ঘোষনা:
শিরোনাম :
পদ্মা সেতু হওয়ায় বিএনপি উদভ্রান্তের মত কথা বলছে,চট্টগ্রামে তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী বানভাসি মানুষের পাসে লিয়ন চৌধুরী নীলফামারীতে মধ্য রাতে মাতলামি; প্রতিবাদ করায় গুরুতর রগকাটা জখম, থানায় এজাহার। নীলফামারীতে এক মাস ব্যাপি পুনাক তাঁত শিল্প ও পণ্য মেলার শুভ উদ্বোধন পাহাড়ে সন্ত্রাস দমনে এপিবিএন’র টহল শুরু শিক্ষক হত্যা ও কলেজ অধ্যক্ষকে নির্যাতনের প্রতিবাদে নীলফামারীতে মানববন্ধন ও স্মারকলিপি প্রদান। আওয়ামীলীগ হিন্দুদের দল, ভারতের চর এসব ট্যাবলেটে এখন আর কাজ হয়না,তথ্যমন্ত্রী হলি আর্টিজানে জঙ্গি হামলায় ৬ বছর পূর্তিতে,কূটনীতিকরা নিহতদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা বিকেএসপিতে ব্লু খেতাব অর্জন,দেশসেরা নারী আরচার নীলফামারীর দিয়া সিদ্দিকী জাতি হিসেবে আমাদের সক্ষমতাকে সবসময় অবমূল্যায়ন করে সমালোচকরা বললেন,প্রধানমন্ত্রী
সৈয়দপুরে সরকারি জায়গায় অবৈধ দোকানপাট থেকে চাঁদা আদায়

সৈয়দপুরে সরকারি জায়গায় অবৈধ দোকানপাট থেকে চাঁদা আদায়

সৈয়দপুর (নীলফামারী) প্রতিনিধি,
নীলফামারীর সৈয়দপুরে প্রধান ডাকঘর সংলগ্ন রাস্তার দু’পাশের ফুটপাত এবং রেললাইন দখল করে অবৈধভাবে গড়ে ওঠেছে অসংখ্য দোকানপাট। আর সরকারী জায়গায় গড়ে ওঠা ওইসব দোকান থেকে দৈনিকহারে চাঁদা আদায় করা হচ্ছে। চাঁদা না দিলে তুলে দেয়া হচ্ছে দোকান, দেয়া হচ্ছে হুমকি। ব্যবসা বন্ধ হয়ে যাওয়ার ভয়ে প্রকাশ্যে মুখ খুলছে না কেউ। আর তাই বাধ্য হয়ে অনেকেই চাঁদা দিয়েই ব্যবসা করছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, শহরের স্টেশনের ২নং রেল গেটে সংলগ্ন এলাকায় গড়ে উঠেছে পুরাতন কাপড়,ফলসহ দু’শতাধিক দোকান। যেখানে প্রতিদিন মারত্মক ঝুঁকি নিয় ট্রেন চলাচল করছে। অপর দিকে একই এলাকায় শহরের প্রধান ডাক ঘরের নিজস্ব জায়গা দখল করে সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত ফুচকা-চটপটি, বার্গার ও পিঠার দোকান বসিয়ে চলছে বেচাঁ-বিক্রি।

এতে ওই এলাকায় প্রতিদিন যানজটের কবলে পড়ে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে শহরবাসীকে। প্রতিটি দোকান থেকে জিআরপি পুলিশ, রেলওয়ে স্টেশনের ইয়ার্ড, ও স্থানীয় একটি ক্লাবের কিছু অসাধু সদস্য এবং গেট কিপার প্রতিদিন চাঁদা আদায় করছে। ফলে অবৈধ ওই দোকানপাটে ব্যবসার সুযোগ পাচ্ছে। এ ক্ষেত্রে কেউ চাঁদা দিতে অপরাগতা প্রকাশ করলে বন্ধ করে দেয়া হচ্ছে তার ব্যবসা।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক পুরাতন গরম কাপড় ব্যবসায়ী বলেন, দীর্ঘ দশ বছর ধরে আমি এখানে ব্যবসা করছি। এজন্য প্রতিদিন আমাকে ৩ জনকে ৫০ টাকা করে চাঁদা দিতে হয়। ওই এলাকার আগে ফুচকা বিক্রি করলেও এখন পাড়া-মহল্লায় বিক্রি করেন।

তিনি অভিযোগ করে বলেন, আমি পোস্ট অফিসের পাশে ফুচকা-চটপটি বিক্রি করতাম। বিনিময়ে স্থানীয় একটি ক্লাবকে প্রতিদিন দেড়’শ টাকা দিয়ে হতো। যে টাকা আয় হতো তা দিয়ে কোন রকম সংসার চালাতাম। করোনাকালীন বেচাঁ-বিক্রি কম হওয়ায় ক্লাবটিকে টাকা দিতে না পাড়ায় দু’দিন পড়েই সরকারের লোকজন আমার দোকান তুলে দিয়েছে। অথচ সেখানেই অন্যরা অনায়সে ব্যবসা করছে।

সৈয়দপুর রেলওয়ে পুলিশ (জি আর পি) থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আব্দুল্লাহ আল মামুন বলেন, ওই দোকাগুলো থেকে জিআরপি পুলিশ সদস্যদের চাঁদা আদায়ের বিষয়টি আমার জানা নেই। কারো বিরুদ্ধে অভিযোগ পেলে অবশ্যই ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সৈয়দপুর রেলওয়ে স্টেশন মাস্টার এসএম শওকত আলী বলেন, রেল লাইনের দু’পাশে অবৈধ দোকানগুলোর বিষয়টি রেলওয়ের স্টেট ডিপার্টমেন্টের। আর চাঁদা আদায়ের বিষয়টি আমার জানা নেই।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST