ঘোষনা:
শিরোনাম :
পঞ্চগড়ে পুকুরের পানিতে ডুবে এক শিশুর মৃত্যু। ডিমলায় তিস্তার চরে ভুট্টার বাম্পার ফলন। সাতক্ষীরায় করোনায় আক্রান্ত ও উপসর্গ নিয়ে মেডিকেল হাসপাতালে নারীসহ দুই জনের মৃত্যু। বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির উপজেলা শাখা গঠনের আলোচনা সভা । নীলফামারীতে চাঁদা দিতে না পারায়,ঘরে অগ্নিসংযোগ জোড়পূর্বক মাছ চুরি। সৈয়দপুরের তিন শিক্ষার্থীর ভর্তি অনিশ্চিত মেডিকেল কলেজে । করোনা আক্রান্ত জননেতা বীর মুক্তিযোদ্ধা জয়নাল আবেদীন অনেকটা সুস্থ্য বোধ করছেন। লকডাউনে ১০টা -০১ টা পর্যস্ত খোলা থাকবে ব্যাংক সেবা। চাঁদ দেখা গেছে, বুধবার থেকে পবিত্র রমজান শুরু। শঙ্কিত হওয়ার কোনো কারণ নেই, সরকার সবসময় পাশে থাকবে;প্রধানমন্ত্রী।
বান্ধবী বা স্ত্রী সঙ্গে থাকলে ছেলেরা বরং আরও ভালো খেলতে পারে,সানিয়া মির্জা।

বান্ধবী বা স্ত্রী সঙ্গে থাকলে ছেলেরা বরং আরও ভালো খেলতে পারে,সানিয়া মির্জা।

খেলা ডেস্ক ,
গুরুত্বপূর্ণ সফরে খেলোয়াড়রা বিদেশ গেলে তাদের সঙ্গে বান্ধবী বা স্ত্রীকে সঙ্গে নেয়ার অনুমতি দেয়া হয় না বেশিরভাগ সময়ই। কেননা মনে করা হয়, এতে খেলায় মনযোগ দিতে পারবেন না তারা।

তবে এমন যারা ভাবেন, তাদের এবার এক হাত নিলেন ভারতের টেনিস সেনসেশন সানিয়া মির্জা। তার মতে, বান্ধবী বা স্ত্রী সঙ্গে থাকলে ছেলেরা বরং আরও ভালো খেলতে পারে।

সানিয়া মির্জা নিজে খেলোয়াড়, বিয়ে করেছেন আরেক খেলোয়াড়-পাকিস্তানের ক্রিকেটার শোয়েব মালিককে। স্বভাবতই এমন কথা শুনতে হয় সানিয়াকেও। বিশ্বকাপে শোয়েব মালিক নিজেকে মেলে ধরতে না পারায় তার জন্য পাকিস্তানের অনেক ক্রিকেট-ভক্ত সানিয়া মির্জার ওপর দায় চাপিয়ে দিয়েছিলেন।

একইরকম দেখা যায়, তারকা জুটি বিরাট কোহলি আর আনুশকা শর্মার বেলায়। কোহলি যখন ভালো করেন, তখন স্ত্রী আনুশকাকে কেউ কৃতিত্ব দেন না। কিন্তু একটু খারাপ করলেই ওঠে আসে বলিউড অভিনেত্রীর নামটি।

এই বিষয়টিও চোখ এড়ায়নি সানিয়ার। নয়াদিল্লিতে এক অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, ‘বিরাট যদি শূন্য রান করে, তা হলে আনুশকা শর্মাকে দায়ী করা হয়। বিরাটের শূন্য করার সঙ্গে আনুশকার কী সম্পর্ক? এর কোনও অর্থ হয় না।’

খেলোয়াড়দের সঙ্গে বিদেশ সফরে স্ত্রী বা গার্লফ্রেন্ডকে নেয়ার ক্ষেত্রে যে বিধিনিষেধ, তার সমালোচনা করে সানিয়া বলেন, ‘অনেক দলের ক্ষেত্রেই দেখি, যার মধ্যে ক্রিকেট দলও রয়েছে, যে স্ত্রী বা বান্ধবীকে সফরে নিয়ে যাওয়ার অনুমতি নেই। তাতে দলের ছেলেদের মনঃসংযোগ নষ্ট হবে। এর অর্থ কী? মেয়েরা এমন কী করে যে, ছেলেদের মনঃসংযোগে ব্যঘাত ঘটবে? আসলে এই ধারণাটা একটা গভীর সমস্যা থেকে উঠে এসেছে। যেখানে বলা হয়, মহিলারা মন বিক্ষিপ্ত করে দেয়, সে কখনও শক্তি হয়ে উঠতে পারে না।’

বিশ্বকাপে পাকিস্তানের হারের জন্য তাকে দায়ী করা নিয়ে প্রশ্ন করলে সানিয়া বলেন, ‘আমি তো ও দেশের মেয়েই নই, আমার আর কী ক্ষমতা থাকতে পারে!’

বরং পরিবার সঙ্গে থাকলে খেলোয়াড়দের কি সুবিধা হয়, তার ব্যাখ্যা দিলেন সানিয়া। ভারতীয় টেনিস-কন্যা বলেন, ‘ওদের আর শূন্য ঘরে ফিরে আসতে হয় না তখন। একসঙ্গে নৈশভোজেও যেতে পারে। স্ত্রী বা সঙ্গিনী সঙ্গে থাকলে সেটা সেই খেলোয়াড়কে আরও সমর্থন, ভালবাসা দেয়।’





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST