ঘোষনা:
শিরোনাম :
সাতক্ষীরায় করোনায় আক্রান্ত ও উপসর্গ নিয়ে মেডিকেল হাসপাতালে নারীসহ দুই জনের মৃত্যু। বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির উপজেলা শাখা গঠনের আলোচনা সভা । নীলফামারীতে চাঁদা দিতে না পারায়,ঘরে অগ্নিসংযোগ জোড়পূর্বক মাছ চুরি। সৈয়দপুরের তিন শিক্ষার্থীর ভর্তি অনিশ্চিত মেডিকেল কলেজে । করোনা আক্রান্ত জননেতা বীর মুক্তিযোদ্ধা জয়নাল আবেদীন অনেকটা সুস্থ্য বোধ করছেন। লকডাউনে ১০টা -০১ টা পর্যস্ত খোলা থাকবে ব্যাংক সেবা। চাঁদ দেখা গেছে, বুধবার থেকে পবিত্র রমজান শুরু। শঙ্কিত হওয়ার কোনো কারণ নেই, সরকার সবসময় পাশে থাকবে;প্রধানমন্ত্রী। সিলেটে দক্ষিণ আফ্রিকা নারী ক্রিকেট দলের ৫ ক্রিকেটার করোনা শনাক্ত। চাঁপাইনবাবগঞ্জ আতাহার বাজার হতে গাঁজাসহ এক মহিলাকে গ্রেফতার করেছে র‍্যাব-৫।
অগ্রণী ব্যাংকের ৬ লাখ টাকা গ্রাহকের অজান্তে তুলে নিয়েছেন ব্যবস্থাপক। সমাধান চায় গ্রাহক।

অগ্রণী ব্যাংকের ৬ লাখ টাকা গ্রাহকের অজান্তে তুলে নিয়েছেন ব্যবস্থাপক। সমাধান চায় গ্রাহক।

রাজশাহী প্রতিবেদক ,
অগ্রণী ব্যাংকের ৬ লাখ টাকা গ্রাহকের অজান্তে তুলে নিয়েছেন ব্যবস্থাপক। গত ২৪ সেপ্টেম্বর ঘটনা টের পেয়ে ওই শাখার বর্তমান ব্যবস্থাপককে জানিয়ে সমাধান চেয়েছেন গ্রাহক।
গ্রাহক জানেন না অথচ তার ব্যাংক হিসাব থেকে ৬ লাখ টাকা তুলে নিয়েছেন ব্যবস্থাপক। চলতি বছরের ১৬ জুন এ ঘটনা ঘটে অগ্রণী ব্যাংকের রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলা শাখায়। তবে গ্রাহক ঘটনা টের পেয়েছেন গত ২৪ সেপ্টেম্বর। ওই দিনই বিষয়টি তিনি বর্তমান ব্যবস্থাপক শিব শঙ্করকে জানান। তৎকালীন ওই শাখা ব্যবস্থাপক আহসান হাবিব নয়ন এ কাণ্ড ঘটিয়েছেন বলে অভিযোগ এনেছেন গ্রাহক সাবের আলী।

ভুক্তভোগী সাবের আলী উপজেলার দাড়িয়াপুর হাতাপাড়া গ্রামের বাসিন্দা। এ নিয়ে ব্যাংকটির সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ বরাবর লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন তিনি।

সাবের আলীর ছেলে মনিরুল ইসলাম জানান, ব্যবস্থাপক শিব শঙ্কর ক্যাশ শাখায় গিয়ে খোঁজ নিয়ে জানতে পারেন, গ্রাহক সাবের আলীর হিসাব নম্বর (০২০০০০৯৫৭৭৫৯৪)। তিনি ১৯৮৯ সাল থেকে অগ্রণী ব্যাংকে লেনদেন করেন। তার একটি ঋণও আছে। সেই ঋণ সমন্বয় করার কথা বলে ওই সময় ব্যবস্থাপকের দায়িত্বে থাকা আহসান হাবিব নয়ন ব্যাংকের পিয়ন আফজালের মাধ্যমে ৪৩০৮১৭২ নম্বরের একটি চেক বইয়ের ফাঁকা পাতা নেন। সেটি এ বছরের ১৬ জুন ব্যবহার করেই ওই হিসাব নম্বর থেকে ৬ লাখ টাকা তুলে নেয়া হয়েছে। চেকের পাতাটিতে সে সময়ের ব্যবস্থাপক আহসান হাবিব নয়ন নিজেই টাকার পরিমাণ লিখেছেন।

ব্যাংকের বর্তমান ব্যবস্থাপক শিব শঙ্কর জানান, গ্রাহকের লিখিত অভিযোগ পাওয়ার পর তিনি বিষয়টির অনুসন্ধান শুরু করেছেন। এরপর জানতে পারেন, পিয়ন আফজাল চেকের পাতাটি নিয়ে এসে আহসান হাবিব নয়নকে দেন। এরপর গ্রাহকের অভিযোগ ও তার অনুসন্ধান লিপিবব্ধ করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার কাছে পাঠিয়ে দিয়েছেন। শাখা ব্যবস্থাপক আহসান হাবিব নয়ন বর্তমানে ব্যাংকের রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় শাখায় প্রিন্সিপাল অফিসার হিসেবে কর্মরত। তিনি দাবি করেন, এ ঘটনার সঙ্গে তিনি জড়িত নন। চার মাস পরে এমন অভিযোগের পেছনে অন্য কোনো কারণ আছে বলেও দাবি করেন আহসান হাবিব নয়ন।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST