ঘোষনা:
শিরোনাম :
পঞ্চগড়ে পুকুরের পানিতে ডুবে এক শিশুর মৃত্যু। ডিমলায় তিস্তার চরে ভুট্টার বাম্পার ফলন। সাতক্ষীরায় করোনায় আক্রান্ত ও উপসর্গ নিয়ে মেডিকেল হাসপাতালে নারীসহ দুই জনের মৃত্যু। বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির উপজেলা শাখা গঠনের আলোচনা সভা । নীলফামারীতে চাঁদা দিতে না পারায়,ঘরে অগ্নিসংযোগ জোড়পূর্বক মাছ চুরি। সৈয়দপুরের তিন শিক্ষার্থীর ভর্তি অনিশ্চিত মেডিকেল কলেজে । করোনা আক্রান্ত জননেতা বীর মুক্তিযোদ্ধা জয়নাল আবেদীন অনেকটা সুস্থ্য বোধ করছেন। লকডাউনে ১০টা -০১ টা পর্যস্ত খোলা থাকবে ব্যাংক সেবা। চাঁদ দেখা গেছে, বুধবার থেকে পবিত্র রমজান শুরু। শঙ্কিত হওয়ার কোনো কারণ নেই, সরকার সবসময় পাশে থাকবে;প্রধানমন্ত্রী।
জলঢাকায় সঃপ্রাঃ বিদ্যালয়ে জাতীয় শোক দিবস পালন না করা ও অর্থ আত্নসাতের তদন্ত ।

জলঢাকায় সঃপ্রাঃ বিদ্যালয়ে জাতীয় শোক দিবস পালন না করা ও অর্থ আত্নসাতের তদন্ত ।

 নীলফামারী প্রতিনিধি,

নীলফামারী জলঢাকার পশ্চিম খুটামারা ৪নং সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ২০১৮-১৯ অর্থ বছরের শ্লিপ, রুটিন মেইন্টেইন, প্রাক ও দূর্যোগ এর বরাদ্দকৃত টাকার আত্নসাত এবং ১৫ আগষ্ট  বাঙ্গালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৪তম শাহাদাত বার্ষিকী পালন না করার অভিযোগ অভিযোগ উঠেছে প্রধান শিক্ষিকা লতিফা ইয়াসমিন মুনমুনের বিরুদ্ধে। যার ফলে, গত ২৯ আগষ্ট উক্ত বিদ্যালয়ের প্রায় শতাধিক অভিভাবক ও স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিরা সুষ্টতার মাধ্যমে সঠিক তদন্তের জন্য উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা প্রশাসনের কাছে তাদের স্বাক্ষরিত একটি লিখিত অভিযোগ দাখিল করে। এরেই পরিপেক্ষিতে বৃহস্পতিবার (১৯ সেপ্টেম্বর) দুপুরে স্কুল চলাকালীন উভয় পক্ষের উপস্থিতিতে প্রায় ঘন্টাব্যাপী তদন্ত করেন, সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার (এটিও) মোঃ আতাউল গণি ওসমানী ও দিলীপ কুমার সরকার।

প্রধান শিক্ষিকার বিরুদ্ধে শিক্ষার্থীদের উপবৃত্তির টাকা উত্তোলন করে বিভিন্ন অজুহাত দেখিয়ে নিজের পকেট ভারী, নিয়মিত পাঠদানের অনিয়ম ও সরকারি বরাদ্দকৃত বিভিন্ন প্রকল্পের  নামে মাত্র কাজ দেখিয়ে টাকা আত্নসাতেরও অভিযোগ পাওয়া গেছে। অভিযোগকারীদের মতে জানা যায়, প্রধান শিক্ষিকা জামাত সমর্থিত পরিবারের কন্যা ও বিএনপি নেতার স্ত্রী হওয়ায়, স্বাধীনতার মহান স্থপতি, বাঙ্গালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৪তম শাহাদত বার্ষিকী, জাতীয় শোক দিবস পালন না করায় সরকারি আদেশ অমান্য করে।
অভিযোগকারী শফিকুল ইসলাম, লুৎফর রহমান, মেহেরাজ হোসেন, রওশন আলী, সোহেল, রফিকুল ইসলাম ও সালফী সহ অনেকে সাংবাদিকদের বলেন, প্রধান শিক্ষিকা স্থানীয় বাসিন্দা হওয়ায় বিদ্যালয়ে পাঠদানের ব্যাহত হচ্ছে। তারা জানায়, ঐ শিক্ষিকার স্বামী একজন প্রভাবশালীত্ব চতুর্ভুজ মানুষ। স্কুলে তার ঘটকালীতার কারনেই জাতীয় শোক দিবস-২০১৯ এর কর্মসূচী ভেস্তে যায়। প্রধান শিক্ষকের এমন দূঃসাহসী কর্মকান্ডের জন্য সুষ্ঠু বিচার ও দ্রুত বদলির দাবী জানায়।
অভিযোগ অস্বীকার করে প্রধান শিক্ষিকা লতিফা ইয়াসমিন মুনমুন বলেন, আমরা যথা সময়ে জাতীয় শোক দিবস, নিয়ম অনুযায়ী পালন করেছি। স্কুল উন্নয়নের জন্য নিজেস্ব উদ্যোগে অনেক কিছু করেছি। সরকারি যে বরাদ্দ পেয়েছি সঠিকভাবে কাজ করিয়েছি।
 তদন্তকারী কর্মকর্তা, সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার আতাউল গণি ওসমানী বলেন, আমরা সরেজমিনে উভয় পক্ষের উপস্থিতিতে তদন্ত করেছি, কয়েকদিনের মধ্যে সঠিক প্রতিবেদন জমা দিবো ।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST