ঘোষনা:
শিরোনাম :
কিমের ভাইকে হত্যা: সেই ইন্দোনেশিয় নারীর মুক্তি

কিমের ভাইকে হত্যা: সেই ইন্দোনেশিয় নারীর মুক্তি

উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উনের সৎ ভাই কিম জং ন্যামের হত্যা মামলা থেকে অব্যাহতি পেয়েছেন ইন্দোনেশিয় নারী সিতি আয়েশা।

২০০৭ সালে মালয়েশিয়ার রাজধানী কুয়ালালামপুরে বিষাক্ত ভিএক্স নার্ভ এজেন্ট প্রয়োগের মাধ্যমে ন্যাম’কে হত্যার অভিযোগে সিতি আয়েশাসহ আরেক ভিয়েতনামি নারী ডোয়ান থি হুয়োং’কে গ্রেফতার করা হয়। তবে তারা উভয়ই এ হত্যার ঘটনায় জড়িত থাকার কথা অস্বীকার করেছেন।

এ প্রসঙ্গে তারা জানান, তারা ভেবেছিলেন হয়তো তাদের সঙ্গে হয়তো কোনো টেলিভিশন প্র্যাঙ্ক করা হয়েছে।

আয়েশা যদি এ মামলায় অভিযুক্ত হতেন, তবে তার মৃত্যুদণ্ড পর্যন্ত হতে পারতো। এ মামলার প্রসিকিউটর অভিযুক্তদের তালিকা থেকে আয়েশার নাম বাদ দেয়ার অনুরোধ করেছেন। তবে তিনি এখনও এর কারণ ব্যাখ্যা করেননি। মামলার বিচারক তার অনুরোধ গ্রহন করেছেন। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেছেন, আয়েশাকে মামলার অভিযুক্তদের তালিকা থেকে বাদ দেয়া হয়েছে, তবে এর মানে এই না যে তাকে বেকসুর খালাস দেয়া হয়েছে।

এ রায়ের পর আয়েশা বলেন, ‘আমি খুবই খুশি। আমি জানতাম না এটা হবে। এটা আমার আশাতীত।’ এ মামলায় অভিযুক্ত আরেক নারী হুয়োং সোমবার আদালতে উপস্থিত হয়ে এক বিবৃতি পাঠ করবেন।

উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উনের সৎ বড় ভাই কিম জং ন্যামে’র হত্যাকাণ্ড বিশ্বের রহস্যজনক হত্যাকাণ্ডগুলোর একটি। হত্যাকাণ্ডটির সময়কার সিসি ক্যামেরার ভিডিও ফুটেজে দেখা যায়, তিনি কুয়ালালামপুর বিমানবন্দরে চীনের ম্যাকাউ যাওয়ার জন্য অপেক্ষা করছেন।

এ সময়ে দু’জন নারী এসে তার মুখে হাত দেয়। এতে তিনি অচেতন হয়ে পরেন। এরপর তারা চলে যায়। এ ঘটনার পর হাসপাতালে নেয়ার পথেই তার মৃত্যু হয়।ময়নাতদন্তে দেখা গেছে যে, তার মুখমন্ডলে ভিএক্স নার্ভ এজেন্ট প্রয়োগ করা হয়েছিলো।

ভিএক্স হলো বিশ্বের সবচেয়ে বিষাক্ত রাসায়নিক পদার্থগুলোর একটি। এ হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে উত্তর কোরিয়ার সম্পর্ক রয়েছে বলে ধারণা করা হয়। তবে উত্তর কোরিয়া জং ন্যামে’র হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার অভিযোগ অস্বীকার করেছে।

এ হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত থাকার সন্দেহে হত্যাকাণ্ডের দিনই মালয়েশিয়ায় পৌঁছানো চার সন্দেহভাজন উত্তর কোরিয় নাগরিককে এ হত্যা মামলায় আসামি করা হয়েছে। এ মামলায় মুক্তিপ্রাপ্ত ইন্দোনেশিয় নারী ও আটক থাকা আরেক ভিয়েতনামি নারীর আইনজীবিরা দাবি করেছেন, এ দুই নারী চক্রান্তের শিকার হয়েছেন।

তাদেরকে কয়েকজন লোক বলেছিলো, একটি টেলিভিশন প্র্যাঙ্ক শো’এর অংশ হিসেবে তাদেরকে বিভিন্ন হোটেল, শপিং মল ও বিমানবন্দরে থাকা লোকদের মুখে এক ধরনের তরল পদার্থ লাগিয়ে দিতে হবে। এ কাজটি করলে তাদের অর্থ পুরষ্কারও দেয়া হবে।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST