ঘোষনা:
শিরোনাম :
সত্য বলার সৎ সাহসেই গঠিত হবে স্মার্ট বাংলাদেশ: অ্যাড. মমতাজুল শঙ্কামুক্ত নন অভিনেত্রী শারমিন আওয়ামী লীগ শাসনামলে দেশের ব্যাপক উন্নয়ন বিবেচনায় নিতে দেশবাসীর প্রতি আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর নীলফামারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের ক্লাস প্রমোশন না দেয়ার প্রতিবাদে মানববন্ধন নীলফামারীতে সড়ক দূর্ঘটনায় আহত ৮ জন নীলফামারীতে পুলিশ সার্ভিস এসোসিয়েশনের শীতবস্ত্র বিতরণ কিশোরগঞ্জে বিদায়ী মাঘে শীতের হানা কিশোরগঞ্জে অপহরণের দায়ে পেশ ইমাম আটক-ছাত্রী উদ্ধার বিপদে পুলিশকে পাশে পেয়ে মানুষ যেন স্বস্তি বোধ করে তা নিশ্চিত করতে হবে : প্রধানমন্ত্রী উন্নয়নের বদলে শেখ হাসিনাকে ভোট উপহার দিন: চাঁপাইনবাবগঞ্জে নানক
মাদরাসাছাত্রীকে নাইট কোচিংয়ের নামে দুই শিক্ষকের ধর্ষণের অভিযোগ ।

মাদরাসাছাত্রীকে নাইট কোচিংয়ের নামে দুই শিক্ষকের ধর্ষণের অভিযোগ ।

জেলা প্রতিনিধি যশোর ,
নাইট কোচিংয়ের নামে মাদরাসাছাত্রীকে ডেকে নিয়ে দুই শিক্ষক ধর্ষণ করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনার প্রতিবাদে আজ বৃহস্পতিবার মাদরাসা ঘেরাও করে বিক্ষোভ করেছে এলাকাবাসী। তবে বিক্ষোভের সময় সুযোগ বুঝে কৌশলে পালিয়ে গেছে অভিযুক্ত দুই শিক্ষক। এ নিয়ে এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে।
যশোরের মণিরামপুরে নাইট কোচিংয়ের নামে এক মাদরাসাছাত্রীকে ডেকে নিয়ে দুই শিক্ষক মিলে ধর্ষণ করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। গত ৩০ সেপ্টেম্বর রাত ৮টার দিকে উপজেলার ঝাঁপা দক্ষিণপাড়া বালিকা মাদরাসায় এই ঘটনা ঘটে। জানা গেছে, গত ৩০ সেপ্টেম্বর রাত ৮টার দিকে ঝাঁপা দক্ষিণপাড়া বালিকা মাদরাসার দাখিল পরীক্ষার্থী এক ছাত্রীকে নাইট কোচিংয়ের নামে ডেকে নিয়ে যান ওই মাদ্রাসার শিক্ষক নজরুল ইসলাম। তিনি ওই ছাত্রীকে একটি চকলেট খেতে দেন। তার দেয়া চকলেট খেয়ে মেয়েটি অচেতন হয়ে পড়ে। পরে মাদরাসার পাশের একটি বাঁশ বাগানে নিয়ে শিক্ষক নজরুল ইসলাম ও তরিকুল ইসলাম তাকে পালাক্রমে ধর্ষণ করে পালিয়ে যায়।
এদিকে ওই ছাত্রীর বাড়িতে ফিরতে দেরি হওয়ায় পরিবারের লোকজন তার খোঁজে মাদরাসায় যায়। কিন্তু তাকে মাদরাসায় না পেয়ে আশেপাশে খোঁজাখুঁজি করতে থাকে। এক পর্যায়ে পাশের একটি বাঁশবাগানে রক্তাক্ত অবস্থায় ওই ছাত্রীকে পড়ে থাকতে দেখে পরিবারের লোকজন চিৎকার দেয়। পরে আশেপাশের লোকজন এগিয়ে এসে তাকে উদ্ধার করে।পরদিন (১ অক্টোবর) সকালে ওই ছাত্রীকে যশোর ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ২ অক্টোবর (বুধবার) হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তাকে ছাড়পত্র দেয়। এরপর পরিবারের লোকজন তাকে বাড়িতে নিয়ে যায়। কিন্তু বৃহস্পতিবার সকালে সে আবারও অসুস্থ হয়ে পড়ে।এদিকে বিষয়টি জানতে পেরে এলাকাবাসী বৃহস্পতিবার দুপুরে ওই মাদরাসা ঘেরাও করে বিক্ষোভ করে। তবে সুযোগ বুঝে অভিযুক্ত শিক্ষক নজরুল ইসলাম ও তরিকুল ইসলামকে পালিয়ে যান।
খবর পেয়ে বিকেলে মণিরামপুর থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করে।
সন্ধ্যায় মণিরামপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রফিকুল ইসলাম জানান, আমরা ঘটনাস্থলে গিয়েছিলাম। ভুক্তভোগী ওই ছাত্রীকে থানায় নিয়ে এসে মামলার দায়েরের প্রস্তুতি চলছে। অভিযুক্তদের আটকের জন্য ইতোমধ্যেই অভিযান শুরু করেছে পুলিশ।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST