ঘোষনা:
শিরোনাম :
সাতক্ষীরার শ্যামনগরে আত্মসমর্পনকারী বনদস্যুর মাঝে ঈদ উপহার সাতক্ষীরার দুটি উপজেলায় ভূমিহীন ও গৃহহীনদের চাবী ও দলিল দিয়ে ভূমিহীন ও গৃহহীন মুক্ত ঘোষণা নীলফামারীতে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার ও জমির মালিকানা বহালে সংবাদসম্মেলন মিথ্যা প্রলোভনে পাহাড়ের নারীদের পাচার করছে একটি সংবদ্ধ চক্র সাতক্ষীরায় ভাঙান মাছ চাষ পদ্ধতি ও ব্যবস্থাপনা বিষয়ক কর্মশালা গ্রামীণব্যাংকের সেবার মান বাড়ানোর প্রতিশ্রুতি, নীলফামারীতে কোরবানির জন্য প্রস্তুত ২ লাখ ৭৬ হাজার ২০১টি পশু নীলফামারীতে প্রযুক্তিগত দক্ষতা বৃদ্ধিতে নারীদের ছয় মাস ব্যাপি প্রশিক্ষণের উদ্বোধন চট্টগ্রামে টাকার জন্য মাকে কুপিয়ে হত্যা, ছেলেকে আটক করেছে পুলিশ যুবদলের নির্যাতিত নেতৃবৃন্দের সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত
সবার প্রতিপক্ষ অদৃশ্য অজানা এক ভাইরাস, নাম যার কোভিড-১৯।

সবার প্রতিপক্ষ অদৃশ্য অজানা এক ভাইরাস, নাম যার কোভিড-১৯।

সৈয়দ ইশতিয়াক রেজা , প্রধান সম্পাদক, জিটিভি।
নভেল করোনাভাইরাসের সাথে আমাদের দুঃসহ বসবাসের দুই মাসেরও বেশি সময় পেরিয়ে গেল। গত ৮ মার্চ দেশে প্রথম করোনা রোগী শনাক্তের পর ২৬ মার্চ থেকে সাধারণ ছুটি নামের এক অসাধারণ চর্চায় আছি আমরা। শুরু থেকেই বলছি এটা এক যুদ্ধ এবং এই যুদ্ধে আমাদের জয়ী হতে হবে। আজ সারা পৃথিবীই এক যুদ্ধে শামিল। ভয়ানক এ যুদ্ধ। সবার প্রতিপক্ষ অদৃশ্য অজানা এক ভাইরাস, নাম যার কোভিড-১৯।
যুদ্ধজয়ের প্রধান কৌশল হিসেবে সব দেশের কাছে একটাই পদ্ধতি ছিল, লকডাউন ঘোষণা করে মানুষকে ঘরে আটকে রেখে রোগের বিস্তার ঠেকানো, যাতে রোগ দ্রুত ব্যাপক মানুষকে সংক্রমিত করতে না পারে। কিন্তু আমরা লকডাউন বলিনি, মানুষকেও সম্পূর্ণভাবে ঘরে আটকে রাখতে পারিনি। দ্বিতীয় পর্যায়ের কৌশল ছিল, লকডাউনের ফলে জাতীয় অর্থনীতির ক্ষতি পুষিয়ে নিতে ব্যবস্থা নেয়া এবং রোজগারহীন মানুষকে, হতদরিদ্রদের ত্রাণ সহায়তা দেয়া। কানাডায়, ইউরোপে সব মানুষ ঘরে বসেই চলার মতো একটা নির্দিষ্ট পরিমাণ নগদ সহায়তা পেয়েছে।
আমাদের প্রধানমন্ত্রী অর্থনীতি চাঙ্গা করতে উদ্যোগ নিয়েছেন, প্রণোদনা দিয়েছেন, কিন্তু প্রণোদনা যারা পাবেন, সেই পোশাক কারখানার মালিকরা শ্রমিকদের শত মাইল দূর থেকে টেনে হেঁচড়ে আনা-নেয়া করে এক হৃদয়বিদারক দৃশ্যের অবতারণা করেছেন। অনেক সময় লাগল এই রফতানিমুখী শিল্পে একটা শৃঙ্খলা আনতে। এখনও মাঝে মাঝে সড়ক বন্ধ হয় পোশাককর্মীদের বেতন-ভাতার দাবির বিক্ষোভে। ত্রাণ নিয়ে অনিয়ম আর দুর্নীতি বড় আলোচনায় চলে এলো এবং ৫০ লাখ পরিবারকে দিতে যাওয়া ২৫০০ টাকার নগদ সহায়তার উদ্যোগটিও এর বাইরে থাকল না।
করোনাভাইরাস মোকাবিলায় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রথম ও প্রধান শর্ত ছিল বেশি করে পরীক্ষা। আমরা আজও একটা সন্তোষজনক পর্যায়ে এই পরীক্ষা কার্যক্রমকে নিতে পারিনি, যদিও শুরুর পর্যায় থেকে এখন পরীক্ষা অনেক বেড়েছে। টেস্ট বাড়েনি, করোনার চিকিৎসা বিস্তৃত আকারে নিশ্চিত হযনি। তবুও ঈদের আগে দোকানপাট, শপিংমল খুলে দেয়া হলো। বলা হলো, স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলবে বেচাকেনা। কিন্তু তার বালাই আমরা কোথাও দেখিনি।
ঈদের আগে পুলিশপ্রধান বললেন, ঢাকার বাইরে কাউকে যেতে দেয়া হবে না, কাউকে ঢাকায় ঢুকতে দেয়া হবে না। কিন্তু সেটা তারা নিজেরাই বজায় রাখতে পারলেন না। ব্যক্তিগত গাড়িওয়ালাদের সুবিধা দিতে গিয়ে গণমানুষকেই সুযোগ করে দিলেন বড় বড় জটলা করে, গাদাগাদি করে বাড়ি যাওয়া-আসা করতে।
এখন বলা হলো, ৩১ মে থেকে সব খুলবে। প্রথমে বলা হলো অফিস-আদালত খুললেও গণপরিবহন ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে। পরে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ গণপরিবহনও চলবে। তবে জনপ্রশাসন মন্ত্রী বললেন, সবকিছু হবে সীমিত আকারে, স্বাস্থ্যবিধি মেনে। এই সীমিত আকার আর স্বাস্থ্যবিধির কোনো সুস্পষ্ট ব্যাখ্যা নেই। তিনি গণমাধ্যমকে বললেন, স্বাস্থ্যবিধি কড়াকড়িভাবে পালন করা হবে।
কিন্তু কীভাবে? উন্নত দেশে যেভাবে গণপরিবহনে মানুষের সিট বিন্যাস করে দেয়া হয়েছে, সেভাবে কি সরকার করেছেন বা করবেন? করলে সেটা রক্ষা করা সম্ভব হবে? আমরা জানি সেটা পারা যাবে না। আমরা দেখব মানুষ চরম গাদাগাদি করে বাসের ভেতর দাঁড়াবে, দরজায় বাদুরঝোলা হয়ে এক জেলা থেকে অন্য জেলায় যাবে। যে সীমিত আকার আর স্বাস্থ্যবিধি দোকানে আর মার্কেটে মানা সম্ভব হয়নি, সেটা গণপরিবহনে মানা যাবে বলে নিশ্চিত হতে পারি না।
আমাদের ছোট ও গরিব দেশ, কিন্তু বিপুল বিশাল জনসংখ্যা। জনস্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনা অনুন্নত, মানুষের চেতনার স্তরও বেশ নিচের দিকে। অনেক মানুষই অসচেতন, তাই অনেক কিছুই তারা মেনে চলে না। কিন্তু যেসব সংস্থা বা প্রতিষ্ঠান মানুষকে সেবা-পরিষেবা দিয়ে শৃঙ্খলায় রাখার কথা, তাদের দায়িত্ব-কর্তব্য পালনের ক্ষেত্রেও সমন্বয়ের বিরাট অভাব লক্ষণীয়। স্বাভাবিক পরিস্থিতিতে এই ব্যর্থতার পরিণাম ততটা বোঝা যায় না। তেমন একটা আলোচনাও হয় না। কিন্তু এই মহামারির সময়ে সবকিছু উৎকটভাবে হাজির হলো মানুষের সামনে।
আগামী ৩১ মে থেকে নতুন বাস্তবতা আমাদের সামনে। আমাদের বিশাল আকারে করোনা পরীক্ষা হবে না, এটা ধরে নিতে হবে। আমাদের চিকিৎসাসেবা পাওয়া বিশাল সৌভাগ্যের ব্যাপার, বরং না পাওয়াটাই স্বাভাবিক ধরে নিতে হবে। এই বাস্তবতায় সরকারের বিভিন্ন সংস্থার সমন্বয় নিয়ে আর ভাবনা, সমালোচনা বা রম্য করার সুযোগ নেই। সমন্বয় আর সচেতনতা দরকার ব্যক্তিতে ব্যক্তিতে, অফিসে অফিসে, পাড়ায় পাড়ায়, পরিবারের ভেতরে বাইরে। সরকার বাহাদুর সুশৃঙ্খল না বিশৃঙ্খল আচরণ করল, এ নিয়ে চিন্তিত হওয়ার মতো সময় আর নেই।
সরকার সকল দুয়ার খুলেছে। আমাদের কাজ করতে হবে। অর্থনীতির চাকাকে সচল রাখতে হবে। কিন্তু একইসাথে বাঁচার সংকল্প থাকতে হবে। সরকারি সেবা প্রতিষ্ঠান ও সংস্থার নানা আচরণে অনেককিছুতে অহেতুক বিলম্ব হয়েছে। রাষ্ট্র মানুষের পাশে আছে কি নেই, থাকলেও কেমন করে আছে সেটা ভাবার চেয়ে আমরা প্রত্যেকে যার যার পাশে আছি কিনা সেটা ভাবাই এখন জরুরি।
করোনা নিয়ে আতঙ্ক কেটে যাওয়ার কোনো লক্ষণ নেই! বরং এই মারণ ভাইরাসের থাবায় আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা বেড়েই চলেছে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, আরও বেশ কিছুদিন এই ভাইরাসের লালচোখ দেখতে হবে। তবুও জীবনযাত্রাকে ধীরে ধীরে স্বাভাবিক ছন্দে ফেরানোর উদ্যেগ নিয়েছে সরকার। এই অবস্থায় আমরা যেন একের সঙ্গে অপরের সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার নিদান পালন করি, সুরক্ষাবিধি মেনে মাস্ক ছাড়া কারণে অকারণে ইতিউতি ঘোরাফেরা না করি, হাত ধোয়া ও পরিচ্ছন্নতার নির্দেশনা মেনে চলি। মনে রাখতে হবে উপেক্ষার মনোভাব বিপদকে আহ্বানের শামিল।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST