ঘোষনা:
শিরোনাম :
নীলফামারীতে আশ্রয়হীন ১২৫০ পরিবারের স্বপ্ন এখন সত্যি কিশোরগঞ্জ মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের রড চুরি- ধ্রুত চোরকে ছেড়ে দিল কর্তৃপক্ষ নীলফামারীতে শিক্ষার্থীদের মাঝে করোনার টিকা প্রয়োগ শুরু রাত পোহালেই ডিমলায় নতুন ঘরে উঠবেন ভূমিহীন গৃহহীন পরিবার ওয়ালটনের মিলিয়নিয়ার অফারে ফ্রিজ কিনে ১০ লক্ষ টাকা পেলেন জলঢাকার মতি টাঙ্গাইলে নতুন ৯২ জন করোনা শনাক্ত বাংলাদেশ সরকারের প্রথম অর্থ সচিবের স্ত্রী কুলসুম জামান আর নেই নীলফামারীর জলঢাকায় খাসজমি দখল করে পাকা ঘর ণির্মান নীলফামারীতে র‌্যাবের অভিযানে ফেন্সিডিলসহ ০১ জন মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার সাতক্ষীরায় করোনা আক্রান্ত ও উপসর্গ নিয়ে ৮ জনের মৃত্যু
ভারতে রপ্তানি বন্ধে,বাংলাদেশে পেয়াজের দাম ১১০ টাকা,আরও বাড়তে পারে।

ভারতে রপ্তানি বন্ধে,বাংলাদেশে পেয়াজের দাম ১১০ টাকা,আরও বাড়তে পারে।

পেঁয়াজ। ফাইল ছবি ।

ঢাকা প্রতিবেদক,
ভারতে পিয়াজ রপ্তানি বন্ধ ঘোষনার একদিন পরেই বাংলাদেশে পেয়াজের ঝাজ দেখানো শুরু করেছে ঢাকা সহ দেশব্যাপি ৭০ টাকার পিয়াজ ১০০ টাকায় বিক্রি হছ্ছে। আজ সোমবার ঢাকার পাইকারী বাজারে ১০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। আর খুচরা ১১০ টাকা বিক্রি হচ্ছে বাজারে। আজ সোমবার সকালে কারওয়ান বাজারে গিয়ে দেখা যায়, পাইকারি বাজারে প্রতি পাল্লা (৫ কেজি) পেঁয়াজ ৫০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। তবে এক কেজি কিনতে হচ্ছে ১১০ টাকায়। ভারতীয় পেঁয়াজ ও অনেকটা দেশি পেঁয়াজের মতো দেখতে মিয়ানমারের পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে এক পাল্লা ৪৫০ টাকায়। খুচরা বাজারে দাম আরও কিছুটা বেশি। বাজার ঘুরে দেখা গেল, অন্য সময়ের চেয়ে বাজারে পেঁয়াজের বিক্রেতা অনেক কম। অন্যদিকে ক্রেতারা সংখ্যায় অনেক বেশি।
গতকাল রোববার সন্ধ্যায় ৭০ টাকা কেজি দরে ২ কেজি পেঁয়াজ কিনে বাড়ি ফেরেন তালেব মিয়া। বাড়ি ফিরতেই স্ত্রী রুমা জানান, পেঁয়াজের দাম নাকি আরও বাড়বে। শুনে সুমন আলী ভাবেন, সকালে গিয়ে আরও কিছু পেঁয়াজ কিনে আনবেন। সকালে বাজারে গিয়ে হতভম্ব তিনি। দেখলেন প্রতি কেজি পেঁয়াজের দাম বেড়ে হয়ে গেছে ১১০ টাকা। বিক্রেতা বললেন, ‘নিয়ে নেন স্যার, দাম আরও বাড়ব।’
পেঁয়াজ রপ্তানি পুরোপুরি বন্ধ করে দিয়েছে ভারত—গতকাল রোববার এ সংবাদে দেশের বাজারে হু হু করে বেড়ে যায় পেঁয়াজের দাম। রাজধানীর বিভিন্ন পাইকারি বাজারে আজ সোমবার দেশি পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ১০০ থেকে ১১০ টাকা কেজিতে। ভারত ও মিয়ানমার থেকে আসা পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৯০ থেকে ১০০ টাকা কেজি দরে। খুচরা বাজারে দেশি আর ভারতীয় পেঁয়াজের দামের কোনো ভেদাভেদ নেই। সব পেঁয়াজই এখন কেজিপ্রতি ১০০ টাকার ওপরে বিক্রি হচ্ছে।
পেঁয়াজ কিনতে আসা রাখি নামে এক ক্রেতা জানালেন, দাম আরও বাড়তে পারে—এমন আশঙ্কায় সকাল সকাল পেঁয়াজ কিনতে এসেছি। পাঁচ কেজি পেঁয়াজ কিনেছেন ৫২০ টাকা দিয়ে।

কারওয়ান বাজারের মতো রাজধানীর বিভিন্ন বাজারে রাতারাতি বেড়ে গেছে পেঁয়াজের দাম। খিলগাঁওয়ের বাসিন্দা জিয়াউল হক বলেন, আজ সকালে খুচরা বাজার থেকে ১১০ টাকা কেজিতে পেঁয়াজ কিনেছেন তিনি। কোনো কোনো বিক্রেতা ১২০ টাকা কেজিও চাইছিলেন। আগারগাঁওয়ের বাসিন্দা মনোয়ার বলেন, ১২০ টাকার কেজির নিচে কোনো ধরনের পেঁয়াজই পাননি তিনি।

এদিকে রাতারাতি এত দাম বেড়েছে কেন—জানতে চাইলে কারওয়ান বাজারের পাইকারি এক বিক্রেতা বলেন, গতকাল দুপুরের পরও প্রতি কেজি দেশি পেঁয়াজ বিক্রি করেছেন ৭২ টাকায়। সন্ধ্যায় তিনি ৮০ টাকা কেজিতে বিক্রি করেছেন। আজ সকাল থেকে তিনি ১০০ টাকা কেজিতে পেঁয়াজ বিক্রি করছেন। তিনি বলেন, কাল দুপুরের পর থেকেই তাঁর কেনা দাম বেশি পড়ছে।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, গতকাল রোববার রপ্তানি নীতি সংশোধন করে পেঁয়াজকে রপ্তানি নিষিদ্ধ পণ্যের তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করে ভারতের বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। রপ্তানি বন্ধের ওই সিদ্ধান্ত রাতারাতি কার্যকর করা হয়। পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত সব দেশে পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ থাকবে। ভারতের পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধের খবরটি গতকাল বেলা তিনটার দিকে ভোমরা ও সোনামসজিদ স্থলবন্দরে আসে। তখনই বাংলাদেশের পথে থাকা সব ট্রাক আটকে দেয় ভারতীয় কর্তৃপক্ষ। আর এর প্রভাব বাংলাদেশে মুর্হুতেই দেশব্যাপি পড়ে যায় ।

কুষ্টিয়ার বিভিন্ন খুচরা বাজারে আজ ৯০ থেকে ১০০ টাকা কেজি দরে পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে। গতকাল বিকেলেও এসব বাজারে প্রতি কেজি পেঁয়াজ বিক্রি হয় ৭৫ টাকা দরে। আজ বাজারে বিক্রেতার সংখ্যা কম। অন্যদিকে ক্রেতার সংখ্যা অনেক বেশি।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, সরবরাহ অনেক কমে গেছে। কুষ্টিয়া পৌর বাজারে প্রতিদিন গড়ে দেড় শ মণ পেঁয়াজের চাহিদা। আজ বাজারের ১০টি আড়তে মজুত রয়েছে মাত্র ৩৫ মণ।

ইনসান আলী নামের এক বিক্রেতা জানান, পাইকারি বাজারে পেঁয়াজ নিয়ে কাড়াকাড়ি। অনেক কষ্টে ১০০ কেজি কিনতে পেরেছেন। ৯০ টাকা কেজি দরে খুচরা বিক্রি করছেন।

জেলার মিরপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা রমেশ চন্দ্র ঘোষ বলেন, ‘খেতে কোনো পেঁয়াজ নেই। কৃষকের কাছে আছে কি না, সন্দেহ। অক্টোবরের মাঝামাঝি সাধারণত কৃষকেরা পেঁয়াজ রোপণ করেন। তাই নতুন পেঁয়াজ আসতে আরও কয়েক মাস লাগবে।’

এদিকে খুলনার বিভিন্ন বাজারে পেঁয়াজ ১২০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে বলে জানিয়েছেন খুচরা বিক্রেতারা দোকানে পেঁয়াজের দাম ১ কেজি সমান ১২০ টাকা চার্ট আকারে দিয়ে রেখেছেন।
অপরদিকে নীলফামারী খুচরা ও পাইকারী বাজারেও একই ভাবে বিক্রি হচ্ছে পেয়াজ। সকালে আব্দুল মালেক ক্রেতা উকিলের মোড় বাজারে ৫ কেজি পিয়াজ কিনতে গিয়া ১ কেজি পিয়াজ কিনেছেন ১০০ টাকায়।

দেশের বাজারে চলতি মাসের মাঝামাঝি থেকেই পেঁয়াজের বাজারে অস্থিরতা শুরু হয়েছে। গত ১৩ সেপ্টেম্বর পেঁয়াজ রপ্তানিতে ন্যূনতম মূল্য টনপ্রতি ৮৫০ ডলার বেঁধে দেয়। এক দিন পর বাংলাদেশের বাজারে প্রতি কেজি পেঁয়াজের দাম বাড়ে প্রায় ১৫ টাকা। এরপর আরও কয়েক দফা দাম বেড়ে খুচরা বাজারে দেশি পেঁয়াজ প্রতি কেজি ৭৫-৮০ টাকা ও ভারতীয় পেঁয়াজ ৭০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছিল। এর মধ্যে গতকাল পেঁয়াজ রপ্তানি পুরোপুরি বন্ধ রাখার ঘোষণা দিল ভারত।

ভারতের বিভিন্ন গণমাধ্যমের তথ্য অনুযায়ী, বন্যা ও ভারী বৃষ্টির কারণে এবার সে দেশে পেঁয়াজের উৎপাদন মারাত্মকভাবে ব্যাহত হয়েছে। ভারতের দিল্লিসহ বিভিন্ন রাজ্যের বাজারে গত সপ্তাহে থেকে ৭০ থেকে ৮০ রুপিতে বিক্রি হচ্ছে পেঁয়াজ। দেশের বাজারে পেঁয়াজের জোগান স্বাভাবিক রাখতে ভারতের সরকার রপ্তানি বন্ধের সিদ্ধান্ত নেয়।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST