ঘোষনা:
শিরোনাম :
নীলফামারীতে পুড়ে ছাই পাঁচটি দোকান তিস্তার চরে গম চাষে আগ্রহ বেড়েছে কৃষকদের নীলফামারীতে উগ্রবাদ, জঙ্গি বাদ দমনে পাঁচ দিন ব্যাপী সচেতনতামূলক সেমিনার শুরু সক্ষম সকলকে কর প্রদানের আহবান প্রধানমন্ত্রীর রংপুর বিভাগীয় গন সমাবেশে নীলফামারী উপজেলা বিএনপি স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণ  নীলফামারীর জলঢাকায় স্কুল বন্ধে নিমিসেই নিয়োগ শেষ, সভাপতির বিরুদ্ধে বাণিজ্যের অভিযোগ দেশ পাকিস্তান হবে নাকি মালয়েশিয়া- সিঙ্গাপুর, তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী সত্য বলার সৎ সাহসেই গঠিত হবে স্মার্ট বাংলাদেশ: অ্যাড. মমতাজুল শঙ্কামুক্ত নন অভিনেত্রী শারমিন আওয়ামী লীগ শাসনামলে দেশের ব্যাপক উন্নয়ন বিবেচনায় নিতে দেশবাসীর প্রতি আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর
বিকেল ৫টায় পরবর্তী অবস্থান জানাবেন বুয়েটে শিক্ষার্থীরা।

বিকেল ৫টায় পরবর্তী অবস্থান জানাবেন বুয়েটে শিক্ষার্থীরা।

ঢাকা প্রতিবেদক,
বুয়েটে শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ হত্যার বিচারসহ বিভিন্ন দাবিতে ক্যাম্পাসে আবার জড়ো হয়েছেন বুয়েটের আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা। আজ মঙ্গলবার বেলা ১১টা থেকে ক্যাম্পাসে আসতে শুরু করেন শিক্ষার্থীরা। ক্যাম্পাসের ভেতরে বৈঠক করছেন। আজ বিকেল পাঁচটায় সংবাদ সম্মেলনে পরবর্তী অবস্থানের বিয়য়ে জানাবেন তাঁরা।
বুয়েটে ভর্তি পরীক্ষার কারণে গতকাল রোববার ও আজ সোমবার আন্দোলন শিথিল করেছেন শিক্ষার্থীরা।
এর আগে গতকাল সোমবার আবরার হত্যাকারীদের বিচারের দাবিতে গণস্বাক্ষর সংগ্রহ করেন আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা। বুয়েটে ভর্তি পরীক্ষার কারণে গত রোববার ও গতকাল সোমবার আন্দোলন শিথিল করা হয়। আজ থেকে আন্দোলন পুরোদমে চলবে বলে জানান শিক্ষার্থীরা।৬ অক্টোবর শেরেবাংলা হলে আবরারকে পিটিয়ে হত্যা করেন বুয়েট ছাত্রলীগের একদল নেতা-কর্মী। আবরার বুয়েটের তড়িৎ ও ইলেকট্রনিক প্রকৌশল বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের (১৭তম ব্যাচ) ছাত্র ছিলেন। তিনি থাকতেন বুয়েটের শেরেবাংলা হলের নিচতলায় ১০১১ নম্বর কক্ষে। ঘটনার দিন তাঁকে ডেকে নিয়ে যাওয়া হয় একই হলের ২০১১ নম্বর কক্ষে। ওই কক্ষে তাঁকে নির্যাতন করে বুয়েট ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা। রাত ৩টার দিকে হল থেকেই তাঁর লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এর পর থেকে শিক্ষার্থীরা আবরার হত্যার ঘটনায় খুনিদের সর্বোচ্চ শাস্তি, বুয়েট ক্যাম্পাসে সাংগঠনিক ছাত্র রাজনীতি নিষিদ্ধ করাসহ ১০ দফা দাবিতে আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছেন। শিক্ষার্থীদের দাবির মুখে গত শুক্রবার সন্ধ্যায় বুয়েট ক্যাম্পাসে সাংগঠনিক ছাত্ররাজনীতি নিষিদ্ধ ঘোষণা করেন উপাচার্য অধ্যাপক সাইফুল ইসলাম। বুয়েটের কোনো শিক্ষার্থী ছাত্ররাজনীতিতে জড়িত হলে তাঁর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার ঘোষণাও দেন তিনি। তবে শিক্ষার্থীরা বলছেন, কেবল আশ্বাস নয়, বাস্তবায়নও দেখতে চান তাঁরা।

আবরার হত্যার ঘটনায় গ্রেপ্তার হওয়া ১৯ জনের মধ্যে চারজন আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST