ঘোষনা:
শিরোনাম :
কিশোরগঞ্জে সভাপতির স্বাক্ষর জাল করে অর্থ উত্তোলনের অভিযোগ ।

কিশোরগঞ্জে সভাপতির স্বাক্ষর জাল করে অর্থ উত্তোলনের অভিযোগ ।

কিশোরগঞ্জ ,নীলফামারী প্রতিনিধি ,
নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ উপজেলার উত্তর বড়ভিটা মধ্য পাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষককের বিরুদ্ধে ম্যানেজিং কমিটি সভাপতির স্বাক্ষর জাল করে বিদ্যালয়ের উন্নয়ন মূলক কাজের টাকা উত্তোলনের অভিযোগ পাওয়া গেছে।
অভিযোগ ও সরেজমিনে গিয়ে জানা গেছে ২০১৮-১৯ অর্থবছরে ওই বিদ্যালয় ভিত্তিক উন্নয়ন প্রকল্পে ৫০ হাজার টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়। বরাদ্দকৃত টাকায় ১টি ডিজিটাল ওয়াল ঘড়ি ও ১টি ইন্টারনেট মডেমে খরচ দেখানো হয়েছে ৫ হাজার টাকা। ফুটবল,খাতা, ডাইরিসহ অন্যান মালামাল তালিকায় লেখা থাকলেও বাস্তবে এর কোন অস্তিত্ব পাওয়া যায়নি। বিদ্যালয় এলাকার বাসিন্দা ফজলু মাষ্ঠার, মোজাফফর মাষ্ঠার,শরীফুল ইসলাম ও আমিনুর রহমান বলেন- বাজারে একটি ডিজিটাল ঘড়ির সর্বোচ্চ দাম হচ্ছে ১হাজার ২ শ’ টাকা ও ১টি ইন্টারনেট মডেমের মূল হচ্ছে ২ হাজার টাকা। তারা বলেন ওই প্রধান শিক্ষক অতুল রায় চলতি মাসেই অবসরে যাবেন। একারণেই তিনি বিদ্যালয় উন্নয়নের টাকা লুটে পুটে নিয়েছেন। বিদ্যালয়ের সভাপতি হাফিজুর রহমান বলেন চলতি অর্থবছরে প্রাক প্রাথমিক শ্রেণির জন্য ১০ হাজার টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়। কিন্তু ওই প্রধান শিক্ষক আমার স্বাক্ষর জাল করে ব্যাংক থেকে টাকা উত্তোলন করে ৩৬ গজ পাটের কার্পেট ও ১টি প্লাষ্টিকের খেলনা ঘোড়া কিনে ১০ হাজার টাকা খরচ দেখিয়েছেন।
গত বৃহস্পতিবার সাংবাদিকরা ওই বিদ্যালয়ে গেলে সহকারী শিক্ষক আসাদুজ্জামান ১১টা ৩৩মিনিটে বিদ্যালয়ে এসে হাজিরা খাতায় স্বাক্ষর করেন। এ সময় তাকে দেরিতে বিদ্যালয়ে আসার কারণ জানতে চাইলে তিনি বলেন- আমার বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীকে অভিযোগ দিয়েও কোন লাভ হবেনা। এছাড়া ওই বিদ্যালয়ের একটি পরিত্যাক্ত কক্ষ প্রধান শিক্ষকের মদদে গোয়াল ঘর বানানো হয়েছে। শিক্ষার্থীরা জানায় স্কুল মাঠে গরু বাঁধা ও খড়ের গাদার জন্য মাঠে খেলা ধুলার সমস্যা হচ্ছে। হেড স্যারকে বলে কোন প্রতিকার পাওয়া যায়নি। এদিকে এসব বিষয়ে সভাপতি হাফিজুর রহমান লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তাসহ সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন দপ্তরে।
প্রধান শিক্ষক অতুল রায় ম্যানেজিং কমিটির সভাপতির স্বাক্ষক জাল করার বিষয় অস্বীকার করে বলেন- বিদ্যালয় ভিত্তিক উন্নয়ন কাজের ২০ হাজার টাকা ব্যাংকে আছে। ৪০ হাজার টাকা উত্তোলন করে তালিকা মাফিক মালামাল ক্রয় করা হয়েছে। উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা শরিফা আখতার বলেন- সভাপতির দায়েরকৃত অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেয়া হবে।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST