ঘোষনা:
শিরোনাম :
চতুর্থ ধাপে ১০৭টি উপজেলা পরিষদে আজ রোববার ভোট নেওয়া হচ্ছে। প্রতিদ্বন্দ্বী না থাকায়। ১৫টি উপজেলা পরিষদে ভোট হচ্ছে না

চতুর্থ ধাপে ১০৭টি উপজেলা পরিষদে আজ রোববার ভোট নেওয়া হচ্ছে। প্রতিদ্বন্দ্বী না থাকায়। ১৫টি উপজেলা পরিষদে ভোট হচ্ছে না

ঢাকা প্রতিবেদক,
চতুর্থ ধাপে ১০৭টি উপজেলা পরিষদে আজ রোববার ভোট নেওয়া হচ্ছে। সকাল ৮টায় ভোট গ্রহণ শুরু হয়। বিকেল ৪টা পর্যন্ত টানা ভোট গ্রহণ চলবে।

প্রথম তিন ধাপের মতো উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের চতুর্থ ধাপও অনেকটা একতরফা হচ্ছে। নির্বাচন কমিশনের (ইসি) তথ্য অনুযায়ী, প্রতিদ্বন্দ্বী না থাকায় এই ধাপেও ৩৯টি উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে ভোটের প্রয়োজন হচ্ছে না।

আর চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও নারী ভাইস চেয়ারম্যান—এই তিন পদের কোনোটিতেই প্রতিদ্বন্দ্বী না থাকায় ১৫টি উপজেলা পরিষদে ভোটেরই দরকার হচ্ছে না।

সব মিলিয়ে প্রথম চার ধাপে ৪৪৬ উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত প্রার্থী ১০৭ জন। অথচ এবারই প্রথম দলীয় প্রতীকে ভোট হচ্ছে।

কোনো পদেই প্রতিদ্বন্দ্বী না থাকায় যে ১৫টি উপজেলা পরিষদে ভোট হচ্ছে না, সেগুলো হলো ভোলার ভোলা সদর, মনপুরা ও চরফ্যাশন; যশোরের শার্শা, ময়মনসিংহের গফরগাঁও, ঢাকার সাভার ও কেরানীগঞ্জ; কুমিল্লার লাকসাম, নাঙ্গলকোট, মনোহরগঞ্জ, দেবীদ্বার ও চৌদ্দগ্রাম; নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা ও ফেনীর পরশুরাম।

আজ পটুয়াখালী সদর, কক্সবাজার সদর, বাগেরহাট সদর, ময়মনসিংহ সদর, মুন্সিগঞ্জ সদর ও ফেনী সদরে ভোট হচ্ছে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম)।

একতরফা এই উপজেলা নির্বাচন নিয়ে বিভিন্ন মহলে সমালোচনা আছে। নির্বাচন কমিশনেও এ নিয়ে সমালোচনা আছে। নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার বলেছিলেন, একতরফা এ ধরনের নির্বাচন গণতন্ত্রের জন্য অশনিসংকেত।

ইসির তথ্য অনুযায়ী, চতুর্থ ধাপের ভোটে চেয়ারম্যান পদে মোট প্রার্থী ৩৫১ জন। ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী ৫৩৩ জন এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে লড়ছেন ৪০৬ জন। মোট ভোটকেন্দ্র ৯ হাজার ৭৪০ টি। ভোটকক্ষের সংখ্যা ৬৩ হাজার ৬৯৬। মোট ভোটার ২ কোটি ৫৫ লাখ ৪০ হাজার ৭০৪ জন।

বিএনপিসহ সরকারবিরোধী দলগুলো এবারের উপজেলা নির্বাচন বর্জন করায় ভোট নিয়ে মানুষের মধ্যে তেমন একটা আগ্রহ দেখা যাচ্ছে না। প্রতিদ্বন্দ্বিতাও সেভাবে হচ্ছে না। প্রথম ধাপে ১৪ জন, দ্বিতীয় ধাপে ২৩ জন, তৃতীয় ধাপে ৩১ জন এবং চতুর্থ ধাপে ৩৯ জন চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায়। মূলত বেশির ভাগ উপজেলায় আওয়ামী লীগের প্রার্থীর মূল প্রতিদ্বন্দ্বী দলের বিদ্রোহী (স্বতন্ত্র) প্রার্থী। প্রথম তিন ধাপের নির্বাচনে ভোট পড়ার হার ৪০ শতাংশের কিছু বেশি।

জানতে চাইলে সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন) সম্পাদক বদিউল আলম মজুমদার বলেন, দেশের নির্বাচন প্রক্রিয়া ভেঙে পড়েছে। এর কারণ আস্থাহীনতা। এর পরিণতি চরম অমঙ্গলজনক হবে। এ পরিস্থিতি উত্তরণে জরুরি ভিত্তিতে একটি রাজনৈতিক সমঝোতা প্রয়োজন। তিনি আশা করেন, সরকারি দল এ বিষয়ে উদ্যোগ নেবে।

চতুর্থ ধাপে ১২৮টি উপজেলায় ভোট হওয়ার কথা থাকলেও তিন পদের কোনোটিতেই প্রতিদ্বন্দ্বী না থাকায় ১৫টি উপজেলায় ভোট হচ্ছে না। এ ছাড়া আদালতের নির্দেশে খুলনার ডুমুরিয়া, ফেনীর ছাগলনাইয়া, ময়মনসিংহের ত্রিশাল ও কুমিল্লার বরুড়ার নির্বাচন এবং নির্বাচন কমিশনের নির্দেশে পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া ও নোয়াখালীর কবিরহাট উপজেলা পরিষদের নির্বাচন স্থগিত হয়। তাই এসব উপজেলায় আজ ভোট হচ্ছে না। বাকি ১০৭টি উপজেলা

উপজেলা নির্বাচনের আচরণবিধি অনুযায়ী, সাংসদেরা এই নির্বাচনের প্রচারে অংশ নিতে পারবেন না। কোনো সাংসদ কোনো উপজেলার ভোটার হলে কেবল ভোট দেওয়ার জন্য তিনি ভোটকেন্দ্রে যেতে পারবেন। কিন্তু অনেকটা একতরফা এই নির্বাচনেও আচরণবিধি লঙ্ঘন করে প্রার্থীর পক্ষে প্রচার চালিয়েছেন বেশ কয়েকজন সাংসদ। তাঁরা যাতে আচরণবিধি মেনে চলেন, সে বিষয়ে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদা জাতীয় সংসদের স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরীকে চিঠি লেখেন। তা সত্ত্বেও সাংসদদের অনেকে আচরণবিধি মানেননি।

প্রথম ধাপ থেকে চতুর্থ ধাপ পর্যন্ত ইসি অন্তত ২০ জন সাংসদকে সতর্ক করে এলাকা ছাড়ার জন্য নির্দেশ দিয়েছে। সর্বশেষ গতকাল শনিবার চতুর্থ ধাপের ভোটের আগের দিন তিন সাংসদকে এলাকা ছাড়ার নির্দেশ দিয়ে চিঠি দিয়েছে ইসি। এই তিন সাংসদ হলেন ময়মনসিংহ-৯ আসনের আনোয়ারুল আবেদীন খান, যশোর-৪ আসনের রণজিত কুমার রায় ও নোয়াখালী-৪ আসনের একরামুল করিম চৌধুরী।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST