ঘোষনা:
শিরোনাম :
নীলফামারীতে পুলিশকে ব্যবহার করে জোরপূর্বক অন্যের জমি দখল নীলফামারীতে জোরপূর্বক মসজিদের সভাপতি হওয়ার পায়তারা, মুসল্লীদের মানববন্ধন। ডিমলায় সরকারী সেবা জনগনের দোরগোড়ায় দিতে চান ইউএনও উম্মে সালমা নীলফামারীতে পবিত্র ঈদুল আযহায় জেলা পুলিশের উৎসব সাতক্ষীরার শ্যামনগরে আত্মসমর্পনকারী বনদস্যুর মাঝে ঈদ উপহার সাতক্ষীরার দুটি উপজেলায় ভূমিহীন ও গৃহহীনদের চাবী ও দলিল দিয়ে ভূমিহীন ও গৃহহীন মুক্ত ঘোষণা নীলফামারীতে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার ও জমির মালিকানা বহালে সংবাদ সম্মেলন মিথ্যা প্রলোভনে পাহাড়ের নারীদের পাচার করছে একটি সংবদ্ধ চক্র সাতক্ষীরায় ভাঙান মাছ চাষ পদ্ধতি ও ব্যবস্থাপনা বিষয়ক কর্মশালা গ্রামীণব্যাংকের সেবার মান বাড়ানোর প্রতিশ্রুতি,
পঞ্চগড়ে ইউপি চেয়ারম্যানের সংবাদ সম্মেলন।

পঞ্চগড়ে ইউপি চেয়ারম্যানের সংবাদ সম্মেলন।

পঞ্চগড় প্রতিনিধি ,
পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়া উপজেলার বাংলাবান্ধা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানসহ তার লোকজনদের নামে মিথ্যা মামলাসহ বিভিন্নভাবে হয়রানির অভিযোগ উঠেছে। জিনাত আরা রোকেয়া চৌধুরী ও পাথর ব্যবসায়ী আব্দুল হামিদ নামে দুই প্রভাবশালী বাংলাবান্ধা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান কুদরত ই খুদা মিলনসহ তার লোকজনদের নামে একাধিক মিথ্যা মামলাসহ বিভিন্নভাবে হয়রানি করে আসছেন।
এরই প্রতিবাদে বাংলাবান্ধা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান কুদরত ই খুদা মিলনসহ তার লোকজন সোমবার দুপুরে বাংলাবান্ধা ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করেন।
সংবাদ সম্মেলনে ইউপি চেয়ারম্যান লিখিত বক্তব্যে বলেন, ১৯৯৭ সালে বগুড়ার ময়নুল হক সুলতানসহ আরও কয়েকজন তেঁতুলিয়া উপজেলার ঝাড়–য়াপাড়া গ্রামের মফিজ উদ্দীনের ছেলে আব্দুস সাত্তারের নিকট হতে বগুড়ার ময়নুল হক সুলতান গং ১৯৯৭ সালে ৩১৮ নং দলিল মূলে মালিক হন। জমির দখল বুঝে দেয়ার পর জমির মালিক ময়নুল সুলতান গং ওই জমি রক্ষনাবেক্ষণ করার জন্য জমির দাতা আব্দুস সাত্তারকে দায়িত্ব দিলে তিনি ওই জমিতে চাষাবাদ করে আসছেন। পরবর্তিতে তেঁতুলিয়ার দেবনগর এলাকার বালুবাড়ি গ্রামের আব্দুল জব্বারের ছেলে আব্দুল হামিদ বাংলাবান্ধায় পাথর ব্যবসা করার জন্য গত এক বছর আগে আব্দুস সাত্তারের নিকট হতে ৮৮ দাগের ৪০ শতক জমি ভাড়া নেন। ওই জমি ভাড়া নেয়ার পর আব্দুল হামিদ আব্দুস সাত্তারকে বিভিন্নভাবে প্রলোভন দেখিয়ে তার কাছ থেকে আবারও ৪০ শতক জমি সাব রেজিষ্ট্রি করে নিয়ে ওই জমিতে ঘর উত্তোলণ করেন। চলতি বছরের ৫ ফেব্রুয়ারি জমির মূল মালিক ময়নুল হক সুলতান গং ওই জমি বাংলাবান্ধা ইউপি চেয়ারম্যান কুদরত ই খুদা মিলনের সহযোগিতায় স্থানীয় সাইদুল ইসলাম, আজিজার রহমান ও তহিদল হকের কাছে বিক্রয়ের জন্য বায়নামা রেজিষ্ট্রি করে দেন। এর পর থেকেই আব্দুল হামিদ একের পর এক মিথ্যা মামলাসহ নানাভাবে হয়রানি করছেন। জমিটি সুকৌশলে দখলে নিতে আব্দুল হামিদ ইউপি চেয়ারম্যান কুদরত ই খুদা মিলনসহ জমির বায়নামা করা গৃহিতাদের বিরু্েদ্ধ একাধিক মিশ্যা মামলা আনয়ন করেন। বার বার মিথ্যা মামলা, মিথ্যা অভিযোগসহ নানা ঞুমকি ধামকি দিয়ে আসছেন। বিষয়টিতে ভুক্তভোগীরা প্রধানমন্ত্রীর সুদৃষ্টি কামনা করেছেন।
সংবাদ সম্মেলনে এলাকার বাসিন্দা আজিজার রহমান, সাইফুল ইসলাম, তহিদুল হক, শাহজাহান আলী, আতাউর রহমান, সাবুল, আবু কালাম, আব্দুর রশিদ, আমিরুল ইসলামসহ এলাকাবাসীরা উপস্থিত ছিলেন।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST