ঘোষনা:
শিরোনাম :
পদ্মা সেতু হওয়ায় বিএনপি উদভ্রান্তের মত কথা বলছে,চট্টগ্রামে তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী বানভাসি মানুষের পাসে লিয়ন চৌধুরী নীলফামারীতে মধ্য রাতে মাতলামি; প্রতিবাদ করায় গুরুতর রগকাটা জখম, থানায় এজাহার। নীলফামারীতে এক মাস ব্যাপি পুনাক তাঁত শিল্প ও পণ্য মেলার শুভ উদ্বোধন পাহাড়ে সন্ত্রাস দমনে এপিবিএন’র টহল শুরু শিক্ষক হত্যা ও কলেজ অধ্যক্ষকে নির্যাতনের প্রতিবাদে নীলফামারীতে মানববন্ধন ও স্মারকলিপি প্রদান। আওয়ামীলীগ হিন্দুদের দল, ভারতের চর এসব ট্যাবলেটে এখন আর কাজ হয়না,তথ্যমন্ত্রী হলি আর্টিজানে জঙ্গি হামলায় ৬ বছর পূর্তিতে,কূটনীতিকরা নিহতদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা বিকেএসপিতে ব্লু খেতাব অর্জন,দেশসেরা নারী আরচার নীলফামারীর দিয়া সিদ্দিকী জাতি হিসেবে আমাদের সক্ষমতাকে সবসময় অবমূল্যায়ন করে সমালোচকরা বললেন,প্রধানমন্ত্রী
নীলফামারীতে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে জমি ও ঘর প্রদানের উদ্বোধন করলেন শেখ হাসিনা।

নীলফামারীতে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে জমি ও ঘর প্রদানের উদ্বোধন করলেন শেখ হাসিনা।

মোঃ হারুন উর রশিদ,স্টাফ রিপোর্টার,
মুজিববর্ষ উপলক্ষে ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে দেশব্যপি ভূমিহীন ও গৃহহীনের মাঝে জমি ও পাকা ঘর প্রদান কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন প্রধানন্ত্রী শেখ হাসিনা। শনিবার (২৩ জানুয়ারী) সকালে প্রধানমন্ত্রী ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে নীলফামারীর সৈয়দপুর উপজেলার কামারপুকুর আশ্রয়ণ প্রকল্প এলাকার উপকারভোগীদের সাথে সরাসরি কথা বলেন। এসময় উৎসবের আমেজ ছিল গোটা এলাকা জুড়ে এবং সুসজ্জিত করা হয় এলাকাটি । এই দিনে সৈয়দপুর উপজেলায় ৩৪ টি পরিবার সহ জেলার ৬৩৭ টি ভূমি ও গৃহহীন পরিবার পেল তাদের মাথা গোজার ঠাঁই।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উদ্বোধনী বক্তব্যে বলেন, ‘আজকে আমার অত্যন্ত আনন্দের দিন। গৃহহীন পরিবারকে গৃহ দিতে পারছি, এটি আমার সবচেয়ে আনন্দের। আমার বাবা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মানুষের কথাই ভাবতেন। আমাদের পরিবারের লোকদের চেয়ে তিনি গরীব অসহায় মানুষদের নিয়ে বেশি ভাবতেন এবং কাজ করেছেন। আমার খুব ইচ্ছে ছিল নিজ হাতে আপনাদের জমির দলিল ও ঘরের চাবি তুলে দিব। কিন্তু করোনা ভাইরাসের জন্য হল না। দেশ ডিজিটাল হয়েছে বলেই এভাবে উপস্থিত হতে পেরেছি।

সৈয়দপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাসিম আহমেদের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করেন জেলা প্রশাসক হাফিজুর রহমান চৌধুরী। এসময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেয়া ৩৪টি ঘরের চাবি হস্থান্তর করেন এবং প্রধানমন্ত্রীকে উপজেলার আশ্রয়ণ প্রকল্প ও উপভোগীদের সম্পর্কে অবহিত করেন সৈয়দপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা।

প্রধানমন্ত্রী উপস্থিত উপকারভোগী আরজিনা খাতুনের সাথে সরাসরি কথা বলেন। এসময় আরজিনা খাতুনের দু’চোখ আবেগাপ্লুত হয়ে অশ্রু সিক্ত হয়ে পড়ে। তিনি প্রধানমন্ত্রীর প্রতি ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানিয়ে বলেন, মোর মতন অসহায় ভূমিহীন কোন দিন এ্যাউংকা পাকা বাড়ি বানেবার পানু না হ্যায়। তোমরা মোক থাকার যে ঘরখান করি দিলেন আল্লাহ তোমার ভাল কইরবে। ওই উপকারভোগী ঘর পেয়ে আনন্দিত হয়ে প্রধনমন্ত্রীকে একটি ভাওয়াইয় গান শোনান।

এসময় উপস্থিত ছিলেন, নীলফামারী-৪ আসনের সাংসদ আহসান আদেলুর রহমান, সংরক্ষিত আসনের সাংসদ রাবেয়া আলীম, রংপুর বিভাগীয় কমিশনার আব্দুল ওয়াব ভূইঞা, পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মোখলেছুর রহমান বিপিএম,পিপিএম, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা জয়নাল আবেদীন ,জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও সদর পৌর মেয়র কৃষিবিদ দেওয়ান কামাল আহমেদ সহ প্রশাসনিক কর্মকর্তা ,স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতৃবৃন্দ, জেলার প্রিন্ট ও ইলেকট্রিক মিডিয়ার সাংবাদিকরা।

উল্লেখ্য, নীলফামারী জেলার জমি নেই, ঘর নেই এমন ৬৩৭ জন অসহায় ভূমি ও গৃহহীন পরিবার পেয়েছে দুই শতক জমি সহ পাকা ঘর। এসব পরিবারের জন্য শেখ হাসিনার পছন্দ করা নকশায় নির্মাণ করা হয়েছে আশ্রয়ন-২ প্রকল্পের বাড়ি। ১ লাখ ৭১ হাজার টাকা ব্যয়ে প্রতিটি ঘরে থাকছে দুটি শয়ন কক্ষ, একটি লম্বা বারান্দা, একটি রান্নাঘর ও একটি টয়লেট। এসব ঘরের জন্য নিশ্চিত করা হয়েছে বিদ্যুৎ ও সুপেয় পানির ব্যবস্থা।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST