ঘোষনা:
শিরোনাম :
দীর্ঘ এক বছর পর ৩০ মার্চ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ক্লাস শুরু,শিক্ষামন্ত্রী। চট্টগ্রামে সমন্বয়ের অভাবে কাঙ্ক্ষিত উন্নয়ন হচ্ছে না, পল্লি উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী, তাজুল ইসলাম । খুলনার মহাসমাবেশে শ্লোগান,এক সংগ্রাম, এক ডাক, আওয়ামী লীগ সরকার নিপাত যাক। বদরগঞ্জে একঝাঁক তরুন তরুনীদের প্রচেষ্টায় বদরগঞ্জে বি-বাজারের যাত্রা শুরু। বদরগঞ্জে শয়নকক্ষে শিক্ষার্থীর গলাকাটা মরদেহ : হত্যা নাকি আত্মহত্যা। জলঢাকায় গাঁজা কেনাবেচা কালে মা-ছেলেসহ আটক-৩। নীলফামারীর সৈয়দপুর পৌরসভায় প্রথমবার ইভিএমে ভোট।সকল প্রস্তুতি শেষ করেছে প্রশাসন। কিশোরগঞ্জে জাপা কর্মীর জানাজা সম্পন্ন । নীলফামারীতে অটোরিকশা ও নৈশ কোচের মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ১ আহত ১১। নীলফামারীতে সড়ক র্দূঘটনায় ১জন নিহত ও ১২জন ইপিজেড কর্মী আহত
নারীকেই ভাঙতে হবে নীরবতার দেয়াল আন্তর্জাতিক নারী দিবস পালিত

নারীকেই ভাঙতে হবে নীরবতার দেয়াল আন্তর্জাতিক নারী দিবস পালিত

শুক্রবার আন্তর্জাতিক নারী দিবস উপলক্ষে রাজধানীতে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রার আয়োজন করে বিভিন্ন সংগঠন। জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনের ছবি মামুনুর রশিদ

‘লতা নও, বৃক্ষ হও’- বহুকাল আগে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম নারীর উদ্দেশে বলেছিলেন এ কথা। নারী এখন অধিকাংশ ক্ষেত্রে আত্মনির্ভরশীল হয়েছে। তবে সমতা প্রতিষ্ঠা করতে পারেনি এখনও। ঘরে-বাইরে সর্বত্রই নারী বৈষম্যের শিকার; বন্ধ হয়নি সহিংসতাও। নারীর প্রতি এই সহিংসতা ও বৈষম্যমূলক আচরণ দূর করতে হলে নারী সম্পর্কে প্রচলিত দৃষ্টিভঙ্গিতে পরিবর্তন আনতে হবে। নারীর প্রতি সীমাবদ্ধতা অতিক্রম করতে হলে নারীকেই নীরবতার দেয়াল ভাঙতে হবে, প্রতিবাদী হতে হবে। একই সঙ্গে কৃতিত্বের উদাহরণ তৈরি করতে হবে, যা নারীর প্রতি সমাজের তথাকথিত দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তন আনবে।

নারীর প্রতি এসব আহ্বান জানানোর মধ্য দিয়ে গতকাল শুক্রবার যথাযোগ্য মর্যাদায় আন্তর্জাতিক নারী দিবস পালিত হয়েছে। বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা, আলোচনা সভা, মানববন্ধন, সম্মাননা প্রদানসহ বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্য দিয়ে দিবসটি পালন করে বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক, রাজনৈতিক ও নারীবাদী সংগঠন। এ বছর দিবসটির প্রতিপাদ্য ছিল- ‘সবাই মিলে ভাবো, নতুন কিছু করো, নারী-পুরুষ সমতার নতুন বিশ্ব গড়ো’। জাতীয় প্রেস ক্লাবসহ রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে নারীর অধিকার আদায়ে মানববন্ধন, সমাবেশ ও র‌্যালির মাধ্যমে আলাদাভাবে দিবসটি পালন করে মানবাধিকার কমিশন, মহিলা আওয়ামী লীগ, জাতীয় কন্যাশিশু অ্যাডভোকেসি ফোরাম, নারীপক্ষ, নারী শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্র, গৃহশ্রমিক প্রতিষ্ঠা নেটওয়ার্ক, গ্রীনবাংলা গার্মেন্টস ওয়ার্কার্স ফেডারেশন, গার্মেন্টস শ্রমিক ওয়ার্কার্স প্রোটেকশন অ্যালায়েন্স, সম্মিলিত গার্মেন্টস শ্রমিক ফেডারেশন নামের কয়েকটি সংগঠন।

পৃথক কর্মসূচিতে অংশ নিয়ে বক্তারা বলেন, ‘নারীরা এগিয়ে যাচ্ছে নিজ নিজ যোগ্যতায়। কিন্তু, নির্যাতন নারীর এগিয়ে চলার পথে প্রধান অন্তরায় হয়ে আছে। দিন দিন বাড়ছে নিরাপত্তাহীনতা। যে দেশের প্রধানমন্ত্রী নারী, সে দেশে কী করে নারীরা নিরাপত্তাহীনতায় ভোগে।’ তারা বলেন, ‘যে কোনো উপায়ে নারীর নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে। সমাজ রাষ্ট্র নারী উন্নয়নে এগিয়ে আসতে হবে।’

জাতীয় কন্যাশিশু অ্যাডভোকেসি ফোরাম :র‌্যালি, আলোচনা সভা, সম্মাননা প্রদান ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে দিবসটি পালন করেছে সংগঠনটি। ‘নারী-পুরুষের সমভাবনা, নতুন দিনের সূচনা’- এই স্লোগানকে সামনে রেখে ব্যাপক উৎসাহ ও উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে জাতীয় কন্যাশিশু অ্যাডভোকেসি ফোরামের উদ্যোগে শুক্রবার সকালে ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে আলোচনা সভা হয়েছে। এর আগে এক বর্ণাঢ্য র‌্যালি শহরের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে।

র‌্যালির উদ্বোধন ঘোষণা করেন জাতীয় কন্যাশিশু অ্যাডভোকেসি ফোরামের সভাপতি ড. বদিউল আলম মজুমদার। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন মহিলা পরিষদের সভাপতি আয়শা খানম। অনুষ্ঠানে আরও অংশ নেন নারীনেত্রী শাহীন আক্তার ডলি ও ফোরামের সাধারণ সম্পাদক নাছিমা আক্তার জলি। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন দি হাঙ্গার প্রজেক্টের প্রোগ্রাম ম্যানেজার দিলীপ কুমার সরকার এবং অপরাজেয় বাংলার কর্মকর্তা শিরীন আক্তার।

অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ নারী সাংবাদিক কেন্দ্রের সভাপতি নাসিমুন আরা হক মিনু ও নিউজ টোয়েন্টিফোরের প্রধান বার্তা সম্পাদক শাহনাজ মুন্নীকে সম্মাননা দেওয়া হয়। একই অনুষ্ঠানে শিশু-কিশোরদের অংশগ্রহণে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান এবং ‘নারীর কথা-১৪’ নামক একটি প্রকাশনা ও আন্তর্জাতিক নারী দিবসকে কেন্দ্র করে প্রকাশিত পোস্টারের মোড়ক উন্মোচন করা হয়।

মহিলা আওয়ামী লীগ :নারীর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধে সবাইকে সচেতন হওয়ার আহ্বান জানিয়ে র‌্যালি করেছে বাংলাদেশ মহিলা আওয়ামী লীগ। সংগঠনের সভাপতি সাফিয়া খাতুনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত র‌্যালিতে অংশ নেন দলের সাধারণ সম্পাদক মাহমুদা বেগম, জাতীয় মহিলা সংস্থার চেয়ারম্যান অধ্যাপক মমতাজ বেগম প্রমুখ।

নারীপক্ষ :রাজধানীসহ দেশের ৫৮টি জেলা শহরে সহযোগী সংগঠন ও নারী সংগঠনগুলোর নেটওয়ার্ক দুর্বারের মাধ্যমে ‘নারীর নাগরিক অধিকার’ প্রতিপাদ্য নিয়ে বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করে নারীপক্ষ। রাজধানীতে দিনব্যাপী নারীচালিত স্কুটি, রিকশা, সাইকেল ও সুসজ্জিত ট্রাক নিয়ে রোডশো, প্রচারপত্র বিতরণ এবং সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, গান ও নাটক পরিবেশন করে সংগঠনটি। সকাল সাড়ে ৯টায় ধানমণ্ডিতে সংগঠনের কার্যালয়ের সামনে থেকে রোডশো শুরু হয়ে সকাল ১০টায় মানিক মিয়া এভিনিউতে গিয়ে শেষ হয় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে। মানিক মিয়া এভিনিউ থেকে রোডশো কালসী পর্যন্ত গিয়ে সেখানে আর একটি সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান করে। রোডশোটি আশুলিয়ায় গিয়ে আরেকটি সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে কর্মসূচি শেষ করে। এতে গান পরিবেশন করেন বর্ণা চৌধুরী। নাটিকা প্রদর্শন করেন আফরোজা সুলতানা ও তার দল।

নারী সংহতি :’ধর্ষণ-যৌন নিপীড়ন-ভীতি রুখো, আসুন নারীর আত্মমর্যাদা, নিরাপত্তা ও অধিকার প্রতিষ্ঠায় ঐক্যবদ্ধ হই’ শিরোনামে র‌্যালি ও সমাবেশ করেছে সংগঠনটি। জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে সংগঠনটির সমাবেশে বক্তব্য দেন সাধারণ সম্পাদক নারীনেত্রী অপরাজিতা চন্দ, নারীনেত্রী কানিজ ফাতেমা প্রমুখ।

গৃহশ্রমিক অধিকার প্রতিষ্ঠা নেটওয়ার্ক :’নারী গৃহ শ্রমিকদের অধিকার সুরক্ষায় চাই নীতি বাস্তবায়ন ও আইন প্রণয়ন’ শীর্ষক স্লোগানকে সামনে রেখে শুক্রবার সকালে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে মানববন্ধন ও আলোচনা সভা করে সংগঠনটি। এতে বক্তৃতা করেন আনোয়ার হোসেন, সামসুন্নাহার ভূঁইয়া, ডা. ওয়াজেদুল ইসলাম খান, আবুল হোসেন প্রমুখ।

জাতীয় নারী শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্র :নারী শ্রমিকদের নিরাপদ ও স্বাস্থ্যসম্মত কর্মস্থল নিশ্চিত করা ও সব কাজে পুরুষের সমমজুরি দেওয়ার দাবিতে সমাবেশ করেছে জাতীয় নারী শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্র। সমাবেশে সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক শাহিদা পারভিন বলেন, বাংলাদেশে শ্রমিকের সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে। এ সময় তিনি নিরাপদ ও স্বাস্থ্যসম্মত কর্মপরিবেশ নিশ্চিত করা, মাতৃত্বকালীন ছুটি কার্যকর ও শিশুর যত্নকেন্দ্র প্রতিষ্ঠা করাসহ পাঁচ দফা দাবি জানান।

বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশন ঢাকা মহানগর দক্ষিণ মহিলা শাখার উদ্যোগে আয়োজিত মানববন্ধনে নির্যাতিত নারীদের সরকারিভাবে ভাতা দেওয়ার দাবি জানানো হয়েছে।

নারী দিবস উপলক্ষে বাংলাদেশ গার্মেন্টস ওয়ার্কার্স প্রোটেকশন অ্যালায়েন্স সমাবেশ ও র‌্যালি করেছে। সমাবেশে তারা অবসরকালীন শ্রমিকদের এককালীন ১০ লাখ টাকা ভাতা ও গার্মেন্ট শ্রমিকদের রেশন কার্ড চালু ও বিনা নোটিশে শ্রমিকদের ছাঁটাই ও তাদের প্রতি নির্যাতন বন্ধ করাসহ সাতটি দাবি জানিয়েছে।

‘কর্মক্ষেত্রে যৌন হয়রানি প্রতিরোধ আইন’ প্রণয়নসহ সব কারখানায় নারীদের উচ্চপদস্থ্থ পদে পদোন্নতির সুযোগ ও মাতৃত্বকালীন ছুটি ছয় মাস করার দাবি জানিয়েছে সম্মিলিত গার্মেন্টস শ্রমিক ফেডারেশন ও আওয়াজ ফাউন্ডেশন।

এ ছাড়া দিবসটি উপলক্ষে মানববন্ধন, আলোচনা সভা ও সমাবেশ করে সম্মিলিত গার্মেন্টস শ্রমিক ফেডারেশন, আওয়াজ ফাউন্ডেশন, বাংলাদেশ গার্মেন্টস ওয়ার্কার্স প্রোটেকশন অ্যালায়েন্স, গণতান্ত্রিক মহিলা সমিতি, বাংলাদেশ জাতীয় গার্মেন্টস শ্রমিক কর্মচারী লীগ, বাংলাদেশ আদিবাসী নারী নেটওয়ার্কের নেতানেত্রীরা।সমকাল প্রতিবেদক





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST