ঘোষনা:
শিরোনাম :
নীলফামারী চৌরঙ্গীতে আগুন, দোকান ভস্মীভূত নীলফামারী উত্তরণ নার্সিং এন্ড মিডওয়াইফারি ইনস্টিটিউটের আন্তর্জাতিক নার্সেস দিবস পালিত সাতক্ষীরায় ২০ মেট্রিক টন অপরিপক্ক আম জব্দের পর তা বিনষ্ট নীলফামারী সদর উপজলোর মনোনয়ন যাচাই শেষ, এক চেয়ারম্যান প্রার্থির মনোনয়ন অবৈধ নীলফামারীতে মহান মে দিবস পালিত নীলফামারীতে গচ্ছিত জামানত ও পি.এফ এর টাকা উদ্ধারের দাবীতে প্রোণ অফিস ঘেরাও। নীলফামারীতে সাংবাদিকের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবীতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ। নীলফামারী জলঢাকার পৌরসভায় নোভা বিজয়ী নীলফামারীর জলঢাকা উপ-নির্বাচনে বিএনপি প্রার্থির পক্ষে প্রচারণা, এমপির বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন। নীলফামারীতে সাংবাদিক নির্যাতনের ঘটনাকে ভিন্নখাতে প্রবাহিত করতে সাংবািদকের নামে থানায় মিথ্যা চাঁদাবাজি মামলা
অফশোর ব্যাংকিং আইন পাস হয়েছে জাতীয় সংসদে

অফশোর ব্যাংকিং আইন পাস হয়েছে জাতীয় সংসদে

স্টাফ রিপোর্টার,
জাতীয় সংসদে অফশোর ব্যাংকিং আইন পাস হয়েছে। অর্থমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী ‘অফশোর ব্যাংকিং বিল-২০২৪’ পাসের প্রস্তাব করলে তা মঙ্গলবার (৫ মার্চ) কণ্ঠভোটে পাস হয়।

তবে বিলটি পাসের বিরোধিতা করেন বিরোধী দল জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্যরা। বিলটি ওপর তাদের জনমত যাচাই-বাছাই কমিটিতে প্রেরণ ও সংশোধনী প্রস্তাবগুলো নিষ্পত্তি করেন স্পিকার।

এ বিলের সমালোচনা করে জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্য মুজিবুল হক বলেন, অফশোর ব্যাংকিং সম্পর্কে আমাদের কোনো ধারণা নেই। আইনটি আগে ছিল না। বিলের উদ্দেশ্য ও কারণ বিস্তারিত থাকলে আমরা বলতে পারতাম। আইনটির সুবিধা কী আর অসুবিধা কী। অফশোর ব্যাংকের মূল উদ্দেশ্য বড় বড় চোররা, রাঘব-বোয়ালরা, চোরকারবারিরা অফশোর ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে পাচারকৃত টাকা হালাল করে দেশে ফেরত আনবে। বাংলাদেশের কোনো কোনো ব্যক্তির নাম এসেছে পত্রিকায়। তারাও অফশোর ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে টাকা হালাল করেছেন, বিদেশে বাড়ি করেছেন, হোটেল করেছেন। যেসব চোর বাংলাদেশের টাকা বিদেশে পাচার করেছে তারা যদি এ ফাঁকে কর ছাড়া টাকা ফেরত আনেন ভালো। কিন্তু টাকা পাচারকারীরা ফেরত আনবে বলে মনে হয় না। অফশোর ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে টাকা পাচার বাড়বে।

জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্য মাসুদ উদ্দিন চৌধুরী বলেন, অফশোর ব্যাংকিং সম্পর্কে আমরা যেটা শুনি যে, বিভিন্ন জায়গায় আছে, টাকা বাংলাদেশ থেকে পাচার করে বারমুডা, এখানে-সেখানে রাখা হয়। এ ব্যাংকিং সম্পর্কে আমাদের নেতিবাচক ধারণা রয়েছে। এ আইনের মাধ্যমে প্রচুর বৈদেশিক মুদ্রা ট্যাক্স ফ্রি আসতে পারবে। কিন্তু এটার নেতিবাচক প্রতিক্রিয়াটা কীভাবে এড্রেস করবো? এ জিনিসটা আমাদের জানা দরকার। আইনটির তাড়াহুড়ো করা হচ্ছে।

পাস হওয়া এ বিলে বলা হয়েছে, অফশোর ব্যাংকিং অর্থ বাইরের উৎস এবং অনুমোদিত বিশেষায়িত অঞ্চলে পরিচালিত শতভাগ বিদেশি মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠান এবং বাংলাদেশ ব্যাংক অনুমোদিত উৎস থেকে বৈদেশিক মুদ্রায় প্রাপ্ত তহবিল দিয়ে এই আইন ও বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্দেশনা অনুযায়ী অনিবাসী বা ক্ষেত্রমতো বাংলাদেশে নিবাসী ব্যক্তির সঙ্গে পরিচালিত ব্যাংকিং কার্যক্রম। তফসিলি ব্যাংকগুলো অফশোর ব্যাংকিং করতে পারবে।

এ বিষয়ে বিলে বলা হয়েছে, অফশোর ব্যাংকিং কার্যক্রম পরিচালনার জন্য বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্দেশনার আলোকে সংশ্লিষ্ট তফসিলি ব্যাংক পর্ষদের অনুমোদিত নীতিমালা থাকতে হবে। তফসিলি ব্যাংকের অফশোর কার্যক্রমের জন্য পৃথক হিসাবপত্র সংরক্ষণ করতে হবে। বাংলাদেশ ব্যাংকের বিশেষ অনুমোদনে অভ্যন্তরীণ ব্যাংকিং ইউনিট থেকে অফশোর ব্যাংকিং ইউনিটে তহবিল স্থানান্তর করা যাবে বলেও বিলে উল্লেখ করা হয়েছে। এতে আরও বলা হয়েছে, অফশোর ব্যাংকিং ইউনিট যেকোন অনুমোদিত বৈদেশিক মুদ্রায় হিসাব পরিচালনা করতে পারবে। অফশোর ব্যাংকিং ব্যবসায় অফশোর ব্যাংকিং ইউনিট আমানতকারী বা বৈদেশিক ঋণদাতাদের প্রদেয় সুদ বা মুনাফা প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ করমুক্ত থাকবে। আমানতকারী বা বৈদেশিক ঋণদাতাদের হিসাব যেকোনো প্রকার শুল্ক ও লেভিমুক্ত হবে।

আমানত ও ঋণ কার্যক্রম পরিচালনার বিষয়ে বিলে বলা হয়েছে, রপ্তানি প্রক্রিয়াকরণ অঞ্চল, সরকারি রপ্তানি প্রক্রিয়াকরণ অঞ্চল, অর্থনৈতিক অঞ্চল এবং হাইটেক পার্কগুলোর শতভাগ বিদেশি মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠানগুলো থেকে আমানত গ্রহণ করা যাবে। পাশাপাশি অফশোর ব্যাংকিং ইউনিট এই ধরনের প্রতিষ্ঠানকে স্বল্প মেয়াদি ঋণ ও অগ্রিম বা বিনিয়োগ, ঋণপত্র ও গ্যারান্টি সুবিধা প্রদান, বিল ডিসকাউন্টিং, বিল নেগোশিয়েটিং এবং অন্যান্য বৈদেশিক বাণিজ্য সংশ্লিষ্ট বাইরের লেনদেন সেবা দিতে পারবে। অনিবাসী বাংলাদেশি, বিদেশি ব্যক্তি এবং প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে অফশোর ব্যাংকিং ইউনিট আমানত ও ঋণ গ্রহণ করতে পারবে।

আইন না থাকলেও অর্থ মন্ত্রণালয়ের জারি করা এক প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে দেশে একভাবে অফশোর ব্যাংকিং চালু আছে ১৯৮৫ সাল থেকে। পরে ২০১৯ সালে অফশোর ব্যাংকিং নীতিমালা জারি করে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। এরপর কয়েকটি প্রজ্ঞাপনও জারি করা হয়। এখন এ বিষয়ে আইন করা হচ্ছে। অফশোর ব্যাংকিং ব্যবস্থায় বৈদেশিক উৎস থেকে বৈদেশিক মুদ্রায় তহবিল সৃষ্টি হয় এবং প্রচলিত ব্যাংকিং আইন-কানুনের বাইরে আলাদা আইনের মাধ্যমে এ তহবিল পরিচালিত হয় ও হিসাব সংরক্ষণ করা হয়। অফশোর ব্যাংকিং হলো ব্যাংকের ভেতরে আলাদা এক ব্যাংকিং ব্যবস্থা। স্থানীয় মুদ্রার বিপরীতে নির্ধারিত বৈদেশিক মুদ্রায় অফশোর ব্যাংকিংয়ের হিসাব সংরক্ষণ করা হয়।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST