ঘোষনা:
শিরোনাম :
চট্টগ্রামে মাসব্যাপী মশক নিধন কার্যক্রমের উদ্বোধন ঝিনাইদহে করোনায় ২ জনের মৃত্যু, আক্রান্ত ৭৭ সেন্টমার্টিন গামী যাত্রীবাহী দুটি ট্রলার সাগরের ডুবোচরে আটকা,১০ ঘন্টা পর উদ্ধার ডোমারে করোনা ও শ্বাসকষ্ট রোগীদের জন্য অক্সিজেন সিলিন্ডার দিলেন,প্রবাসী নারী কিশোরগঞ্জে শহীদ ক্যাপ্টেন শেখ কামাল এঁর জন্মবার্ষিকী পালনে প্রস্তুতিমূলক সভা নীলফামারীর ডোমারে গৃহবধূঁকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগ,বিচার চেয়ে এলাকাবাসীর মিছিল ডোমারে সঠিক নিয়মে মাস্ক পরিধানের প্রচারণা ও মাস্ক বিতরণ পঞ্চগড়ে এক মাদক ব্যবসায়ীকে গাঁজাসহ গ্রেফতার করেছে র‌্যাব ১৩, সিপিসি-২, নীলফামারী জলঢাকায় ৫ম শ্রেণীর ছাত্রী ধর্ষন, ধর্ষক গ্রেফতার ডোমার প্রেসক্লাবের কমিটি ,মোজাফ্ফর সভাপতি, রওশন সম্পাদক
নীলফামারীর প্রতারক আব্দুল মজিদ মাষ্টার এখন জেলে।

নীলফামারীর প্রতারক আব্দুল মজিদ মাষ্টার এখন জেলে।

নীলফামারী প্রতিনিধি,
বিভিন্নজনকে চাকুরী দেয়ার নামে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগে প্রতারক আব্দুল মজিদকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। বুধবার ((১৮সেপ্টেম্বর) দুপুরে শহরের সার্কিট হাউজ পাড়া এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয় এবং বিকেলে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরন করা হয়। প্রতারক আব্দুল মজিদ নীলফামারী শহরের নিউ বাবুপাড়া এলাকার বাসিন্দা ও শহীদ জিয়া বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের অবসরপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক।
অভিযোগে জানা গেছে, নীলফামারী বড় বাজার এলাকার ইসরাফিল হোসেনের ছেলে মোরশেদ আজম উত্তর চওড়া বড়গাছা স্কুল এন্ড কলেজের কম্পিউটার প্রদর্শক। মন্ত্রনালয় থেকে তার বেতন বিল করে এনে দেয়ার অঙ্গীকারে বিগত ’১৪সালের ২মে আড়াই লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়। দীর্ঘদিনেও তার বেতন বিল করে দিতে না পারায় তার কাছে টাকা ফেরত চাওয়া হলে ক্ষুব্ধ হয়ে নানাভাবে হুমকি দেয়। এমনকি সন্ত্রাসী দিয়ে হত্যার পর লাশ গুম করারও হুমকি দেয়। অবশেষে বাধ্য হয়ে নীলফামারী থানায় তার বিরুদ্ধে একটি অভিযোগ দাখিল করে। সম্প্রতি পুলিশ তাকে আটক করলে গত ১৫ সেপ্টেম্বর পাওনা টাকা পরিশোধের অঙ্গীকারে মুচলেকা দিয়ে থানা থেকে ছাড়া পায়। মুচলেকা অনুযায়ী টাকা পরিশোধ না করায় বুধবার দুপুরে পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করে।
তার গ্রেপ্তারের খবর ছড়িয়ে পড়লে প্রতারনার শিকার আরও সাত/আটজন থানায় গিয়ে হাজির হয়। তারাও মামলা করার প্রস্তুতি নিচ্ছে বলে জানা গেছে।
প্রতারক আব্দুল মজিদের বিরুদ্ধে নিজ প্রতিষ্ঠানসহ বিভিন্ন দপ্তরে চাকরী দেয়ার নামে অবসরে গিয়েও বিভিন্ন সময়ে প্রায় ১০জন শিক্ষিত বেকার যুবক-যুবতীর কাছ থেকে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়ার বিস্তর অভিযোগ উঠেছে। তাঁর প্রতারণায় চাকরি তো দুরের কথা, ফেরত পাচ্ছেন না শত চেস্টাতেও প্রদত্ত অর্থ। উল্টো বাহুবলে হুমকি ও ভয়ভীতি প্রদর্শন করছেন। ফলে তাঁর প্রতারনার ‘খুঁটির জোর’ কোথায় এ নিয়ে উঠেছে নানান প্রশ্ন।
এছাড়া, ওই শিক্ষক কর্মরত অবস্থায় সমস্ত নিয়োগ নীতিমালা লংঘন করে তাঁর দু’জামাতা জোবায়দুর রহমান ও ছাইদুর রহমান এবং মেয়ে শামীমা আক্তার বানুকে দিয়েছেন নিয়োগ স্বীয় প্রতিষ্ঠানে।
শিক্ষা মন্ত্রণালয় ও স্থানীয় থানায় লিখিত অভিযোগ থেকে জানা গেছে, নীলফামারী সদর উপজেলার দারোয়ানী গ্রামের আলাউদ্দিন শাহ্’র ছেলে ফজলার রহমান শাহ, বাবুপাড়ার সখি উদ্দিনের ছেলে গোলাম সারওয়ার মির্জাকে বিভিন্ন সময়ে নিজ প্রতিষ্ঠানে সহকারী শিক্ষক পদে নিয়োগ দিয়ে হাতিয়ে নেন দশ লাখ টাকা। পরে বিভিন্ন ছল-ছুতোয় ওই দু’জনকে বহিস্কার করে নতুন নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দিয়ে আরো সাতজনের কাছ থেকে হাতিয়ে নেন প্রায় ৩৫লাখ টাকা। পরবতীতে ডিমলার উপজেলার খালিশাচাপানী ইউনিয়নের কাঁকড়া বাজার গ্রামের এবিএম আব্দুল জব্বারের ছেলে আব্দুল মজিদকে সহকারী শিক্ষক পদে পাচ লাখ টাকা এবং নীলফামারী সদরের শাহীপাড়ার সবনম আক্তারীকে শরীর চর্চা শিক্ষক পদে শূণ্য পদে চাকরী দেয়ার কথা বলে এক লাখ ৫০হাজার টাকা হাতিয়ে নেন।
অপরদিকে, কিশোরগঞ্জের পুটিমারী ইউনিয়নের কালিকাপুর গ্রামের হালিমুর রশিদ যাদুর স্ত্রী কালিকাপুর স্কুল এন্ড কলেজের বিএসসি বাইলোজি শিক্ষিকা রোকাইয়া আক্তারের পদটিকে বিল/এমপিও করার জন্য নেন চার লাখ ২৫হাজার টাকা। কিশোরগঞ্জ উপজেলার ভেড়ভেড়ী মাঝপাড়ার একরামুল হকের ছেলে মো. খালেকুজ্জামান ও সদরের দেবীডাঙ্গা গ্রামের ক্ষিতেন রায়ের ছেলেকে ভূমি মন্ত্রণালয়ের অধীন জেলা ভূমি অফিসে অস্থায়ী ভিত্তিতে অফিস সহায়ক পদে নিয়োগের কথা বলে হাতিয়ে নেন ছয় লাখ টাকা।
নীলফামারী সদর উপজেলার গোড়গ্রাম ইউনিয়নের আরাজি দলুয়া গ্রামের আলহাজ্ব সুলতান আলীর ছেলে আশিকুর রহমানকে নতিবাড়ী একরামিয়া দাখিল মাদ্রাসার শূন্য পদে সহকারী শিক্ষক (বাংলা) পদে নিয়োগ দেয়ার জন্য ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি আশরাফ আলী তিন লক্ষ টাকা এবং সহকারী শিক্ষক পদটিকে এমপিও করার জন্য আব্দুল মজিদ তিন লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেন।
এমনি ভাবে নীলফামারী সদর উপজেলার ইটাখোল ইউনিয়নের দরবেশপাড়া গ্রামের আকতারুজ্জামানের স্ত্রী তাইবুন নাহারকে নির্বাচন কমিশনের অধীন পরিদর্শক পদে চাকরী পাইয়ে দেয়ার জন্য তিন লাখ ৫০হাজার টাকা চুক্তি করেন আব্দুল মজিদ। পরে মৌখিক পরীক্ষার জন্য ৩৫হাজার টাকা নিলেও আজও পরীক্ষার দিন-তারিখ ঠিক হয়নি।
নীলফামারী সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মমিনুল ইসলাম বলেন, প্রতারনার অভিযোগে শহীদ জিয়া বালিকা বিদ্যালয়ের সাবেক প্রধান শিক্ষক আব্দুল মজিদকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তার গ্রেপ্তারের খবর ছড়িয়ে পড়লে প্রতারনার শিকার আরও সাত/আটজন এসে থানায় হাজির হয়। তারা সকলে তার দৃষ্টান্তমুলক শাস্তি দাবী করেছে।
এদিকে বিকেলে প্রতারক আব্দুল মজিদকে আদালতে হাজির করা হলে বিজ্ঞ বিচারক জামিন না মঞ্জুর করে জেল হাজতে প্রেরণ করে।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST