ঘোষনা:
শিরোনাম :
সাতক্ষীরায় করোনায় আক্রান্ত ও উপসর্গ নিয়ে মেডিকেল হাসপাতালে নারীসহ দুই জনের মৃত্যু। বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির উপজেলা শাখা গঠনের আলোচনা সভা । নীলফামারীতে চাঁদা দিতে না পারায়,ঘরে অগ্নিসংযোগ জোড়পূর্বক মাছ চুরি। সৈয়দপুরের তিন শিক্ষার্থীর ভর্তি অনিশ্চিত মেডিকেল কলেজে । করোনা আক্রান্ত জননেতা বীর মুক্তিযোদ্ধা জয়নাল আবেদীন অনেকটা সুস্থ্য বোধ করছেন। লকডাউনে ১০টা -০১ টা পর্যস্ত খোলা থাকবে ব্যাংক সেবা। চাঁদ দেখা গেছে, বুধবার থেকে পবিত্র রমজান শুরু। শঙ্কিত হওয়ার কোনো কারণ নেই, সরকার সবসময় পাশে থাকবে;প্রধানমন্ত্রী। সিলেটে দক্ষিণ আফ্রিকা নারী ক্রিকেট দলের ৫ ক্রিকেটার করোনা শনাক্ত। চাঁপাইনবাবগঞ্জ আতাহার বাজার হতে গাঁজাসহ এক মহিলাকে গ্রেফতার করেছে র‍্যাব-৫।
ড্রাইভারের বেপরোয়া গতি ও মোবাইলে কথা বলায় আমাদের সঙ্গীদের হারাতে হলো

ড্রাইভারের বেপরোয়া গতি ও মোবাইলে কথা বলায় আমাদের সঙ্গীদের হারাতে হলো

চট্টগ্রামের লোহাগাড়ায় যাত্রীবাহী বাস ও মাইক্রোবাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে আটজন নিহত হন। সংঘর্ষের ঘটনায় দুমড়েমুচড়ে যাওয়া মাইক্রোবাস। গতকাল চকরিয়ার চিরিংগা হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির সামনে। ছবি: প্রথম আলো

মাদারীপুর প্রতিনিধি,

মাদারীপুর সদর হাসপাতালের ভেতরে ঢুকতেই কান্নার আওয়াজ। বৃহস্পতিবার বেলা একটা। প্রিয় মানুষকে খুঁজে না পেয়ে কেউ হাউমাউ করে কান্নাকাটি করছে, কেউবা স্বজনের মরদেহ দেখেই আহাজারি করছে। ক্রমেই বাড়ছিল আহত রোগীর সংখ্যা। রোগীদের চিকিৎসা দিতে হিমশিম খাচ্ছিলেন কর্তব্যরত চিকিৎসকেরাও। হাসপাতালের শয্যা না থাকায় মেঝেতে চিকিৎসা নিচ্ছেন অন্তত ১৫ জন নারী ও পুরুষ।

তাঁদের একজন মুজাম হাওলাদার (৪০)। তিনি কালকিনি উপজেলার আদিপাড়া এলাকার সেকাম হাওলাদারের ছেলে। মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনা থেকে ভাগ্যক্রমে বেঁচে গেছেন। মাথায় গুরুতর আঘাত নিয়ে তিনি এই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। দুর্ঘটনার পরিস্থিতি বলতে গিয়ে মুজাম বলছিলেন, ‘বাসটি শুরু থেকেই খুব দ্রুতগতিতে চলছিল। আমরা একাধিকবার বলেছি যে ড্রাইভার সাহেব আস্তে চালান। এ কথা বলায় আমাদের সঙ্গে হেলপার ও চালকের বাগ্‌বিতণ্ডাও হয়। কিন্তু কোনো কথাই চালক শোনেননি। এমনকি স্টিয়ারিং হাতে চালক একাধিকবার ফোনে কথাও বলেছেন। তাঁর বেপরোয়া গতি আর অসচেতনতার কারণেই আমরা আজ সঙ্গীদের হারালাম।’

গতকাল বৃহস্পতিবার ফরিদপুরের সদরপুর উপজেলার চন্দ্রপাড়া এলাকায় অনুষ্ঠিত ওরস মাহফিল শেষ করে সুবিন-নবিন নামের একটি যাত্রীবাহী বাসে মাদারীপুর সদরের ভাঙ্গা ব্রিজ এলাকায় ফিরছিলেন মুসল্লিরা। সদর উপজেলার কলাবাড়ি এলাকায় পৌঁছালে বিপরীত দিক থেকে আসা অপর একটি ট্রাককে জায়গা দিতে গিয়ে রাস্তার পাশে খাদে পড়ে যায় বাসটি। ঘটনাস্থলে ৮ জন নিহত হন। আহত হন অন্তত ৩০ জন। এ ছাড়া গুরুতর আহত অবস্থায় তিনজনকে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।

আহত আরেক যাত্রী রুনি বেগম। তিনি বলেন, ‘হঠাৎ বিকট শব্দ। তারপর গাড়ি উল্টে চলে গেল খাদে। কী থেকে যে কী হলো, কিছুই বুঝে উঠতে পারলাম না। ভাবছি মরেই গেছি। কিন্তু আল্লাহর রহমতে বেঁচে গেছি। তবে খারাপ লাগছে এটা ভেবে যে বুধবার সকালে একসঙ্গে সবাই মিলে ওরস মাহফিলে গেলাম। আজ (বৃহস্পতিবার) ফেরার সময় হারাতে হলো স্বজনদের।’

তামান্না নামে এক স্কুলছাত্রী বলে, ‘আমি মা-বাবার সঙ্গে ছিলাম। ওয়াজ হচ্ছিল। হঠাৎ চালক অন্য গান ছাড়ায় যাত্রীরা চটে যায়। কিন্তু চালক কারও কথা না শুনে দ্রুতগতিতে বাস চালাচ্ছিল। এরপরই হঠাৎ সব অন্ধকার হয়ে গেল। পরে আমি কীভাবে হাসপাতালে এলাম, নিজেও জানি না।’

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী আবদুল রাজ্জাক। তাঁর বাড়ি কালকিনি উপজেলায়। রাজ্জাক বলেন, ‘যাত্রীবাহী ওই বাসের পেছনে আমরা একটা মাইক্রোবাসে ছিলাম। বাসটি বেপরোয়া গতিতে চলছিল। চোখের সামনে এমন দুর্ঘটনা সত্যি মর্মান্তিক।’ রাজ্জাক নিজেও উদ্ধারকাজে অংশ নেন।

ফরিদপুরের ভাঙ্গা হাইওয়ে থানার ওসি মো. মাহফুজার রহমান বলেন, ‘দুর্ঘটনার কবলে পড়া সুবিন-নবিন বাসটির নম্বর নাটোর ব-০০৬৪। দুর্ঘটনার কারণ অনুসন্ধান করা হচ্ছে। তবে আমাদের ধারণা, গাড়িটির কাগজপত্র ঠিক নেই। আমরা মালিকপক্ষকে গাড়িটির কাগজ দেখাতে বলেছি। কিন্তু তারা দেখায়নি। আমরা তাদের এক দিন সময় দিয়েছি।’

এই পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, যাত্রী ও প্রত্যক্ষদর্শীরা বলছেন, বাসটি বেপরোয়া গতিতে চলছিল। চালক কোনো সচেতনতা অবলম্বন করেনি। এ কারণেই দুর্ঘটনা ঘটেছে।

নিহতদের লাশ মাদারীপুর সদর হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে। আহতদের মধ্যে বেশ কয়েকজনকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। মাদারীপুর সদর হাসপাতালের চিকিৎসক অখিল সরকার বলেন, তাঁরা আহতদের সাধ্যমতো চিকিৎসা দিয়ে যাচ্ছেন।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST