ঘোষনা:
শিরোনাম :
নারায়ণগঞ্জ আমলাপাড়ার প্রেসিডেন্ট রোড এলাকায় গ্যাস লাইন লিকেজ বিস্ফোরণে ২ নৈশ প্রহরী দগ্ধ। গোপালগঞ্জে করোনায় গৃহবধুর মৃত্যু । বিতর্কিত ‘শিশু’ বক্তা রফিকুল ইসলাম মাদানীর নামে আরও একটি মামলা । ঢাকা সিলেট মহাসড়কে ট্রাকের ধাক্কায় মটর সাইকের আরোহী পুলিশের এস আই নিহত। ডোমার উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তার বিদায়, বরণ সংবর্ধনা । রিসোর্টে নারীকে নিয়ে, মামুনুলের ব্যক্তিগত বিষয়, এ নিয়ে হেফাজতের বক্তব্য নেই। নীলফামারী সৈয়দপুরে বৈশাখ আর ঈদের কেনাকাটায় ব্যাস্ত মানুষ। রাষ্ট্রপতির শোক বার্তা দিয়েছেন একুশে পদকপ্রাপ্ত রবীন্দ্রসংগীত শিল্পীর মৃত্যুতে। সাতক্ষীরায় ঘাতক সাগর গ্রেপ্তার, ‘২০০ টাকার জন্য বন্ধুকে খুন ’ ঘাতকের স্বীকারোক্তি। সীতাকুণ্ডে পুকুর থেকে যুবকের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।স্ত্রীকে আটক।
এরশাদের সর্বশেষ শারীরিক অবস্থা,জাপার ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জি এম কাদেরের সভাপতিত্বে বিকেলে সভা ।

এরশাদের সর্বশেষ শারীরিক অবস্থা,জাপার ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জি এম কাদেরের সভাপতিত্বে বিকেলে সভা ।

 

ঢাকা প্রতিবেদক,

জাতীয় পার্টির (জাপা) দলীয় সভায় আলোচনার কেন্দ্রবিন্দু ছিলেন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন দলের চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। সভায় এরশাদের কবর কোথায় হবে তা নিয়ে সিদ্ধান্তে পৌঁছাতে পারেননি দলটির শীর্ষ নেতারা।

আজ বুধবার বিকেল তিনটা থেকে জাপার সভাপতিমণ্ডলী সদস্য ও দলীয় সাংসদদের যৌথসভায় সভা চলে প্রায়​ আড়াই ঘণ্টা। জাপার ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জি এম কাদেরের সভাপতিত্বে সভায় এরশাদের সর্বশেষ শারীরিক অবস্থা, দেশের বাইরে থেকে ভালো চিকিৎসক আনা যায় কিনা, তা নিয়ে দীর্ঘ আলোচনা হয়। একপর্যায়ে এরশাদের মৃত্যুর হলে তাঁর কবরস্থান কোথায় হবে, তাও আলোচনায় আসে। সভায় জাপার ৩৮ জন প্রেসিডিয়াম ও এমপি উপস্থিত ছিলেন।

সভার দায়িত্বশীল সূত্র জানায়, সভায় শুরুতেই জি এম কাদের ভাই এরশাদের কথা বলতেই আবেগপ্রবণ হয়ে পড়েন। একপর্যায়ে হাউমাউ করে কেঁদে ফেলেন। যদিও দুপুরে বনানীর কার্যালয়ে জি এম কাদের এক সংবাদ ব্রিফিংয়ে বলেন, এরশাদের শারীরিক আগের চেয়ে উন্নতি হয়েছে। সকালে তিনি সিএমএইচে গিয়েছিলেন। তাঁর কণ্ঠ শুনে এরশাদ চোখ ও হাত নাড়িয়েছেন।

জানা গেছে, সভায় কয়েকজন নেতা এরশাদকে ঢাকার সেনানিবাস অথবা সংসদ ভবন প্রাঙ্গণে কবর দেওয়ার প্রস্তাব করেন। এর বিরোধিতা করে কয়েকজন নেতা বলেন, সেনানিবাসে কবর দেওয়া হলে সাধারণ মানুষ তাঁর কবরস্থান জিয়ারত করতে যেতে পারবে না।

সূত্র জানায়, সভায় জাপার সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা, সফিকুল ইসলাম সেন্টু মোহাম্মদপুর আদাবরে জায়গা কিনে কবর দেওয়ার প্রস্তাব দেন।

কাজী ফিরোজ রশীদ বলেন, ‘আদাবর না পাওয়া গেলে সাভারে আমার নিজস্ব জায়গা থেকে দুই বিঘা জায়গা এরশাদের কবরস্থানের জন্য লিখে দেব। ’

এরপর প্রেসিডিয়াম সদস্য কাজী মামুনুর রশিদ পাবলিক প্লেসে এরশাদের কবরস্থান করার দাবি জানিয়ে বলেন, নেতা এরশাদের কবরস্থানের জন্য আমি ব্যক্তিগতভাবে পাঁচ কোটি টাকা দেব। তিনি আরও বলেন, স্যারকে যদি চিকিৎসার প্রয়োজনে বিদেশে নেওয়া হয়, এয়ার অ্যাম্বুলেন্সের যাবতীয় খরচও আমি বহন করব। সভায় আরও বক্তব্য দেন এম এ সাত্তার, সাহিদুর রহমান টেপা, শেখ মুহাম্মাদ সিরাজুল ইসলাম, সুনীল শুভ রায়, সাইফুদ্দিন আহমেদ মিলন, তাজ রহমান, আজম খান প্রমুখ।

সভা শেষে প্রেস ব্রিফিংয়ে পার্টির মহাসচিব মসিউর রহমান বলেন, এরশাদের শারীরিক অবস্থার উন্নতি হয়েছে। সভায় বাইরে থেকে চিকিৎসক আনার বিষয়েও সভায় আলোচনা হয় বলে জানান তিনি।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST