ঘোষনা:
সম্রাটকে গ্রেফতারের বিষয়ে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘ওয়েট করেন, ।

সম্রাটকে গ্রেফতারের বিষয়ে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘ওয়েট করেন, ।

বিশেষ প্রিতিবেদক ,
সম্রাটকে গ্রেফতারের বিষয়ে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘ওয়েট করেন, তাড়াহুড়ো করছেন কেন।’ যখন শুরু করেছি, শেষটাও দেখে নেব।
আজ মঙ্গলবার সচিবালয়ে সমসাময়িক ইস্যু নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে এক প্রশ্নের জবাবে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কাদের এ কথা বলেন। যুবলীগের ঢাকা দক্ষিণের সভাপতি ইসমাইল চৌধুরী সম্রাটকে গ্রেফতার না করার বিষয়ে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘ওয়েট করেন, দেখতে পাবেন, তাড়াহুড়ো করছেন কেন।’

তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী ভোর বেলা দেশে ফিরেছেন, কুশল বিনিময় ছাড়া কোনো কথাবার্তা আজ হয়নি। এরপর পার্টির সঙ্গে ও মন্ত্রিপরিষদের সঙ্গে যখন আলাপ-আলোচনা হবে তখন (অভিযানের) ফরমেট নিয়ে অ্যাকশন প্রোগ্রাম নিয়ে তিনি (প্রধানমন্ত্রী) যদি কিছু বলে থাকেন তথন আপনারা জানবেন।’

মন্ত্রী বলেন, ‘এটা যে কথার কথা নয় এবং লোক দেখানো অভিযান নয় তা প্রধানমন্ত্রী স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছেন। কাজেই এ নিয়ে কোনো সংশয়-সন্দেহের অবকাশ থাকার কারণ নেই।’

একটু সন্দেহ সৃষ্টি হচ্ছে যে যুবলীগ নেতা ইসমাইল চৌধুরী সম্রাটকে আপনারা ছাড় দিচ্ছেন কি না- এ বিষয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘কাউকে ছাড় দেব এমন কোনো কথা আমরা বলিনি। যাকে আপনি গ্রেফতার করবেন, সেটা তদন্ত করে উপযুক্ত প্রমাণ নিয়েই গ্রেফতার করার মতো অবস্থা হলে অবশ্যই গ্রেফতার করা হবে। এবং বলা আছে কাউকে ছাড় দেয়া হবে না।’

‘এখানে ব্যক্তিবিশেষ কোনো বিষয় নয়। ব্যক্তি যেই হোক, অপকর্ম করলে সাম্প্রতিক অভিযানের টার্গেট হলে অবশ্যই ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

তবে কি সম্রাটের বিরুদ্ধে কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি, তাই তাকে গ্রেফতার করা হচ্ছে না- এ বিষয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘যিনি মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে আছেন, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, তিনি নিজেই বলেছেন, ওয়েট অ্যান্ড সি (অপেক্ষা করুন এবং দেখুন কী হয়)। কাজেই ওয়েট করেন এত তাড়াহুড়ো করছেন কেন?’

কতজনের বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনা করা হবে, সেই ধরনের কোনো তালিকা আছে কি না- জানতে চাইলে মন্ত্রী বলেন, ‘কতজন, ঠিক এ ধরনের তালিকার কোনো বিষয় নেই। এটা শুধু রাজধানী-কেন্দ্রিক নয়, সুনামগঞ্জ থেকে সুন্দরবন, কুতুবদিয়া থেকে তেঁতুলিয়া, সারা বাংলাদেশেই যারা এই ধরনের অপরাধ-অপকর্ম করবে প্রত্যেকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। অভিযান চলেছে, প্রায় প্রতিদিনই কেউ না কেউ গ্রেফতার হচ্ছেন। অনেকে নজরদারিতে আছেন। তালিকার বিষয়টি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলতে পারে।’

‘আমি এটুকু বলতে পারি, সারাদেশে এসব অপকর্মের সঙ্গে যারা জড়িত তারা গোয়েন্দা নজরদারিতে আছেন। প্রধানমন্ত্রী নিজেও খোঁজ-খবর নিচ্ছেন। এই অভিযান চলবে, সেই আভাস তিনি দিয়েছেন। কার কার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবেন এবং তদন্তে চিহ্নিত দোষী ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবেন সেটা এখন পরিষ্কার হয়ে যাবে।’

তিনি বলেন, ‘অভিযান বিশেষ কোনো ব্যক্তি বা গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে নয়। অভিযানটা অপরাধের বিরুদ্ধে। অতীতে যারা ক্ষমতায় ছিল তারা কে কতটা দুর্নীতি করে কে কতটা সম্পদের মালিক হয়েছে, সেটার হিসাবও নিতে হবে। সরকারি দল অভিযান শুরু করে নিজেদের ঘর থেকে। এটা অতীতে কখনও হয়নি।’

প্রশাসনেও বড় বড় দুর্নীতি হয়- এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘এসব অভিযোগও তদন্ত করা হচ্ছে। যখন ব্যবস্থা নেয়া হবে তখন জানতে পারবেন।’ যখন শুরু করেছি, শেষটাও দেখে নেব

সরকার ১১ বছর ধরে ক্ষমতায় আছে, এতদিন কি তাহলে বড় অপরাধীদের বিষয়ে নমনীয়তা দেখানো হয়েছে- এ বিষয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আমরা নজরদারিতে রেখেছি। আমরা লক্ষ্য করেছি, সময় নিতে চেয়েছি। একটা অভিযোগ বাস্তবে তথ্য-প্রমাণসহ যদি পরিষ্কার না হয়, তাহলে কারও বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া যায় না। এদেশের প্রশংসা করার লোকের অভাবে এদেশে আছে, সরকারি দল এ ধরনের অভিযান পরিচালনা করে এটা এদেশের বিরল ঘটনা। বেটার লেট দেন নেভার, আমি সেই কথাটিই বলতে চাই।’

পরিবহন খাতের চাঁদাবাজদের বিরুদ্ধে অভিযান চলবে কি না- এ বিষয়ে সড়ক পরিবহনমন্ত্রী বলেন, ‘পরিবহন খাতের চাঁদাবাজির বিষয়ে যে অভিযোগ এসেছে সেটাও তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। খোঁজ-খবর নেয়া হচ্ছে। শুধু রাজনৈতিক লোকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে না; পরিবহন, প্রশাসন, রাজনীতি যে যেখানেই থাকুন অপরাধ করলে শাস্তি পেতে হবে। শুদ্ধি অভিযান অপরাধের বিরুদ্ধে।’

আওয়ামী লীগ নেতাদের বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনা করা হবে কি না- জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘যুবলীগ-ছাত্রলীগ কি আমাদের দল না? আওয়ামী লীগের কেউ অপরাধী হলে তাকেও ছাড় দেয়া না, এটাও বলা হয়েছে। একটু অপেক্ষা করেন না। দশদিনেই সব ব্যবস্থা হয়ে যাবে। ধৈর্য ধরুন, আমরা যখন শুরু করেছি, শেষটাও দেখে নেব।’

তিনি বলেন, ‘যারা দলে অনুপ্রবেশ করেছে তারা আমাদের নজরে আছে। আমরা বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে শো-কজ নোটিশ দিয়েছি, আমরা শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নিতে শুরু করেছি, আরও বড় শাস্তিমূলক ব্যবস্থা ভবিষ্যতে হতে পারে।’ সরকারের এই অভিযানের কারণে বিএনপির আন্দোলন বড় ধরনের হোঁচট খাবে বলেও মন্তব্য করেন ওবায়দুল কাদের।

প্রধানমন্ত্রীর আসন্ন ভারত সফরে দ্বিপাক্ষিক অমীমাংসিত ইস্যুগুলো প্রধান্য পাবে জানিয়ে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী বলেন, ‘যাই আলোচনা হবে বাংলাদেশের স্বার্থেই আলোচনা হবে। জাতীয় স্বার্থ সমুন্নত রেখে যে বিষয়গুলো আলোচনা করা দরকার। সেই বিষয়গুলো অবশ্যই দুই প্রধানমন্ত্রীর আলোচনায় আসবে।’ মওদুদ সাহেব সম্পদের হিসাবটা আগে উত্থাপন করুক বিএনপি নেতা মওদুদ আহমদ মন্ত্রী ও সংসদ সদস্যদের সম্পদের হিসাব চেয়েছেন- এ বিষয়ে কাদের বলেন, ‘ওনার (মওদুদ) সম্পদের হিসাবটা আগে জানতে চাই। কী কারণে ওনার বাড়িটা চলে গেল। ওনি মৃত ব্যক্তির নামে ভুয়া কাগজ আদালতে জমা দিয়েছেন। জমা দিয়ে বাড়ির মালিকানা দাবি করেছেন। প্রমাণ হয়েছে তিনি নিজেই দুর্নীতি করেছেন। তিনি তো দুর্নীতির অভিযোগে অনেকবার সাজাপ্রাপ্ত হয়েছেন। তার কত সম্পদ আছে সেটা তো জানা দরকার। মওদুদ সাহেব তার নিজের সম্পদের হিসাবটা আগে জাতির সামনে উত্থাপন করুন।’ তিনি বলেন, ‘আমরা প্রতিবছর আমাদের সম্পদের হিসাব প্রধানমন্ত্রীকে দিয়ে থাকি। এখনও বছরে বছরে ট্যাক্স দেই সেই হিসাব তো আছেই। আমার কত সম্পদ আমি কত ট্যাক্স দেই, ব্যবধান কত, আপনারা তো বের করতে পারেন।’





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST