রথায় নিয়মিত নানান ঘটনার সাক্ষী আজকের এই সমাজ ব্যবস্থা। তেমনি এক মমতাময়ী মা ক্যান্সার আক্রান্ত সন্তানের চিকিৎসার খরচ যোগাড় করতে না পেরে আত্মহুতি দিয়ে কালের সাক্ষী হয়ে রইলেন নিষ্ঠুর এই সমাজ ব্যবস্থায়। প্রিয় সন্তান চোখের সামনে মৃত্যু বরণ করবেন এ কথা কোন ভাবেই মেনে নিতে পারছেন না নীলফামারী জেলার সৈয়দপুরের ৫নং খাতা মধুপুর ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডের খামাত পাড়া গ্রামের দিনমজুর মনারুল ইসলামের স্ত্রী ছাবিনা বেগম(৪৫)। মনারুল-ছাবিনা দিনমজুর দম্পতির ৫ সন্তানের মধ্যে দুই মেয়ে ও এক ছেলের বিয়ে দিয়ে সুখেই দিন কাটছিলো। হঠাৎ একমাস পূর্বে বড় ছেলে সবুজ মিয়া অশ্ব(পাইলস্) রোগে আক্রান্ত হয়। প্রাথমিক ভাবে গ্রাম্য কবিরাজী গাছ-গাছড়ার চিকিৎসা করে। কবিরাজী চিকিৎসায় তেমন ফলপ্রসু না হলে রংপুর মেডিকেল হাসপাতালে ও পরে এক প্রাইভেট হাসপাতালে ভর্তি করায়। সেখানে চিকিৎসারত অবস্থায় ডাক্তার পরিক্ষা নিরিক্ষা করার পর অশ্ব ক্যান্সার ধরা পরে। ডাক্তার দ্রুত অপারেশন করাতে বলেন। দিনমজুর পরিবার অপারেশন করার কথা শুনে কান্নায় ভেঙ্গে পড়ে। ডাক্তারের কাছে অপারেশনের খরচের ধারনা চাইলে ডাক্তার আনুমানিক ৫/৬ লক্ষ টাকা খরচ হতে পারে বলে জানায়। চিকিৎসার জন্য প্রয়োজন টাকার। সেই পরিমান টাকার কথা শুনে মাথায় যেন আকাশ ভেঙ্গেঁ পড়লো সবুজের গর্ভধারিণী মা ছাবিনা বেগমের। এতোটাকা কোথায় পাবেন তিনি। ইতিপূর্বে চিকিৎসা বাবদ খরচ হয়েছে ৫০হাজার টাকা। এখন ভিটেমাটি ছাড়া আর কিছুই নেই। বড় হতাশায় পড়েন তিনি ,ছেলেকে বাঁচাতে হলে টাকা প্রয়োজন কিন্তু অনেকগুলো টাকা যোগাড় করা তার পক্ষে কোন ক্রমেই সম্ভব নয়,এমন হতাশা নিয়ে ৩১আগস্ট সন্ধ্যা আনুমানিক ৭ টা থেকে ৮ টার মধ্যে নিজ বাড়ীতে সবার অজান্তে বিষ পান করে। পরিবারের লোকজন টের পেয়ে চিকিৎসার জন্য রংপুর মেডিকেল নিয়ে যাওয়ার মাঝ পথে মৃত্যু বরণ করে। ক্যান্সার আক্রান্ত ছেলের চিকিৎসা খরচ যোগাতে ব্যর্থ এক হতাশাগ্রস্থ মমতাময়ী মা।নিজেকে শেষ করে দিলেন। মায়ের কবর দিয়ে চিকিৎসার খরচ যোগাড় করতে না পেরে নিজ বাড়ীতে মৃত্যুর দিনক্ষণ গুনছে অশ্ব ক্যান্সার আক্রান্ত সবুজ মিয়া। সবুজ মিয়ার নিরবতাই বলে দিচ্ছে তার অসহায়ত্বের কথা। এ ব্যাপারে খাতা মধুপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জুয়েল চৌধুরী জানান, সবুজের মায়ের আত্মহত্যার খবর পেয়ে তার বাড়ীতে ছুটে যাই। বড় মর্মান্তিক ঘটনা,মায়ের ভালোবাসার কাছে সন্তানের মৃত্যু যেন নত স্বীকার করলো। এখন ক্যান্সার আক্রান্ত সবুজকে বাঁচাতে হবে ! আপনাদের মাধ্যমে সমাজের স্বহৃদয়বান ব্যক্তিবর্গের কাছে ক্যান্সার আক্রান্ত সবুজকে বাঁচাতে সাহায্যে কামনা করছি।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST