ঘোষনা:
শিরোনাম :
সাতক্ষীরার শ্যামনগরে আত্মসমর্পনকারী বনদস্যুর মাঝে ঈদ উপহার সাতক্ষীরার দুটি উপজেলায় ভূমিহীন ও গৃহহীনদের চাবী ও দলিল দিয়ে ভূমিহীন ও গৃহহীন মুক্ত ঘোষণা নীলফামারীতে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার ও জমির মালিকানা বহালে সংবাদসম্মেলন মিথ্যা প্রলোভনে পাহাড়ের নারীদের পাচার করছে একটি সংবদ্ধ চক্র সাতক্ষীরায় ভাঙান মাছ চাষ পদ্ধতি ও ব্যবস্থাপনা বিষয়ক কর্মশালা গ্রামীণব্যাংকের সেবার মান বাড়ানোর প্রতিশ্রুতি, নীলফামারীতে কোরবানির জন্য প্রস্তুত ২ লাখ ৭৬ হাজার ২০১টি পশু নীলফামারীতে প্রযুক্তিগত দক্ষতা বৃদ্ধিতে নারীদের ছয় মাস ব্যাপি প্রশিক্ষণের উদ্বোধন চট্টগ্রামে টাকার জন্য মাকে কুপিয়ে হত্যা, ছেলেকে আটক করেছে পুলিশ যুবদলের নির্যাতিত নেতৃবৃন্দের সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত
মাদরাসাছাত্রীকে নাইট কোচিংয়ের নামে দুই শিক্ষকের ধর্ষণের অভিযোগ ।

মাদরাসাছাত্রীকে নাইট কোচিংয়ের নামে দুই শিক্ষকের ধর্ষণের অভিযোগ ।

জেলা প্রতিনিধি যশোর ,
নাইট কোচিংয়ের নামে মাদরাসাছাত্রীকে ডেকে নিয়ে দুই শিক্ষক ধর্ষণ করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনার প্রতিবাদে আজ বৃহস্পতিবার মাদরাসা ঘেরাও করে বিক্ষোভ করেছে এলাকাবাসী। তবে বিক্ষোভের সময় সুযোগ বুঝে কৌশলে পালিয়ে গেছে অভিযুক্ত দুই শিক্ষক। এ নিয়ে এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে।
যশোরের মণিরামপুরে নাইট কোচিংয়ের নামে এক মাদরাসাছাত্রীকে ডেকে নিয়ে দুই শিক্ষক মিলে ধর্ষণ করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। গত ৩০ সেপ্টেম্বর রাত ৮টার দিকে উপজেলার ঝাঁপা দক্ষিণপাড়া বালিকা মাদরাসায় এই ঘটনা ঘটে। জানা গেছে, গত ৩০ সেপ্টেম্বর রাত ৮টার দিকে ঝাঁপা দক্ষিণপাড়া বালিকা মাদরাসার দাখিল পরীক্ষার্থী এক ছাত্রীকে নাইট কোচিংয়ের নামে ডেকে নিয়ে যান ওই মাদ্রাসার শিক্ষক নজরুল ইসলাম। তিনি ওই ছাত্রীকে একটি চকলেট খেতে দেন। তার দেয়া চকলেট খেয়ে মেয়েটি অচেতন হয়ে পড়ে। পরে মাদরাসার পাশের একটি বাঁশ বাগানে নিয়ে শিক্ষক নজরুল ইসলাম ও তরিকুল ইসলাম তাকে পালাক্রমে ধর্ষণ করে পালিয়ে যায়।
এদিকে ওই ছাত্রীর বাড়িতে ফিরতে দেরি হওয়ায় পরিবারের লোকজন তার খোঁজে মাদরাসায় যায়। কিন্তু তাকে মাদরাসায় না পেয়ে আশেপাশে খোঁজাখুঁজি করতে থাকে। এক পর্যায়ে পাশের একটি বাঁশবাগানে রক্তাক্ত অবস্থায় ওই ছাত্রীকে পড়ে থাকতে দেখে পরিবারের লোকজন চিৎকার দেয়। পরে আশেপাশের লোকজন এগিয়ে এসে তাকে উদ্ধার করে।পরদিন (১ অক্টোবর) সকালে ওই ছাত্রীকে যশোর ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ২ অক্টোবর (বুধবার) হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তাকে ছাড়পত্র দেয়। এরপর পরিবারের লোকজন তাকে বাড়িতে নিয়ে যায়। কিন্তু বৃহস্পতিবার সকালে সে আবারও অসুস্থ হয়ে পড়ে।এদিকে বিষয়টি জানতে পেরে এলাকাবাসী বৃহস্পতিবার দুপুরে ওই মাদরাসা ঘেরাও করে বিক্ষোভ করে। তবে সুযোগ বুঝে অভিযুক্ত শিক্ষক নজরুল ইসলাম ও তরিকুল ইসলামকে পালিয়ে যান।
খবর পেয়ে বিকেলে মণিরামপুর থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করে।
সন্ধ্যায় মণিরামপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রফিকুল ইসলাম জানান, আমরা ঘটনাস্থলে গিয়েছিলাম। ভুক্তভোগী ওই ছাত্রীকে থানায় নিয়ে এসে মামলার দায়েরের প্রস্তুতি চলছে। অভিযুক্তদের আটকের জন্য ইতোমধ্যেই অভিযান শুরু করেছে পুলিশ।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST