ঘোষনা:
শিরোনাম :
দিনাজপুরে ‍‍‍‍‍” মানুষ মানুষের জন্য ” সংগঠনের উদ্দ্যোগে মাস্ক বিতরণ চাঁদপুরে করোনায় আক্রান্ত ২জনের চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু : আক্রান্ত আরো ২৫জন। দেশে হারিয়ে যাচ্ছে গ্রামীণ খেলা-ধুলা । সাতক্ষীরায় এক শিশুকে হত্যার ভয় দেখিয়ে ধর্ষনের অভিযোগে,ধর্ষক সিরাজুল গ্রেপ্তার । খুলনা করোনা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় এক বৃদ্ধের মৃত্যু। চট্টগ্রামে করোনায় আরও ৩ জনের মৃত্যু, নতুন আক্রান্ত ৩৮০ । নারায়ণগঞ্জে লঞ্চ ডুবির ঘটনায় ১৪ স্টাফ সহ এসকেএল -৩ জাহাজটি আটক। ভবানীগঞ্জে করোনা ভাইরাস সংক্রমণে সচেতন করেন,অতিরিক্ত পুলিশ সুপার, এ.এস. এম. মুক্তারু জ্জামান। জলঢাকা থানা নীলফামারী কৃষকদের মাঝে আউশ ধানের বীজ ও সার বিনামূল্যে বিতরণ। বঙ্গবন্ধু ৯ম গেমসে ৯ স্বর্ণ,৭রৌপ্য,১তাম্র অর্জনে চ্যাম্পিয়ন আনসার,ভিডিপি।রানার্সআপ বাংলাদেশ সেনাবাহিনী।
নীলফামারীতে বিদ্যুতের অব্যাহত লোড শেডিং,অতিষ্ঠ জেলাবাসি।

নীলফামারীতে বিদ্যুতের অব্যাহত লোড শেডিং,অতিষ্ঠ জেলাবাসি।

নীলফামারী প্রতিনিধিঃ
জেলার ডোমারে বিদ্যুতের অব্যাহত লোড শেডিংয়ে অতিষ্ঠ হয়ে পরেছে ডোমারবাসী। মার্চ মাসের প্রথম সপ্তাহ থেকেই বিদ্যূতের লুকোচুরি খেলায় হাফিয়ে উঠেছে এ অঞ্চলের মানুষ। সকাল থেকে রাত অবধি প্রায় ৪০ বারের মত বিদ্যুতের আসা যাওয়ায় বিরক্ত হয়ে পরেছে মানুষজন। সামান্য বৃষ্টি হলেই ঘন্টার পর ঘন্টা বিদ্যুত বিহিন অবস্থায় থাকতে হয় ডোমারবাসীকে। আর বাতাস হলেতো কথা নেই। সামান্য বাতাসেই ১২ থেকে ১৬ ঘন্টা বিদ্যুত বিহিন অবস্থায় থাকতে হয় এ উপজেলার মানুষজনকে।গত এক সপ্তাহ থেকে বিদ্যুতের লাগামহীন লোড শেডিংয়ের মুখোমুখি হতে হয়েছে। মঙ্গলবার রাত ১২টা থেকে বুধবার দুপুর পর্যন্ত বিদ্যুত বিহিন অবস্থায় থাকতে হয় ডোমারবাসীকে। বুধ ও বৃহস্পতিবার দুপুর থেকে সারারাত বিদ্যুতের আসা যাওয়ায় মানুষজন অতিষ্ঠ হয়ে পরেছে। শুক্রবার দুপুর থেকে কোন কারন ছাড়াই তিনঘন্টা বিদ্যুত বন্ধ থাকে। এদিকে কিছুদিন আগে ডোমার বিদ্যুত বিভাগের প্রায় সকল কর্মকর্তাকে বদলী,ষ্টান্ড রিলিজ ও মিটার রিডার ১২ জনের চাকুরী চলে যায় বিদ্যুত অফিসের নানা অনিয়ম আর দুর্নীতির কারনে। বিদ্যুতের এই অব্যাহত লোড শেডিংয়ের কারনে ব্যবসায়ী থেকে শুরু কওে ছাত্র/ছাত্রীদের নানা সমস্যায় পরতে হচ্ছে। বর্তমানে এইচএসসি পরীক্ষা চললেও থেমে নেই লোডশেডিং। ফলে ভোগান্তিতে পরতে হচ্ছে ছাত্র/ছাত্রীদের। অপরদিকে বিদ্যুতের নাজুক পরিস্থিতির কারনে বিদ্যুতের সাথে জড়িত মিল .কলের মালিকদের ব্যবসা গুটিয়ে নিতে হচ্ছে। বিদ্যুত না থাকায় দিল মালিকরা শ্রমিকদের বেতন দিতে হিমশিম খেতে হচ্ছে। শাওন নামে এক ব্যবসায়ী জানান,গ্রাম থেকে শহর পর্যন্ত কারেন্টের পিলার বসানো হলেও বিদ্যুতের কোন উন্নতি হয়নি। আগের চেয়ে বিদ্যুতের অবস্থা আরো খারাপ হয়েছে। নাম না জানার শর্তে এক বিদ্যুত গ্রাহক জানান,বিদ্যুত না থাকার কারন জানার জন্য আমি বিদ্যুত অফিসে ফোন দিলে তারা বলে বিদ্যূতের মাথা খারাপ হয়েছে তাই বিদ্যুত নেই। এদিকে প্রতিদিনেই ডোমারবাসীকে বিদ্যূতের লোড শেডিংয়ের মুখে পরতে হলেও বিদ্যূত বিলের সময় সঠিক সময়ে বিল পরিশোধ করতে হচ্ছে। ডোমার বিদ্যুত বিভাগের সহকারী প্রকৌশলী সেলিম রেজা জানান,ডোমার উপজেলায় ৯ মেগাওয়াট বিদ্যূতের প্রয়োজন থাকলেও আমরা তার চেয়ে কম বিদ্যুত পেয়ে থাকি। তাই এই সমস্যায় পরতে হচ্ছে।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST