ঘোষনা:
শিরোনাম :
চট্টগ্রামে সমন্বয়ের অভাবে কাঙ্ক্ষিত উন্নয়ন হচ্ছে না, পল্লি উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী, তাজুল ইসলাম । খুলনার মহাসমাবেশে শ্লোগান,এক সংগ্রাম, এক ডাক, আওয়ামী লীগ সরকার নিপাত যাক। বদরগঞ্জে একঝাঁক তরুন তরুনীদের প্রচেষ্টায় বদরগঞ্জে বি-বাজারের যাত্রা শুরু। বদরগঞ্জে শয়নকক্ষে শিক্ষার্থীর গলাকাটা মরদেহ : হত্যা নাকি আত্মহত্যা। জলঢাকায় গাঁজা কেনাবেচা কালে মা-ছেলেসহ আটক-৩। নীলফামারীর সৈয়দপুর পৌরসভায় প্রথমবার ইভিএমে ভোট।সকল প্রস্তুতি শেষ করেছে প্রশাসন। কিশোরগঞ্জে জাপা কর্মীর জানাজা সম্পন্ন । নীলফামারীতে অটোরিকশা ও নৈশ কোচের মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ১ আহত ১১। নীলফামারীতে সড়ক র্দূঘটনায় ১জন নিহত ও ১২জন ইপিজেড কর্মী আহত গাজীপুর কাশিমপুর কারাগারে লেখক মুস্তাকের মৃত্যুর ঘটনায় তদন্ত কমিটি।
চলমান করোনায় ছোট হয়ে এসেছে শিশু-কিশোরদের পৃথিবী।

চলমান করোনায় ছোট হয়ে এসেছে শিশু-কিশোরদের পৃথিবী।

 

মোঃ মিজানুর রহমান কিশোরগঞ্জ (নীলফামারী) প্রতিনিধি ,

প্রকৃতি শিশুদেরকে যেমন অনেক কিছুই দিয়েছে, তেমনি বর্তমান উদ্ভূত পরিস্থিতিতে কেড়ে নিয়েছে অনেক কিছু। শিশুদের জীবনে এখন পরিভোগের নানা উপকরণ ছড়ানো, কিন্তু প্রকৃতির বুকে বস্তুভারের বেড়াজালে বর্তমান শিশুরা হারিয়েছে নিসর্গবেষ্টিত জীবনের শান্ত সৌন্দর্য। হারিয়েছে প্রকৃতির অঙ্গনে দেহ-মনের অবাধ ও সুষ্ঠু বিকাশের সুযোগ । শিশুদের জীবনে এসেছে অনেক অনাকাঙ্ক্ষিত জটিলতা । স্কুল নেই, যাওয়া হয়না খেলার মাঠেও৷ ছেদ পড়েছে দুরন্তপনায়। চলমান সংকট যেন ছোট হয়ে এসেছে শিশু-কিশোরদের পৃথিবী । ঘরে গেমস, টেলিভিশনে কার্টুনের সিরিজ, মটু পাটলু, শিবা, রুদ্রা, সুপারহিরো, মন্ত্র তন্ত্রের মন্ত্র দেখে কাটছে ঘরবন্দি জীবন। সামাজিক দূরত্ব আর স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হচ্ছে। স্বজনদের বাড়িতে বেড়াতে যাওয়া হয়না । নিষেধাজ্ঞা মেনে এই মুহূর্তে অনেকেই প্রিয়জনের বাড়িতে আসা যাওয়া বন্ধ করে দিয়েছে । মাঝে মাঝে মা -বাবাকে জিজ্ঞেস করে মনকে সান্ত্বনা দেয় আবার কবে বাইরে যেতে পারবে । কবেই বা স্কুল খুলবে। কবে যেতে পারবে প্রিয়জনদের বাড়িতে। অজানা গন্তব্যের মাঝে এ প্রশ্নের খুঁজে পাওয়া নেই কোন উত্তর। জানালা দিয়ে আকাশ দেখা যাচ্ছে ঠিকই, কিন্তু উপায় নেই বিশালতায় গিয়ে নিঃশ্বাস নেওয়ার । মহামারীর এই বন্দিদশায় মনের গহীনে রঙের ছটায় বা আছে কতটুকু । যে মনে একটু পরপরই রং বদলায়, একে যায় মনের গহীনে হাজারো ছবি। শৈশবের সেই সময়টা হয়তো এখন বড্ড একঘেয়েমির। যেন চার দেয়ালের ঘেরা ছোট একটি পৃথিবী । প্রায় তিন মাস ধরে যাওয়া হয়না,খেলার মাঠে, দেখা হয় না স্কুল গণ্ডির বন্ধু-বান্ধবদের সাথে । চোখে মুখে কেবলই মন খারাপের গল্প । প্রশ্ন জাগে কবে ফেরা হবে উন্মুক্ত প্রকৃতির সান্নিধ্য ? অভিভাবকরা বলছেন, বন্দী জীবনে হাঁপিয়ে উঠেছেন বাচ্চারা, পড়ালেখায় মন নেই, মেজাজ খিটখিটে। চলমান অবস্থায় বাধাগ্রস্ত হচ্ছে শিশুর মানসিক বিকাশ। তাই প্রাণচঞ্চল ধরে রাখতে বাবা-মাকে বাড়তি মনোযোগ দেওয়ার। সঙ্কটের পাষাণ পিঞ্জরে অবরুদ্ধ শিশু মুক্তি প্রত্যাশায় আবার উন্মুক্ত হয়ে উঠেছে প্রকৃতি চালিত হৃত জীবন ফিরে পাওয়ার শুধুই ব্যাকুল। এই বেলায় প্রার্থনা এতোটুকু ঘুচে যাক জরা, বসুমতি ফিরুক তার আপন ঢংগে।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST