ঘোষনা:
শিরোনাম :
ডিমলায় তিস্তার চরে ভুট্টার বাম্পার ফলন। সাতক্ষীরায় করোনায় আক্রান্ত ও উপসর্গ নিয়ে মেডিকেল হাসপাতালে নারীসহ দুই জনের মৃত্যু। বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির উপজেলা শাখা গঠনের আলোচনা সভা । নীলফামারীতে চাঁদা দিতে না পারায়,ঘরে অগ্নিসংযোগ জোড়পূর্বক মাছ চুরি। সৈয়দপুরের তিন শিক্ষার্থীর ভর্তি অনিশ্চিত মেডিকেল কলেজে । করোনা আক্রান্ত জননেতা বীর মুক্তিযোদ্ধা জয়নাল আবেদীন অনেকটা সুস্থ্য বোধ করছেন। লকডাউনে ১০টা -০১ টা পর্যস্ত খোলা থাকবে ব্যাংক সেবা। চাঁদ দেখা গেছে, বুধবার থেকে পবিত্র রমজান শুরু। শঙ্কিত হওয়ার কোনো কারণ নেই, সরকার সবসময় পাশে থাকবে;প্রধানমন্ত্রী। সিলেটে দক্ষিণ আফ্রিকা নারী ক্রিকেট দলের ৫ ক্রিকেটার করোনা শনাক্ত।
রাজধানীর সদরঘাট ও টঙ্গী আবদুল্লাহপুর অভিযান চালিয়ে সাড়ে আট লাখ ইয়াবা জব্দ করেছে র‍্যাব

রাজধানীর সদরঘাট ও টঙ্গী আবদুল্লাহপুর অভিযান চালিয়ে সাড়ে আট লাখ ইয়াবা জব্দ করেছে র‍্যাব

ঢাকা প্রতিবেদক,

মিয়ানমার সীমান্ত দিয়ে ইয়াবার চালান টেকনাফ থেকে চট্টগ্রাম হয়ে রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে পাচার হতো। কিন্তু আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর অভিযানে ইয়াবা পাচারের রুট পরিবর্তন করেছেন পাচারকারীরা। বেশ কয়েক মাস ধরে টেকনাফ থেকে পটুয়াখালী, বরগুনাসহ বিভিন্ন জেলায় নৌপথ ব্যবহার করে ইয়াবার বড় চালান নিয়ে ঢাকায় আসছেন তাঁরা।

আজ মঙ্গলবার রাজধানীর সদরঘাট ও টঙ্গীর আবদুল্লাহপুর এলাকায় অভিযান চালিয়ে প্রায় সাড়ে আট লাখ ইয়াবা বড়ির বড় চালান জব্দ করেছে র‍্যাব। এই চালান পাচারের অভিযোগে তিন যুবককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। গ্রেপ্তার ব্যক্তিরা হলেন তুহিন হোসেন (২৫), মো. সবুজ (২৬) ও মো. শাহজাহান (৩৫)। মাদক পাচারের সংঘবদ্ধ চক্রটি সাগর ও নৌপথ ব্যবহার করে প্রায় এক বছর ধরে ইয়াবা পাচার করছে। এ সময়ের মধ্যে তারা ইয়াবার পাঁচ-ছয়টি বড় চালান এভাবে পাচার করেছে।

র‍্যাব-১–এর অভিযানে ধরা পড়া ইয়াবার চালানটি রাজধানীর অভিজাত এলাকায় নিয়ে যাওয়ার কথা ছিল। রাজধানীর কারওয়ান বাজারে র‍্যাবের মিডিয়া সেন্টারে এক সংবাদ ব্রিফিংয়ে এ কথা জানান র‍্যাবের পরিচালক (গণমাধ্যম) মুফতি মাহমুদ খান। তিনি বলেন, সম্প্রতি চট্টগ্রাম-টেকনাফ রুটে র‌্যাবের বিশেষ অভিযান পরিচালিত হয়েছে। এ কারণে ইয়াবা কারবারি চক্রগুলোর চালানের জন্য বিকল্প রুট হিসেবে সাগরপথ ও অভ্যন্তরীণ নদী পথকে বেঁচে নিয়েছে। এক প্রশ্নের জবাবে মুফতি মাহমুদ খান বলেন, মাদকবিরোধী অভিযানের পরও ইয়াবা পাচার পুরোপুরি বন্ধ হয়নি। এটি লাভজনক ব্যবসা। তাই ইয়াবা পাচারে ‘নতুন মুখও’ যোগ হচ্ছে।

ব্রিফিংয়ে জানানো হয়, একটি সংঘবদ্ধ মাদক চোরাচালান চক্র মিয়ানমার থেকে মধ্যরাতে নদীপথে বিপুল পরিমাণ ইয়াবা নিয়ে পটুয়াখালী হয়ে ঢাকা আসবে এমন তথ্যের ভিত্তিতে আজ সকাল পৌনে ছয়টার দিকে র‌্যাবের একটি দল অভিযান চালিয়ে সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনাল এলাকায় সপ্তবর্ণা নামে একটি লঞ্চ থেকে তুহিন হোসেন ও সবুজকে গ্রেপ্তার করে। বরগুনা থেকে আসা লঞ্চটি এই দুই যাত্রীর কাছ থেকে ৫ লাখ ৫ হাজার ইয়াবা বড়ি পাওয়া যায়। এঁদের কাছ থেকে তথ্য পেয়ে আজ বেলা একটার দিকে আবদুল্লাহপুর বাসস্ট্যান্ড এলাকায় অভিযান চালিয়ে মো. শাহজাহানকে ৩ লাখ ৪০ হাজার ইয়াবা বড়িসহ গ্রেপ্তার করে র‍্যাব-১।

মুফতি মাহমুদ খান বলেন, তিনজনকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ করে জানা যায়, সংঘবদ্ধ চক্রটি গভীর সাগর থেকে ইয়াবা বড়ি ট্রলারের মাধ্যমে পটুয়াখালীর উপকূলীয় এলাকায় নিয়ে আসে। সেখান থেকে তারা সুবিধামতো নদীপথ ও স্থলপথে এসব ইয়াবা পাচার করত। তবে নিয়মিত তারা রুট পরিবর্তন করত। ইয়াবার চালানটিও দুই ভাগে ভাগ করে ঢাকায় পাচার করার পরিকল্পনা করে তারা। দুই ভাগে ইয়াবা পাচারের উদ্দেশ্য হলো একভাগ ধরা পড়লেও যেন অন্য ভাগ ধরা না পড়ে। ৮ থেকে ১০ সদস্যের একটি চক্র ইয়াবার এই চালান পাচারের সঙ্গে জড়িত। তারা প্রায় দেড় বছর ধরে ইয়াবা ব্যবসার সঙ্গে জড়িত।

উদ্ধার করা ইয়াবা বড়ি ঢাকায় একটি বাসায় পাঠানোর কথা ছিল। ওই বাসা থেকে ইয়াবা বড়িগুলো নিজস্ব বাহকের মাধ্যমে বিভিন্ন খুচরা বিক্রেতার কাছে সরবরাহ করা হতো। গ্রেপ্তার হওয়া তিনজন জানান, জব্দ হওয়া এসব ইয়াবা সড়কপথে মিয়ানমার থেকে কক্সবাজার হয়ে ঢাকায় পাচার করতে হলে অনেক বাধার মুখে পড়তে হতো। তাই তাঁদের পাচার চক্রটি রুট পরিবর্তন করে নৌপথে কক্সবাজার থেকে পটুয়াখালী ও চাঁদপুর হয়ে ঢাকায় আসে।

নৌপথে ইয়াবা পরিবহন ও পাচারের সঙ্গে স্থানীয় ট্রলারমালিকদের একটি অংশ জড়িত থাকার কথা জানিয়ে মুফতি মাহমুদ খান বলেন, ঢাকায় যাঁর কাছে ইয়াবার চালানটি পাঠানোর কথা ছিল, তাঁর সম্পর্কে তথ্য জানতে পেরেছি। তদন্তের স্বার্থে এখনই কিছু বলা যাচ্ছে না। তবে এই কাজে দেশের বাইরে থেকে বিনিয়োগ করা হতো।’





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST