ঘোষনা:
শিরোনাম :
পদ্মা সেতু হওয়ায় বিএনপি উদভ্রান্তের মত কথা বলছে,চট্টগ্রামে তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী বানভাসি মানুষের পাসে লিয়ন চৌধুরী নীলফামারীতে মধ্য রাতে মাতলামি; প্রতিবাদ করায় গুরুতর রগকাটা জখম, থানায় এজাহার। নীলফামারীতে এক মাস ব্যাপি পুনাক তাঁত শিল্প ও পণ্য মেলার শুভ উদ্বোধন পাহাড়ে সন্ত্রাস দমনে এপিবিএন’র টহল শুরু শিক্ষক হত্যা ও কলেজ অধ্যক্ষকে নির্যাতনের প্রতিবাদে নীলফামারীতে মানববন্ধন ও স্মারকলিপি প্রদান। আওয়ামীলীগ হিন্দুদের দল, ভারতের চর এসব ট্যাবলেটে এখন আর কাজ হয়না,তথ্যমন্ত্রী হলি আর্টিজানে জঙ্গি হামলায় ৬ বছর পূর্তিতে,কূটনীতিকরা নিহতদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা বিকেএসপিতে ব্লু খেতাব অর্জন,দেশসেরা নারী আরচার নীলফামারীর দিয়া সিদ্দিকী জাতি হিসেবে আমাদের সক্ষমতাকে সবসময় অবমূল্যায়ন করে সমালোচকরা বললেন,প্রধানমন্ত্রী
ডিমলায় হতভাগীর আর্তনাত,আর কতো গরীব হলে মিলবে সরকারের ঘর।

ডিমলায় হতভাগীর আর্তনাত,আর কতো গরীব হলে মিলবে সরকারের ঘর।

বিশেষ প্রতিবেদক ,

ডিমলায় হতভাগীর আর্তনাত,আর কতো গরীব হলে মিলবে সরকারের ঘর। দুর্যোগ সহনশীল ঘরের জন্য ইউপি চেয়ারম্যানকে চার হাজার টাকা ঘুষ দেয়ার পরও ঘর পায়নি এক পঙ্গু স্বামী। আর কতো গরীব হলে মিলবে সরকারের ঘর। কথাগুলো বলতে বলতে কান্নায় ভেঙে পড়েন নীলফামারীর ডিমলা উপজেলার টেপাখড়িবাড়ী ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ডের কলোনীপাড়া গ্রামের জয়েন উদ্দিনের স্ত্রী মেরিনা বেগম (৪৫)।
দুই মেয়ে স্কুলে পড়াশোনা করে, দুই বছর ধরে স্বামী পঙ্গু। অন্যের বাড়িতে ঝিয়ের কাজ করি। দুর্যোগ সহনশীল ঘরের জন্য ইউপি চেয়ারম্যানকে চার হাজার টাকা ঘুষ দেয়ার পরও ঘর দেননি। একটি কুঁড়েঘরে অতিকষ্টে কোনো রকম কেটে যাচ্ছে।’
মেরিনা বেগম বলেন, বসতবাড়ির পাঁচ শতক জমিতে একটি কুঁড়েঘরে দুই মেয়ে আর পঙ্গু স্বামীকে নিয়ে অনেক কষ্টে দিন পার করছি। গত বছরের নভেম্বর মাসে ইউপি চেয়ারম্যান ময়নুল হককে প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ প্রকল্পের জমি আছে ঘর নাই প্রকল্পের ঘরের জন্য চার হাজার টাকা দেই। কিন্তু আরও ছয় হাজার টাকা দিতে না পাড়ার কারণে আমাদের ঘর দেননি।
তিনি আরও বলেন, স্বামী দুই বছরেরও বেশি সময় হাঁটতে পারে না। যেটুকু জমি ছিল বিক্রি করে চিকিৎসা করেয়েছি। অন্যের বাড়িতে ঝিয়ের কাজ করে দুই মেয়ে সোমা আক্তার ও খুশি আক্তারের পড়াশোনা করাচ্ছি। সোমা আক্তার জটুয়াখাতা উচ্চ বিদ্যালয়ের মানবিক বিভাগের ১০ম শ্রেণির ছাত্রী। সে বিদ্যালয় থেকে উপবৃত্তিও পায় না। অপরদিকে ছোট মেয়ে দক্ষিণ খড়িবাড়ী মুক্তা নিকেতন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেণির ছাত্রী। বড় মেয়ে মৌসুমীর দুই বছর আগে বিয়ে হয়েছে।
জয়েন উদ্দিন (৬০) বলেন, সরকারি কোনো সুযোগ নাকি আমাদের জন্য নাই, প্রতিবন্ধী ও বয়স্ক ভাতার জন্য টাকা লাগে। টাকা দিতে না পারায় চেয়ারম্যান ঘর দেননি।
এনিয়ে প্রশাসনে অভিযোগ করেননি কেন- জানতে চাইলে তিনি বলেন, প্রশাসন তো চেয়ারম্যানের। ঘরের জন্য টেপাখড়িবাড়ী ইউপি চেয়ারম্যান ময়নুল হকের কাছে চার হাজার টাকা দিয়েছি।
অপরদিকে টেপাখড়িবাড়ী ইউনিয়নের মশিয়ার রহমানের ছেলে মজিদুল ইসলাম (৪০) বলেন, দুর্যোগ সহনশীল ঘরের জন্য টেপাখড়িবাড়ী ইউনিয়নের তেলির বাজারের মৃত আব্দুস সাত্তারের ছেলে স্বপনের হাতে ১৪ হাজার টাকা দিয়েছি। স্বপন সেই টাকা ইউপি চেয়ারম্যান ময়নুল হককে দেন।
এ ব্যাপারে স্বপনের সঙ্গে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি টাকা নেয়ার বিষয়টি স্বীকার করে বলেন, আমি ১০ হাজার টাকা নিয়াছি।
সরেজমিনে এলাকাবাসীর সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, টেপাখড়িবাড়ীর ইউপি চেয়ারম্যান ময়নুল হক ও তথ্য কেন্দ্রের মিজানুর রহমান ২২০টি পরিবারকে ঘর দেয়ার নামে প্রতিটি পরিবারের নিকট ৪ থেকে ১৪ হাজার করে টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন। ইউপি চেয়ারম্যানের প্রভাবের কারণে  অভিযোগ দেয়ার সাহস পাচ্ছেন না।
টেপাখড়িবাড়ী ইউনিয়ন তথ্য কেন্দ্রের মিজানুর রহমান বলেন, রেজিস্ট্রার না দেখে কিছু বলা যাবে না।
টেপাখড়িবাড়ী ইউপি চেয়ারম্যান ময়নুল হক বলেন, ইতোমধ্যে ২৫টি ঘর দেয়া হয়েছে। টাকার নেয়ার বিষয়ে তিনি বলেন, কেউ টাকা নিয়েছে কি-না আমার জানা নেই। জয়েন উদ্দিনের স্ত্রীকে আমি চিনি না।
ডিমলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাজমুন নাহার বলেন, ইউপি চেয়ারম্যান একক সিদ্ধান্তে কোনো ঘর বরাদ্দ দিতে পারেন না। উপজেলা প্রশাসন তদন্ত করে বরাদ্দ দিয়ে থাকে। নতুন করে ঘরের কোনো বরাদ্দ তার দফতরে নেই।
নীলফামারীর জেলা প্রশাসক হাফিজুল ইসলাম চৌধুরী বলেন, প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ প্রকল্পের ঘর দেয়ার নামে কেউ অনিয়ম বা টাকা উত্তোলন করে থাকলে বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হবে।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST