ঘোষনা:
শিরোনাম :
সাতক্ষীরায় করোনায় আক্রান্ত ও উপসর্গ নিয়ে মেডিকেল হাসপাতালে নারীসহ দুই জনের মৃত্যু। বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির উপজেলা শাখা গঠনের আলোচনা সভা । নীলফামারীতে চাঁদা দিতে না পারায়,ঘরে অগ্নিসংযোগ জোড়পূর্বক মাছ চুরি। সৈয়দপুরের তিন শিক্ষার্থীর ভর্তি অনিশ্চিত মেডিকেল কলেজে । করোনা আক্রান্ত জননেতা বীর মুক্তিযোদ্ধা জয়নাল আবেদীন অনেকটা সুস্থ্য বোধ করছেন। লকডাউনে ১০টা -০১ টা পর্যস্ত খোলা থাকবে ব্যাংক সেবা। চাঁদ দেখা গেছে, বুধবার থেকে পবিত্র রমজান শুরু। শঙ্কিত হওয়ার কোনো কারণ নেই, সরকার সবসময় পাশে থাকবে;প্রধানমন্ত্রী। সিলেটে দক্ষিণ আফ্রিকা নারী ক্রিকেট দলের ৫ ক্রিকেটার করোনা শনাক্ত। চাঁপাইনবাবগঞ্জ আতাহার বাজার হতে গাঁজাসহ এক মহিলাকে গ্রেফতার করেছে র‍্যাব-৫।
সুনামগঞ্জে ঝড় ও শিলাবৃষ্টিতে হাওরের বোরো ধান এবং ফসল রক্ষা বাঁধের ক্ষতি ।

সুনামগঞ্জে ঝড় ও শিলাবৃষ্টিতে হাওরের বোরো ধান এবং ফসল রক্ষা বাঁধের ক্ষতি ।

সুনামগঞ্জ  প্রতিনিধি ॥

সুনামগঞ্জে ঝড় ও শিলাবৃষ্টিতে হাওরের বোরো ধান এবং ফসল রক্ষা বাঁধের ক্ষতি হয়েছে। জেলার বিভিন্ন হাওরে ফসল রক্ষা বাঁধের ২০ থেকে ২৫টি স্থানে ছোট ছোট গর্ত এবং কোথাও কোথাও বাঁধের মাটিতে চিড় ধরেছে। এ নিয়ে স্থানীয় কৃষকদের মধ্যে আতঙ্ক শুরু হয়েছে। তবে গতকালই বাঁধগুলো মেরামতের কাজ শুরু হয়েছে।

সুনামগঞ্জের বিভিন্ন এলাকায় রোববার বিকেলে ও রাতে ভারী বৃষ্টি হয়। এ সময় ঝোড়ো হাওয়ার সঙ্গে শিলাবৃষ্টিও ছিল। শিলাবৃষ্টিতে জেলার ১০টি উপজেলার বিভিন্ন হাওরে বোরো ধানের ক্ষতি হয়। একই সময়ে ভারী বৃষ্টিতে ক্ষতি হয়েছে হাওরের ফসল রক্ষা বাঁধের।জগন্নাথপুর উপজেলা প্রশাসন ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, উপজেলায় গত রোববার দিনে ও রাতে মুষলধারে বৃষ্টিপাত হয়। এরপর উপজেলার নলুয়ার হাওরে ফসল রক্ষা বাঁধের একাধিক স্থান ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এতে স্থানীয় কৃষকেরা তাঁদের ফসল নিয়ে আতঙ্কে পড়েন। তবে বিষয়টি উপজেলা প্রশাসনের নজরে আসার সঙ্গে সঙ্গে শ্রমিক দিয়ে এসব বাঁধ সংস্কার করতে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের নির্দেশ দেওয়া হয়। সে মোতাবেক গতকাল সোমবার অনেক প্রকল্পেই শ্রমিক দিয়ে সংস্কারকাজ করানো হয়েছে।

নলুয়ার হাওর ঘুরে দেখা যায়, হাওরের ১ থেকে ৭ নম্বর প্রকল্পের কিছু কিছু অংশের বাঁধে ফাটল দেখা দিয়েছে। শ্রমিকেরা এসব বাঁধে সংস্কারকাজ করছিলেন। কাজের তদারক করছিলেন সংশ্লিষ্ট প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটির (পিআইসি) দায়িত্বশীল ব্যক্তিরা। ৭ নম্বর প্রকল্প এলাকায় কথা হয় পিআইসির সভাপতি আবুল কয়েছের সঙ্গে। তিনি বলেন, ‘আমার প্রকল্পে শ্রমিকেরা কাজ করছেন। এখানে তেমন কোনো ঝুঁকি নেই।’ আরেকটি প্রকল্পের সভাপতি জুয়েল মিয়া বলেন, ‘আমার প্রকল্পের কিছু অংশে বালুমাটি আছে। এ কারণে সেখানে বাঁধ আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়। আমি শ্রমিক লাগিয়ে তা সংস্কার করে দিয়েছি।’

পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্রে জানা যায়, জগন্নাথপুর উপজেলায় এবার ৫০টি প্রকল্পে ৫ কোটি টাকা ব্যয়ে ৩২ কিলোমিটার ফসল রক্ষা বাঁধ নির্মাণ, মেরামত ও সংস্কারকাজ করা হয়। রোববারের বৃষ্টিতে কিছু বাঁধ কমবেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তবে আতঙ্কিত হওয়ার মতো কোনো ক্ষয়ক্ষতি হয়নি।

হাওর বাঁচাও সুনামগঞ্জ বাঁচাও আন্দোলনের জগন্নাথপুর কমিটির আহ্বায়ক সিরাজুল ইসলাম বলেন, হাওরের ফসল ওঠার আগ পর্যন্ত সব প্রকল্পে শ্রমিক নিযুক্ত রাখতে হবে। বৃষ্টি হলে সঙ্গে সঙ্গে সংস্কার করতে হবে। এক দিনের বৃষ্টিতেই কিছু বাঁধে ফাটল দেখা দেওয়ায় কৃষকেরা আতঙ্কিত হয়ে পড়েন উল্লেখ করে তিনি বলেন, বাঁধ নিয়ে কোনোমতেই হেলাফেলা করা যাবে না। যেকোনো মূল্যে কৃষকের ফসলহানি ঠেকাতে হবে।

জেলার আরও কয়েকটি উপজেলায়ও বৃষ্টিতে ফসল রক্ষা বাঁধে কমবেশি ক্ষয়ক্ষতির খবর এসেছে। বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার কৃষ্ণনগর গ্রামের কৃষক স্বপন কুমার বর্মণ বলেন, রোববার বিকেলে ও রাতে এ মৌসুমের প্রথম ভারী বর্ষণ হয়েছে। সঙ্গে শিলাবৃষ্টি থাকায় এলাকার খরচার হাওরে ধানের কাঁচা শিষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তবে ক্ষতির পরিমাণ বেশি নয়। একই সঙ্গে হাওরের ফসল রক্ষা বাঁধে বৃষ্টিতে কিছু স্থানে মাটি সামান্য ধসেছে।

তবে পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) সূত্র বলছে, বৃষ্টি হওয়ায় বাঁধের ক্ষতির চেয়ে লাভ হয়েছে বেশি। বৃষ্টিতে মাটি চেপে শক্ত হয়েছে। কিছু স্থানে ছোট ছোট গর্ত হয়েছে, আবার কোথাও কোথাও বাঁধে বৃষ্টি পানি ঢুকে চিড় ধরেছে—এসব মেরামত করা হচ্ছে।

সুনামগঞ্জ পাউবোর নির্বাহী প্রকৌশলী আবু বকর সিদ্দিক ভূঁইয়া বলেন, হাওরে ফসল রক্ষা বাঁধ নির্মাণের কাজ শেষ। এখন আনুষঙ্গিক কিছু কাজ হচ্ছে। হাওরে ফসল তোলার আগ পর্যন্ত এই কাজ চলমান থাকবে। বৃষ্টিতে যেসব বাঁধে কিছুটা সমস্যা হয়েছে, সেগুলো সোমবারের মধ্যে সংস্কার করা হবে। এতে কোনো সমস্যা হবে না। এবার সুনামগঞ্জে ৪২টি হাওরের ফসল রক্ষায় ৫৭২টি প্রকল্পে বাঁধের কাজ হচ্ছে। এ জন্য বরাদ্দ আছে ৯৭ কোটি ৫৫ লাখ টাকা।

এদিকে এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, হাওরে দেশি জাতের ধানে এখন শিষ ধরেছে। এ কারণে শিলাবৃষ্টিতে এই ধানের ক্ষতি হয়েছে বেশি। অন্যান্য জাতের ধানে এখন শিষ আসেনি, তাই ক্ষতি হয়েছে কম। জেলার তাহিরপুর উপজেলার শনির হাওরপাড়ের কৃষক আজির উদ্দিন বলেন, হাওরে তাঁর দুই একর জমিতে দেশি বোরো জাতের ধান ছিল। শিলাবৃষ্টিতে এসব ধানের ক্ষতি হয়েছে। দুই একর জমিতে তিনি অর্ধেক ধানও আর পাবেন না।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST