ঘোষনা:
শিরোনাম :
কিশোরগঞ্জে গৃহহীনদের মাঝে জমিসহ ঘরের চাবি হস্তান্তর ডোমারে প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘর নির্মাণে অনিয়মের তদন্ত নীলফামারীতে গৃহহীনদের মাঝে জমির দলিল সহ ঘরের চাবি হস্তান্তর। নীলফামারীতে আশ্রয়হীন ১২৫০ পরিবারের স্বপ্ন এখন সত্যি কিশোরগঞ্জ মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের রড চুরি- ধ্রুত চোরকে ছেড়ে দিল কর্তৃপক্ষ নীলফামারীতে শিক্ষার্থীদের মাঝে করোনার টিকা প্রয়োগ শুরু রাত পোহালেই ডিমলায় নতুন ঘরে উঠবেন ভূমিহীন গৃহহীন পরিবার ওয়ালটনের মিলিয়নিয়ার অফারে ফ্রিজ কিনে ১০ লক্ষ টাকা পেলেন জলঢাকার মতি টাঙ্গাইলে নতুন ৯২ জন করোনা শনাক্ত বাংলাদেশ সরকারের প্রথম অর্থ সচিবের স্ত্রী কুলসুম জামান আর নেই
ডোমারে মুজিববর্ষ উপলক্ষে বিনা মূল্যে কৃষকদের দেয়া চারা ক্রয় ও বিতরণে অনিয়ম ।

ডোমারে মুজিববর্ষ উপলক্ষে বিনা মূল্যে কৃষকদের দেয়া চারা ক্রয় ও বিতরণে অনিয়ম ।

মোঃ হারুন উর রশিদ, স্টাফ রিপোর্টার,
মুজিববর্ষ উপলক্ষে কৃষিবান্ধব দেশের কৃষকদের বিনা মূল্যে চারা বিতরণের উদ্দেগ গ্রহণ করেছে বাংলাদেশ সরকার। সারা দেশের ন্যায় নীলফামারী জেলাতেও বিনামূল্যে ৫ জাতের ৬ টি চারা বিতরণ করছে ডোমার কৃষি বিভাগ। কিন্তু নিয়ম নীতির তোয়াক্কা না করেই কৃষি অফিসার এসব চারা ক্রয় করছে। যেখানে নিয়ম অনুযায়ী কৃষকদের মাঝে ছয় ফিট চারা দেওয়ার কথা থাকলেও সেখানে ঘটাকরে এমপি ও উপজেলা নির্বাহী অফিসারদের ফটোসেশন করে দুই থেকে আড়াই ফিট চারা বিতরণ করেছে উপজেলা কৃষি বিভাগ। বিষয়টি নিজেই স্বীকার করেছেন ডোমার উপজেলা কৃষি অফিসার মোঃ আনিছুজ্জামান আনিছ।

দেশের খাদ্য ঘাটতি ও আমিষের চাহিদা পূরণে কৃষিক্ষাতকে আরও স্প্রসারণ করতে কৃষকদের মাঝে বিনামূল্যে চারা বিতরণ করছে কৃষি বিভাগ। এছাড়াও বর্তমান সরকার কৃষকদের নানাভাবে প্রণোদনা দিয়ে যাচ্ছে। সেইসাথে তৃণমূল কৃষকদের মাঝে দল গঠন করে মাঠ প্রদর্শনির মাধ্যমে বিনামূল্যে চারা বিতরণ করছে। নীলফামারীর সদর উপজেলায় রংপুর বিভাগ,কৃষি ও গ্রামীণ উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় শুরু হয়েছে বিনা মুল্যে চারা বিতরণ কার্যক্রম।

নীলফামারী ডোমার উপজেলার ১০ ইউনিয়ন ও ১ পৌরসভা মিলে ৩১ ব্লকের অন্তর্ভূক্ত করা হয়েছে। সেইসাথে প্রত্যেক ইউনিয়নে এক জন করে উপসহকারী ব্লক পরিচালনায় আছেন। প্রত্যেকটি ব্লকে ১২ টি দল গঠন করা হয়েছে এবং ১ টি দলে ৩০ জন সদস্য রয়েছে। ৩৭২ টি দলের মধ্যে ৩০ টি দলের মধ্যে এ ৫ জাতের চারা বিতরণ করা হয়েছে। যার মধ্যে ছিলো ২ টি আমগাছ, ১ টি মালতা গাছ, ১ টি লিচু গাছ, ১ টি পেয়ার গাছ ও ১ টি জাত নিমের গাছ দেওয়া হবে। গাছ প্রতি বরাদ্দ ছিল ৬০ টাকা।

ডোমার উপজেলা কৃষি অফিসার মোঃ আনিছুজ্জামান আনিছ বিষয়টি স্বিকার করে বলেন, এসময় ৬ ফিট চারা কোথাও পাওয়া যাবে না। যদিও পাওয়া যায় প্রতি গাছের চারার দাম হাজার টাকার উর্ধে ক্রয় করতে হবে। বাকি টাকা কোথায় পাবো। তাই বরাদ্দ অনুযায়ী দুই থেকে আড়াই ফিট চারা বিতরণ করেছি। টেন্ডারের বিষয়ে জানতে চাইলে তিন বলেন, আমি কোটেশন টেন্ডার করেছি পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি দেইনি।

মনি নার্চারীর মালিক মোঃ উমর আলীর সাথে কথা বললে তিনি বলেন, ২ থেকে আড়াই ফিট আমের চারার মূল্য ৫০ টাকা, জাতনিমের চারা ২০ টাকা, পেয়ারার চারা ১০ টাকা, লিচু চারা ৫০ টাকা, মালতা চারা ১০০ টাকা। ৫ জাতের ৬ টি চারায় কৃষক প্রতি ৩০০ টাকা বরাদ্দ থাকলেও খরচ হয় ২৩০ টাকা।

৬ ফিট আমের চারার মূল্য ১০০ টাকা, জাতনিমের চারা ২০ টাকা, পেয়ারার চারা ৫০ টাকা, লিচুর চারা ১০০ টাকা, মালতা চারা ১০০ টাকা। ৫ জাতের ৬ টি চারায় কৃষক প্রতি ৩০০ টাকা বরাদ্দ থাকলেও খরচ হবে ৩৭০ টাকা।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে নীফলামারী কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক কৃষিবিদ ওবায়দুল রহমান মন্ডল বলেন, মুজিববর্ষ উপলক্ষে কৃষকের মাঝে চারা বিতরণের বিষয়ে আমার জানা নেই। কোন চারা কত টাকা করে ক্রয় করতে হবে আমি তাও জানিনা। এই ধরনের প্রকল্প সরাসরি উপজেলায় আসে তাই উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা ভালো বলতে পারবে।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST