ঘোষনা:
শিরোনাম :
সাতক্ষীরায় প্রেমিকার বাড়ীতে নির্মম নির্যাতনের শিকার টেক্সটাইলস ইঞ্জিনিয়ার রংপুরে ক্যামেরায় কথা বলছে, গ্রামীন জনপদের ফরিদপুরে বাস পিক-আপ মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ১২, আশঙ্কাজনক ৩ পহেলা বৈশাখে বর্ণিল উৎসবে মেতেছে নীলফামারী সাতক্ষীরায় ভিডিও কলে রেখে ঘরে গলায় ফাঁস দিয়ে বিউটিশিয়ানের আত্মহত্যা নীলফামারীতে ঘোড়ার প্রতি পাকে,পরিবারে জীবনের গল্পটা কস্টের নীলফামারীতে কর্মসংস্থান কর্মসূচি প্রকল্পের কাজের উদ্বোধন ঈদে বাড়ি ফেরা হলো না, শিশু সন্তান সহ পরিবারের  ঈদে ৫ দিন বন্ধের পরে, সাতক্ষীরা স্থলবন্দরে আমদানী-রপ্তানী শুরু, কর্মচাঞ্চল্য বাগেরহাটে পুকুরে স্যাটেলাইট কুমির উদ্ধার, অবমুক্ত সুন্দরবনে
জলঢাকায় সঃপ্রাঃ বিদ্যালয়ে জাতীয় শোক দিবস পালন না করা ও অর্থ আত্নসাতের তদন্ত ।

জলঢাকায় সঃপ্রাঃ বিদ্যালয়ে জাতীয় শোক দিবস পালন না করা ও অর্থ আত্নসাতের তদন্ত ।

 নীলফামারী প্রতিনিধি,

নীলফামারী জলঢাকার পশ্চিম খুটামারা ৪নং সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ২০১৮-১৯ অর্থ বছরের শ্লিপ, রুটিন মেইন্টেইন, প্রাক ও দূর্যোগ এর বরাদ্দকৃত টাকার আত্নসাত এবং ১৫ আগষ্ট  বাঙ্গালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৪তম শাহাদাত বার্ষিকী পালন না করার অভিযোগ অভিযোগ উঠেছে প্রধান শিক্ষিকা লতিফা ইয়াসমিন মুনমুনের বিরুদ্ধে। যার ফলে, গত ২৯ আগষ্ট উক্ত বিদ্যালয়ের প্রায় শতাধিক অভিভাবক ও স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিরা সুষ্টতার মাধ্যমে সঠিক তদন্তের জন্য উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা প্রশাসনের কাছে তাদের স্বাক্ষরিত একটি লিখিত অভিযোগ দাখিল করে। এরেই পরিপেক্ষিতে বৃহস্পতিবার (১৯ সেপ্টেম্বর) দুপুরে স্কুল চলাকালীন উভয় পক্ষের উপস্থিতিতে প্রায় ঘন্টাব্যাপী তদন্ত করেন, সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার (এটিও) মোঃ আতাউল গণি ওসমানী ও দিলীপ কুমার সরকার।

প্রধান শিক্ষিকার বিরুদ্ধে শিক্ষার্থীদের উপবৃত্তির টাকা উত্তোলন করে বিভিন্ন অজুহাত দেখিয়ে নিজের পকেট ভারী, নিয়মিত পাঠদানের অনিয়ম ও সরকারি বরাদ্দকৃত বিভিন্ন প্রকল্পের  নামে মাত্র কাজ দেখিয়ে টাকা আত্নসাতেরও অভিযোগ পাওয়া গেছে। অভিযোগকারীদের মতে জানা যায়, প্রধান শিক্ষিকা জামাত সমর্থিত পরিবারের কন্যা ও বিএনপি নেতার স্ত্রী হওয়ায়, স্বাধীনতার মহান স্থপতি, বাঙ্গালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৪তম শাহাদত বার্ষিকী, জাতীয় শোক দিবস পালন না করায় সরকারি আদেশ অমান্য করে।
অভিযোগকারী শফিকুল ইসলাম, লুৎফর রহমান, মেহেরাজ হোসেন, রওশন আলী, সোহেল, রফিকুল ইসলাম ও সালফী সহ অনেকে সাংবাদিকদের বলেন, প্রধান শিক্ষিকা স্থানীয় বাসিন্দা হওয়ায় বিদ্যালয়ে পাঠদানের ব্যাহত হচ্ছে। তারা জানায়, ঐ শিক্ষিকার স্বামী একজন প্রভাবশালীত্ব চতুর্ভুজ মানুষ। স্কুলে তার ঘটকালীতার কারনেই জাতীয় শোক দিবস-২০১৯ এর কর্মসূচী ভেস্তে যায়। প্রধান শিক্ষকের এমন দূঃসাহসী কর্মকান্ডের জন্য সুষ্ঠু বিচার ও দ্রুত বদলির দাবী জানায়।
অভিযোগ অস্বীকার করে প্রধান শিক্ষিকা লতিফা ইয়াসমিন মুনমুন বলেন, আমরা যথা সময়ে জাতীয় শোক দিবস, নিয়ম অনুযায়ী পালন করেছি। স্কুল উন্নয়নের জন্য নিজেস্ব উদ্যোগে অনেক কিছু করেছি। সরকারি যে বরাদ্দ পেয়েছি সঠিকভাবে কাজ করিয়েছি।
 তদন্তকারী কর্মকর্তা, সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার আতাউল গণি ওসমানী বলেন, আমরা সরেজমিনে উভয় পক্ষের উপস্থিতিতে তদন্ত করেছি, কয়েকদিনের মধ্যে সঠিক প্রতিবেদন জমা দিবো ।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST