ঘোষনা:
শিরোনাম :
জলঢাকায় অসুস্থ ব্যক্তিদের হাতে চিকিৎসা সহায়তা চেক চট্টগ্রামে সড়কের দু’পাশে ঝুঁকিপূর্ণ ৩ শতাধিক ঘর উচ্ছেদ করেছে প্রশাসন । ডোমারে ট্রাক্টরের চাপায় বৃদ্ধার মৃত্যু ভোলায় ৩ সন্তানের জননীকে জোরপূর্বক ধর্ষণ ঢালিউডের জনপ্রিয় নায়িকাকে ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টার প্রধান আসামিসহ ৫ জন গ্রেফতার মানিকগঞ্জে বিদেশগামী প্রশিক্ষণার্থীদের মাঝে সনদপত্র বিতরন। টেকনাফের নাফ নদীর তীর থেকে আরো দুই রোহিঙ্গার লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ ডোমার গোমনাতী সঃ প্রাঃ বিদ্যাঃ প্রধান শিক্ষক দুলু আর নেই নীলফামারীর ডোমারে পুকুর খননকালে পাওয়া গেল কৃষ্ণ মূর্তি। পঞ্চগড় পৌর মার্কেট নির্মাণ কাজের উদ্বোধন
জাপানের ছোট্ট শিশুটি বাড়ি যাচ্ছেন।

জাপানের ছোট্ট শিশুটি বাড়ি যাচ্ছেন।

ছবি : এএফপি

 

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ,ঢাকা:

বিশ্বের সবচেয়ে ছোট্ট শিশু। জন্মের সময় খুব বেশি হলে তার ওজন ছিল একটি আপেলের সমান। অক্টোবরে জাপানে জন্ম হয় ফুটফুটে ছেলেটির। চিকিৎসকেরা আজ শুক্রবার বলছেন, শিশুটি এখন বাইরের জগতে স্বাভাবিকভাবে চলাফেরা করতে পারবে। এ সপ্তাহেই হাসপাতাল থেকে বাড়ি ফিরছে সে।ছোট্ট ছেলেটির নাম রিয়সকে সেকিয়া। তার মা তোসিকোর ছিল হাইপারটেনশন। অন্তঃসত্ত্বা থাকাকালে ২৪ সপ্তাহ ৫ দিনের দিন জরুরি অস্ত্রোপচার করে সেকিয়ার জন্ম হয়। জন্মের সময় সেকিয়ার ওজন ছিল মাত্র ২৫৮ গ্রাম। এর আগে আরেক ছোট্ট ছেলের জন্ম হয় জাপানে। তার ওজন ছিল ২৬৮ গ্রাম। টোকিও হাসপাতাল থেকে ফেব্রুয়ারি মাসে ওই শিশুকে ছাড়া হয়।সেকিয়ার জন্ম হয় ২০১৮ সালের ১ অক্টোবর। লম্বায় সে ছিল মাত্র ২২ সেন্টিমিটার। স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা তাকে নবজাতকদের জন্য বিশেষ পরিচর্যাকেন্দ্রে রাখেন। টিউবের মাধ্যমে খাবার খাওয়ানো হতো সেকিয়াকে। মাঝেমধ্যে তাকে তুলার মাধ্যমে মাতৃদুগ্ধ পান করানো হতো। ৭ মাস পর সেকিয়ার ওজন হয় ৩ কেজি। এ সপ্তাহেই তাকে নাগানো চিলড্রেনস হাসপাতাল থেকে ছেড়ে দেওয়া হবে।সেকিয়ার মা তোসিকো বলেন, ‘যখন জন্ম হয় সে খুব ছোট ছিল। মনে হতো ধরলেই ভেঙে যাবে। আমি খুব উদ্বিগ্ন ছিলাম। এখন রিয়সকে দুধ পান করে। আমরা তাকে গোসল করাতে পারি। সে বড় হচ্ছে দেখে আমি খুব খুশি।’২০১৫ সালে জার্মানিতে ছোট্ট একটি মেয়েশিশুর জন্ম হয়। তার ওজন ছিল ২৫২ গ্রাম। ছোট আকারের মেয়েশিশুরা ছেলেদের তুলনায় বেশি দিন বাঁচে।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST